মানুষ উন্নয়ন বেদনায় আছে

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ২৬ অক্টোবর , ২০১৭ সময় ১১:২১ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রামের মানুষ উন্নয়ন বেদনায় আছে মন্তব্য করে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, আরও উন্নয়ন পাওয়ার জন্য এ বেদনা সহ্য করতে হবে। এটি ডেভেলপমেন্ট পেইন।

বৃহস্পতিবার (২৬ অক্টোবর) বিকেলে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) কলসেন্টার ও মোবাইল অ্যাপ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ইন্টারনেটের ধীরগতি সম্পর্কিত সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, চট্টগ্রামে ধনী লোক বেশি। অ্যাপল ফোন ব্যবহার করে বেশি। জেনারেলি আমাদের অ্যানড্রয়েড ব্যবহারকারী বেশি। আপল ফোনও অনেকে ব্যবহার করে। যত আইটি জায়ান্ট আছে তাদের বাংলাদেশে আগ্রহী করে তুলতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। এটি বিরাট চ্যালেঞ্জ। চেষ্টা করছি অ্যাপল ফোনের রেজিস্ট্রেশন যাতে বাংলাদেশের নাম নিয়ে করা যায়, বাংলাদেশকে যেন কনসিডার করে। আগে ফেসবুক বাংলাদেশকে কনসিডার করত না। গুগল ট্রান্সলেটর অফলাইনে ছিল না। এগুলো সব আমরা সমঝোতার মাধ্যমে একের পর এক এনেছি।

তিনি বলেন, দু-এক বছরের মধ্যে ইন্টারনেটের গতি বাড়বে, দাম কমবে। প্রতিবছরই কিছু না কিছু দাম কমছে ইন্টারনেটের। এখন যেমন ক্যাবল টিভির লাইন বাড়ি বাড়ি যাচ্ছে খুব অল্প দিনের মধ্যে ফাইবার অপটিক ক্যাবল ডোর টু ডোর যাবে। এখন দেশে সাড়ে তিন কোটি থ্রিজি ইউজার। ফোরজি চালু হলে তা-ও দ্রুত সম্প্রসারিত হবে।

২০২১ সাল নাগাদ ৫ বিলিয়ন ডলার আইসিটি খাত থেকে রপ্তানির লক্ষ্য রয়েছে জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ২০ লাখ তরুণ-তরুণীর কর্মসংস্থান করব। প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন প্রতিটি জেলায় হাইটেক পার্ক হবে। প্রথম পর্যায়ে ২৮টি হাইটেক পার্ক নির্মাণ করছি। বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে ৮০ কোটি টাকা ব্যয়ে চুয়েটে দেশের প্রথম আইসিটি বিজনেস সেন্টার স্থাপন করতে যাচ্ছি।

তিনি বলেন, চট্টগ্রামের মাটি সারা বিশ্বের কাছে পরিচিত। এটি হচ্ছে বন্দরনগরী চট্টগ্রাম। এটি হচ্ছে বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রাম। এটিকে সিলিকান সিটিতে রূপান্তর করতে চাই। চট্টগ্রামকে আইসিটি শিল্পনগরী হিসেবে বিশ্বের দরবারে পরিচিত করতে চাই। চট্টগ্রাম সিটিকে সেই সিলিকান ভ্যালির একটি সিস্টার সিটি হিসেবে আমরা গড়ে তুলতে চাই। সে জন্যই জননেত্রী শেখ হাসিনা তিনটি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছেন। এগুলো একনেকে অনুমোদিত।