মায়ানমারের সেনাবাহিনীকে বিচারের মুখোমুখি করতে হবে

প্রকাশ:| সোমবার, ২৫ সেপ্টেম্বর , ২০১৭ সময় ০৫:০৪ অপরাহ্ণ

বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের মানবন্ধনে ড. হাছান মাহমুদ

১৯৮০ সাল থেকে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া সকল রোহিঙ্গা নাগরিককে মায়ানমারে ফিরিয়ে নিয়ে গণহত্যার সাথে জড়িত মায়ানমারের সেনাবাহিনীকিকে বিচারের মুখোমুখি করার দাবী জানিয়েছেন সাবেক পরিবেশ মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এমপি। সোমবার দুপুরে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব চত্বরে মায়ানমারে সহিংসতা বন্ধের দাবীতে সর্বস্তরের বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের আয়োজিত এক মানবন্ধন কর্মসূচীতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এই দাবী জানিয়ে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, মায়ানমারে রোহিঙ্গাদের ওপর যে জাতিগত নৃশংসতা চলছে তা মেনে নেয়া যায় না। একটি জাতী গোষ্টিকে নির্মুল করার জন্য মায়ানমারে যে হত্যাযজ্ঞ চালানো হচ্ছে তার বিরুদ্ধে আজ বিশ্বব্যাপী নিন্দার ঝড় উঠেছে। ইতিহাসের ভয়াবহ নির্মমতার শিকার মায়ানমারের রোহিঙ্গা নাগরিকদের বাংলাদেশ আশ্রয় দিয়ে আমাদের প্রধানমন্ত্রী যে মানবতাবোধের পরিচয় দিয়েছেন তা সারা বিশ্বে প্রসংশিত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কুটনৈতিক তৎপরতা এবং জাতিসংঘে বিশ্বনেতৃবৃন্দের সামনে রোহিঙ্গাদের উপর নির্যাতন বন্ধ ও তাদের ফিরিয়ে নিতে চাপ সৃষ্টির জন্য প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানের ফলে এই ঘটনায় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছেন বিশ্ব নেতৃবৃন্দ। মিয়ানমারে হত্যাকান্ডের নিন্দা জানিয়ে রোহিঙ্গাদের হত্যা নির্যাতন বন্ধ ও রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারের উপর চাপ সৃষ্টি করছেন বিশ্ব নেতারা।
ড. হাছান মাহমুদ বলেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার মানবতাবোধের পরিচয় দিয়ে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় ও খাদ্য বস্ত্রের সংস্থান করেছেন সে জন্য সারাবিশ্ব যখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রসংশায় পঞ্চমুখ তখন আমাদের দেশের বিরোধীদল বিএনপি ঘোল াপানিতে মাছ শিকার করার অপচেষ্ঠা চালাচ্ছে। মিয়ানমারের ঘটনাকে পুঁজি করে বিএনপি সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করার চেষ্ঠা করছে। বিএনপিকে এ ধরনের ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের অপচেষ্ঠা থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানান ড. হাছান মাহমুদ।
যাছাই বাছাই করে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার বিষয়ে মায়ানমারের বক্তব্যের সমালোচনা করে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, কোন যাছাই বাছাই চলবে না। ১৯৮০ সাল থেকে এ পর্যন্ত বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া প্রতিটি রোহিঙ্গা নাগরিককে ফিরিয়ে নিতে হবে। শুধু রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিলে হবে না, রোহিঙ্গাদের বর্বরতম নির্যাতন ও হত্যাকান্ডে জড়িত মিয়ানমার সেনাবাহিনরি প্রতিটি সদস্যকে বিচারের মুখোমুখি করতে হবে।
বাংলাদেশ বৌদ্ধ কল্যাণ ট্রাস্টের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও উত্তর জেলা আওয়ামীলীগ নেতা স্বজন কুমার তালুকদারের সভাপতিত্বে এই মানবন্ধ কর্মসূচীতে বক্তব্য রাখেন বৌদ্ধ ধর্মীয় গুরু বিমল জ্যোতি মহাস্থবির, ধর্মসেন মহাস্থবির, জ্ঞান বরণ থের, এস লোকজিৎ থের, দিপংকর ভিক্ষু, বিজয় লক্ষী মহাস্থবির, অজিত বরন বড়–য়া, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামীলীগ নেতা ও রাঙ্গুনিয়া পৌর মেয়র শাহজাহান শিকদার, রাঙ্গুনিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ্আলী শাহ, কৃষকলীগ নেতা শফিকুল ইসলাম, তরিৎ কান্তি দে, বিপ্লব শিকদার, এমরুল করিম রাশেদ, ছাত্রলীগ নেতা নুরুল আলম, মিথুন বড়–য়া, প্রকৌশলী প্রদীপ বড়–য়া, মৃগাংক প্রসাদ বড়–য়া, প্রমুখ।
মানবন্ধনে চট্টগ্রামের বিভিন্ন বৌদ্ধ মন্দিরের ভিক্ষু সম্প্রদায় এবং বিভিন্ন বৌদ্ধ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ অংশগ্রহন করে মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের উপর নির্যাতন বন্ধ ও তাদের নিজ দেশে ফিরিয়ে নেয়ার দাবী জানান।