মসজিদ কেন্দ্রীক দ্বীনিশিক্ষার ভূমিকা অপরিসীম

প্রকাশ:| শুক্রবার, ১৫ এপ্রিল , ২০১৬ সময় ১১:৪৭ অপরাহ্ণ

কেয়াজু পাড়া বায়তুশ শরফের মাহফিলে মাওলানা নুরী

বায়তুশ শরফ মজলিসুল ওলামা বাংলাদেশের মহাসচিব ও মসজিদ মিশন চট্টগ্রাম মহানগরী সভাপতি মাওলানা মামুনুর রশীদ নুরী বলেছেন, ইসলামের স্বর্ণযুগে মসজিদ ছাড়া আলাদা কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছিল না। রাসুল (স:) মসজিদের আঙ্গিনায় বসে তাঁর নবুওয়াতী জ্ঞান ভান্ডার থেকে সাহাবায়ে কেরামদের সামনে শিক্ষা দিতেন। কারণ মসজিদ শুধু মাত্র নামাজের স্থান নয়। ইহা মুসলমানদের আধ্যাত্মিক, জাগতিক, সামাজিক মানবিক ও নৈতিক শিক্ষারও কেন্দ্র স্থল। যেখানে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজীদের মাঝে গড়ে উঠে ইসলামী ভ্রাতৃত্ব ও সৌহার্দের মধুর সম্পর্ক। তিনি আরো বলেন, ইসলামের প্রাথমিক যুগে মসজিদ সংলগ্ন প্রতিষ্ঠিত মক্তবে শুধুমাত্র কোরআন শিক্ষা দেয়া হতো না। যেখানে কোরআনের অর্থ তাফসীর, প্রয়োজনীয় হাদীস মুখস্থ এবং মাসলা মাসায়েল সহ জ্ঞান বিজ্ঞানের সকল শিক্ষাই দেয়া হতো। তিনি বলেন, আজ ধীরে ধীরে মক্তব শিক্ষার প্রতি মুসলমানদের অমনোযোগী মনোভাব ও খাম খেয়ালীর কারণে বয়স্ক ও শিশু নিরক্ষরদের নিরক্ষতা দূরীকরণের প্রচেষ্টা কাংখিত মানে পৌঁছানো সম্ভব হচ্ছে না। তিনি আরো বলেন, মুসলিম জাতির ভাগ্যের পরিবর্তন তথা গোটা বিশ্ব মানবতার কল্যাণ সাধান মসজিদ ভিত্তিক শিক্ষা ছাড়া সম্ভব নয়। তিনি সমাজের মসজিদ গুলোকে ইসলামের প্রাথমিক যুগের মসজিদের ভূমিকায় অবর্তীর্ণ হয়ে তালীম তরবিয়ত ও শিক্ষ প্রশিক্ষনের মারকাজ হিসেবে মসজিদ সংলগ্ন মক্তব গড়ে তোলার জন্য সমাজের বিত্তশালীদের এগিয়ে আসার আহবান জানান।
গতকাল বান্দারবান জেলার লামা সরই ইউনিয়নে অবস্থিত কেয়াজুপাড়া ডলুছড়ি বাজার বায়তুশ শরফ হেফজখানা, জামে মসজিদ ও ফোরকানিয়া মাদরাসার বার্ষিক সভা ও মাহফিলে প্রধান বক্তার বক্তব্যে উপরোক্ত কথা বলেন।
বায়তুশ শরফ মসজিদের খতিব মাওলানা ইকবাল হোসাইনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মাহফিলে বক্তব্য রাখেন চুনতি হাকিমিয়া কামিল মাদরাসার প্রধান মুহাদ্দিস হাফেজ মাওলানা শাহ আলম, মাওলানা ফরিদুল আলম, মাওলানা আইয়ুব আনছারী, চেয়ারম্যান ফরিদুল আলম, নুরুল আলম, সাইফুল ইসলাম প্রমুখ


আরোও সংবাদ