মামা ভাগিনার বন্দুকযুদ্ধ: নিহত ১ গুলিবিদ্ধ ৯ আটক ৮

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ৬ অক্টোবর , ২০১৫ সময় ০৯:৪১ অপরাহ্ণ

 

মামা ভাগিনার বন্দুকযুদ্ধ ঃ নিহত ১ গুলিবিদ্ধ ৯ আটক ১মোঃ ফারুক, পেকুয়া
কক্সবাজারের পেকুয়ায় মামা ভাগিনার মধ্যে বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটেছে। মামা ভাগিনার মধ্যে জায়গা জমি নিয়ে চলা বিরোধের সূত্রে ধরে এঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে ৬ অক্টোবর মঙ্গলবার সকাল ৮ টায় সদর ইউনিয়নের সিরাদিয়া গ্রামে।

এ সময় গুলিবিদ্ধ ১জনের মৃত্যুসহ আরো ৯জন গুলিবিদ্ধ হয়েছে। পরে সাধারণ জনগন আর পুলিশ ঐক্যবদ্ধ হয়ে ৮জনকে চকরিয়ার ডেমুশিয়া এলাকা থেকে আটকর্ করে। আর গুলিবিদ্ধ লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার মর্গে প্রেরণ করে বলে থানা সূত্রে জানা গেছে। নিহত ব্যক্তি জসিম উদ্দিনের পুত্র কপিল উদ্দিন(৩৫) আর গুলিবিদ্ধরা হলেন, সদর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি সাবেক এমইউপি আজম খান (৫০), তার ভাই জয়নাল আবদীন(৪৫),বাপ্পি (২৫) মুহাম্মদ নুর (২৮), মোর্শেদ(২৫), হাসান(২৭), মুকসুদ(২৯), সানজিদা বেগম(৩৫) ও জয়নব বেগম(৩২)। তার মধ্যে জয়নাল ও বাপ্পির অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় চমেক হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে। বাকীরা পেকুয়া সরকারী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

মামা ভাগিনার বন্দুকযুদ্ধ ঃ নিহত ১ গুলিবিদ্ধ ৯ আটক ২মামা ভাগিনার বন্দুকযুদ্ধ ঃ নিহত ১ গুলিবিদ্ধ ৯ আটক ৩আটককৃতরা হলেন, ঘটনার মূলহোতা আবুল কাশেমের ছেলে মো: কাইছার উদ্দিন ও মো: ইমরান, আবদুল আলিম, মো: ইউনুছ, আবদু রহিম, সাইফুল ইসলাম (১), সাইফুল ইসলাম(২) ও তাওহীদুল ইসলাম। তবে পুলিশ ঘটনায় ব্যবহ্নত অবৈধ অস্ত্রগুলো উদ্ধার করতে পারেনি।

সূত্রে জানা গেছে, সদর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আজম খান ও তার ভাগিনা কাইছারের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে জয়গা জমির বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে গত ১মাস আগেও কাইছারের নেতৃত্বে আজম খানের পরিবারে হামলা চালিয়ে ৪/৫জনকে গুরুতর আহত করে। পুলিশ সে সময় কাইছারকে আটক করলেও অদৃশ্য কারনে ছেড়ে দেয়।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, গতকাল ঘটনার দিন সকালে কাইছারের নেতৃত্বে আটককৃতরাসহ আরো ১৫/২০জনকে নিয়ে অবৈধ অস্ত্রের মহড়া দিয়ে আজম খানের মালিকনাধীন চিংড়ি ঘের দখল করতে যায়। এ সময় আজম খানের লোক বাধা সৃষ্টি করলে তাদের উপর ব্যাপক গুলিবর্ষন করে। ওই সময় হতাহতের ঘটনাটি ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, দীর্ঘদিন ধরে তাদের মাঝে চলা বিরোধ মিমাংসায় প্রশাসন ও শালীষকারগনের অবহেলায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা কয়েকবার ঘটে। সর্বশেষ মারাত্মক অস্ত্রের মহড়া পেকুয়াবাসী দেখল গতকাল ৬ অক্টোবর সকালে। মরল নিরহ জনগণ আর অবনতি হল পেকুয়ার আইনশৃংখলার।
পেকুয়া থানার ওসি (তদন্ত) শহিদুল ইসলাম জানান, গুলিবিদ্ধ লাশটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। ৮জনকে আটক করা হলেও সবাই জড়িত কিনা তা তদন্ত করে জানা যাবে। তবে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনাটি এড়িয়ে যান।