মহাঅষ্টমীতে মণ্ডপে মণ্ডপে ভক্তদের ঢল, আজ নবমী

mirza imtiaz প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর , ২০১৮ সময় ০১:০৫ পূর্বাহ্ণ

কুমারীরা শুদ্ধতার প্রতীক। কুমারী পূজা মাতৃরূপে ঈশ্বরেরই একটি আরাধনা। মনুসংহিতা মতে, যেখানে নারীরা পূজিত হন, সেখানে দেবতারা প্রসন্ন। যেখানে নারীরা সম্মান পান না সেখানে সব কাজই নিষ্ফল। পৌরাণিক কাহিনী মতে, কোলাসুর নামে এক অসুর স্বর্গ-মর্ত্য অধিকার করলে বিপন্ন দেবতারা মহাকালীর শরণাপন্ন হন। দেবতাদের আবেদনে সাড়া দিয়ে মহাকালী মানবকন্যা রূপে জন্ম নিয়ে কুমারী অবস্থায় কোলাসুরকে বধ করেন। মহাকালীর এই অসুর   বিনাশী রূপকে স্মরণ করতেই শুরু হয় কুমারী পূজা শারদীয় দুর্গোৎসবের মহাঅষ্টমীতে চট্টগ্রাম সহ দেশের বিভিন্ন জেলায় কুমারী পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মহাঅষ্টমীতে পুজোর আনন্দ মধ্যগগনে৷ বাঙালির প্রাণের উত্‍‌সবে মাতোয়ারা গোটা চট্টগ্রাম৷ মহাঅষ্টমীতে জনজোয়ার দেখেছে শহর-গ্রাম৷  সকাল থেকেই মণ্ডপগুলিতে অঞ্জলি দেওয়ার ভিড়৷ তারপর ভোগ৷

নারীতেই পরম ঈশ্বরকে দর্শন ও অর্জন হিসেবে বিশ্বাস করে শারদীয় দুর্গোৎসবের অষ্টমী তিথিতে ‘সর্ববিদ্যাস্বরূপিনী’ কুমারী রূপে দেবী দুর্গার বন্দনা করলেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা। গতকাল ভোরে সারা দেশে রামকৃষ্ণ মঠের পাশাপাশি ঢাকার গোপীবাগে রামকৃষ্ণ মিশন ও মঠেও কুমারী পূজার আয়োজন করা হয়। সকাল থেকে বিরামহীন ঢাকের বাদ্যের সঙ্গে থেমে থেমে চলে কাসার ঘণ্টা, শঙ্খনাদ আর উলুধ্বনি। সঙ্গে চলে ভক্তিগীতি। আর তার মাঝেই পূজা মণ্ডপে চণ্ডী পাঠের মাধ্যমে চলতে থাকে দেবীর অর্চনা। সকাল ৭টার দিকে শিশু মিতালী চক্রবর্তীকে কুমারী দেবী রূপে সাজিয়ে দুর্গোৎসবের মহাঅষ্টমীতে ঢাকার রামকৃষ্ণ মিশনে শুরু হয় কুমারী পূজার আয়োজন। পরবর্তীতে বেলা ১১টার দিকে লোহিতলাল বস্ত্রে ‘পূজার বেদীতে আসেন ‘কুমারী দেবী’। পুষ্পাসনে আসীন হয়ে বসেন বিল্বপত্রে।

তার কপালে লাল সিঁদুর, হাতে ফুল এবং পায়ে গাঢ় লাল আলতা। পূজারীদের মন্ত্রোচ্চারণে এবং স্তুতিতে দেবীর বন্দনা করা হয়। গোপীবাগে রামকৃষ্ণ মিশন মঠে এবার কুমারী পূজা পরিচালনা করেন ভাস্কর মহারাজ, আর তন্ত্র সাধনাকারীর দায়িত্ব পালন করেন কল্যাণ মহারাজ। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস, যে ত্রিশক্তির দ্বারা বিশ্ব ব্রহ্মাণ্ড সৃষ্টি-পালন-ধ্বংসের চক্রে আবর্তন করে, সেই শক্তি বীজ আকারে কুমারীতে নিহিত। সেই বিশ্বাস থেকেই দেবী দুর্গার কুমারীরূপের আরাধনা করেন ভক্তরা।

