মিরসরাইয়ে চালক-পুলিশ সংঘর্ষ আহত ৪০ (১)

প্রকাশ:| শনিবার, ১৫ জুলাই , ২০১৭ সময় ১০:৩০ অপরাহ্ণ

আবু সাঈদ ভূঁইয়া, মিরসরাই (চট্টগ্রাম) ::
চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে সিএনজি অটোরিকসা চালকদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষে পুলিশ, সাংবাদিকসহ আহত হয়েছেন কমপক্ষে ৪০জন। পুলিশের টোকেন বাণিজ্য এবং স্থানীয় খইয়াছড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহেদ ইকবাল চৌধুরীকে অপদস্থের প্রতিবাদে অটো রিকসা চালকরা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে। সংঘর্ষের সময় পুলিশের একটি চাইনিজ রাইফেল খোয়া গেছে বলে স্বীকার করেছেন পুলিশ। রাত নয়টায় পুলিশ চেয়ারম্যান জাহেদ ইকবাল চৌধুরীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসে বলে জানা গেছে।
এসময় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যান চলাচলে বিঘœ ঘটে এবং যাত্রী ও চালকদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করে।
শনিবার (১৫জুলাই) বিকাল সাড়ে ৫ টায় উপজেলার বড়তাকিয়া বাজার এলাকায় ওই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। অবরোধ সরিয়ে দেয়ার জন্য পুলিশ চালকদের উপর লাঠিচার্জ এবং ৩ রাউন্ড গুলি চালায়। এসময় সিএনজি অটোরিক্সা চালকরা পুলিশকে লক্ষ্য করে পাল্টা হামলা চালায়। এসময় পুরো এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষের পরপরই মিরসরাইয়ের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জিয়া আহমেদ সুমন ঘটনাস্থলে গিয়ে চালক ও চেয়ারম্যান জাহেদ ইকবালের সাথে কথা বলে সন্ধ্যা ৭টায় মহাসড়ক থেকে অবরোধ সরানোর ব্যবস্থা করেন।

পুলিশের লাঠিচার্জ ও চালকদের ইটপাটকেলে আহতরা হলেন, সমকাল মিরসরাই প্রতিনিধি বিপুল দাশ, মিরসরাই থানার এএসআই জহির, কনষ্টেবল মেহেরাবরু। চালক ও পথচারিদের মধ্যে রয়েছে নুর উদ্দিন, সাকিব, করিম, নুরল নবী, আশরাফ, সাইফুল, আরাফাত, মাহবুবুল হক, বেলাল, সৈকত, পাভেল, ফজলুল, তাজুল, মুনসুর, গিয়াস উদ্দিন, দেলোয়ার, সবুজ, আজাদ সহ কমপক্ষে ৪০ জন। আহতরা বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে বলে জানা গেছে।