কুমারী পূজার সূত্রপাত ঘটে সাধক রামকৃষ্ণ পরমহংসদেবের হাত ধরে। তিনিই প্রথম নিজ স্ত্রী সারদা দেবীকে মাতৃজ্ঞানে পূজা করা শুরু করেন। আর তারপর থেকেই উপমহাদেশের বিভিন্ন মিশন ও মঠগুলোতে এই কুমারী পূজার চর্চা চালু হয়। ভক্তরা বিশ্বাস করেন, এই পূজা একাধারে ঈশ্বরের উপাসনা, মানববন্দনা এবং নারীর মর্যাদার প্রতিষ্ঠা। নারীর সম্মান, মানুষের সম্মান আর ঈশ্বরের আরাধনাই কুমারী পূজার মূল শিক্ষা।
রামকৃষ্ণ মিশনের অধ্যক্ষ স্বামী ধ্রুবেশানন্দ বলেন, যোগিনীতন্য, কুলার্বতন্য, দেবীপুরাণ, স্তোত্র, কবচ, সহস্রনাম, তন্যসার, প্রাতোষিণী, পুরোহিত দর্পণ- এ সকল হিন্দু শাস্ত্রের ধর্মীয় গ্রন্থে কুমারী পূজার পদ্ধতি ও মাহাত্ম্য বর্ণনা করা হয়েছে। কিছু নিয়ম মেনে এ পূজা অনুষ্ঠিত হয়। এসব নিয়ম-কানুন, আচার-ব্যবস্থা সব কিছুই শাস্ত্রে বর্ণিত আছে। যেমন- তন্ত্রসার মতে, “১ বছর থেকে ১৬ বছর পর্যন্ত বয়সের বালিকারা কুমারী পূজার উপযুক্ত হিসেবে গণ্য হবে। তবে তাদের অবশ্যই ঋতুমতি হওয়া চলবে না। এবারের কুমারী দেবী মিতালীর বয়স আট বছর হওয়ায় তার শাস্ত্রীয় নাম ‘কুষ্ঠিকা’।”
মেরুতন্ত্রে স্পষ্ট করে লেখা রয়েছে, “সর্বকামনা সিদ্ধির জন্য ব্রাহ্মণকন্যা, যশ প্রাপ্তির জন্য ক্ষত্রিয় কন্যা, ধনলাভের জন্য বৈশ্য কন্যা ও পুত্র লাভের জন্য শূদ্রকুলজাত কন্যা কুমারী পূজার জন্য যোগ্য।”

নগরীর পাথরঘাটায় রাধাগোবিন্দ ও শান্তনেশ্বরী মাতৃমন্দিরে এবার কুমারী পূজায় মায়ের আসনে বসানো হয়েছে সাত বছরের শ্রেয়সী বিশ্বাস তাথৈকে। শ্রেয়সী সেন্ট যোসেফ’স স্কুলের প্রথম শ্রেণির ছাত্রী। বুধবার (১৭ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে শ্যামল সাধু মোহন্ত মহারাজের পৌরহিত্যে কুমারী পূজা সম্পন্ন হয়। পূজারী ছিলেন পণ্ডিত বাবলা চক্রবর্তী ও তন্ত্রধারে ছিলেন জুয়েল নাথ। তিনি জানান, হিন্দু শাস্ত্র মতে ১-১৬ বছরের অজাতপুষ্প সুলক্ষণা যেকোনো বর্ণের ও গোত্রের কুমারীকে পূজা করার কথা বলা হয়েছে। বয়সভেদে কুমারীর নাম ভিন্ন হয়। এবার সাত বছরের কুমারী হওয়ায় শাস্ত্র মতে নাম মালিনী। এ নামে পূজিত হলে ধন-ঐশ্বর্য লাভ হয়। শ্রেয়সী দেওয়ানজী পুকুর পাড়ের শ্যামল কুমার বিশ্বাস ও তনিমা বিশ্বাস টিনার মেয়ে। মেয়েকে কুমারী পূজার আসনে বসানোতে তারা পরম সৌভাগ্যবান বলে জানান।

স্বামী ধ্রুবেশানন্দ জানান, “নারী জাতির প্রতি যথার্থ শ্রদ্ধা সমাজ ও জীবনকে মহৎ করে তোলাই কুমারী পূজার মূল শিক্ষা। কারণ, কুমারীতে সমগ্র মানবজাতির শ্রেষ্ঠ শক্তি- পবিত্রতা, সৃজনী ও পালনী শক্তি সকল কল্যাণী শক্তি সূক্ষ্মরূপে বিরাজ করে। তাই কুমারী পূজা। কুমারী প্রতীকে জগজ্জনীর পূজাতে পরম সৌভাগ্য লাভ হয়।”
গতকাল কুমারী পূজা শেষে দুপুর ১২টা ৩১ মিনিটে শুরু হয় মহাঅষ্টমীর সন্ধিপূজা।

পঞ্জিকা মতে, অষ্টমী তিথি শুরু হয়েছে মঙ্গলবার রাত ১০টা ১৬ মিনিটে৷ শেষ হবে আজ অর্থাত্‍‌ বুধবার দুপুর ১২টা ৪৯ মিনিটে৷ মহাঅষ্টমীর আরও একটি মূল আকর্ষণ ছিল কুমারী পুজো। দুর্গার অঙ্গরূপে অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে এই পুজো। দুর্গা মাতৃভাবের প্রতীক আর কুমারী নারীর প্রতীক। কুমারীর মধ্যে মাতৃভাব প্রতিষ্ঠাই এ পুজোর মূল লক্ষ্য। শাস্ত্রমতে, কুমারী পুজোর উদ্ভব হয় কোলাসুরকে বধ করার মধ্য দিয়ে। দেশের বিভিন্ন স্থানে  কুমারী পুজো দেখতে ইতিমধ্যেই ভিড় জমিয়েছেন অসংখ্য মানুষ৷


বৃহদ্ধর্মপুরাণে আছে, দেবী অম্বিকা কুমারী কন্যারূপে দেবতাদের সামনে আবির্ভূত হয়ে বেলগাছে দেবীর বোধন করতে নির্দেশ দেন। তৈত্তিরীয় আরণ্যকে দেবীকে কুমারী নামে অভিহিত করা হয়েছে। দক্ষিণ ভারতে কন্যাকুমারীর মন্দিরে কুমারী প্রতিমার পুজো দেবীর নামের ঐতিহ্য বহন করছে, যেহেতু কুমারী পুজো তান্ত্রিক মতবাদের প্রতিফলন তাই সব শক্তিপীঠেই কুমারী পূজা হয়।

দুর্গাপুজোর একটি বিশেষ অধ্যায় হল সন্ধিপুজো। এই পুজোর সময়কাল ৪৮ মিনিট। অষ্টমী তিথির শেষ ২৪ মিনিট ও নবমী তিথির প্রথম ২৪ মিনিট মোট ৪৮ মিনিটের মধ্যে অনুষ্ঠিত হয়। যেহেতু অষ্টমী ও নবমী তিথির সংযোগ স্থলে এই পুজো হয় তাই এই পুজো নাম সন্ধিপুজো অর্থাত্‍ সন্ধি-কালীন পূজা। এ বছর সন্ধিপুজো ছিল বেলা ১২টা০৩ মিনিটে৷

এর আগে ১৬ই অক্টোবর সকালে নবপত্রিকা প্রবেশ ও স্থাপনের পর শুরু হয় মহাসপ্তমীর পূজা। যার মাধ্যমে দুর্গোৎসবের মূল আনুষ্ঠানিকতার উদ্বোধন ঘটে। আজ সকালে বিহিত পূজার মাধ্যমে শুরু হবে মহানবমী পূজা।


আরোও সংবাদ