মন্জু ও কাউন্সিলরদের পর প্রধানমন্ত্রীর প্রতি মহিউদ্দিনের কৃতজ্ঞতা

প্রকাশ:| বুধবার, ২৫ জুন , ২০১৪ সময় ০৬:৫৮ অপরাহ্ণ

মন্জু ও কাউন্সিলরদের পর প্রধানমন্ত্রীর প্রতি মহিউদ্দিনের কৃতজ্ঞতা। এর আগে পৃথক বিবৃতিতে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মন্জু ও কাউন্সিলররা।
নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে বহদ্দারহাট থেকে কর্ণফুলী নদী পর্যন্ত নতুন খাল খননের জন্য ২৮৯ কোটি টাকার প্রকল্প পাশ করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা ও সরকারকে অভিনন্দন জানিয়েছেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক সিটি মেয়র এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী।

মহিউদ্দিনবুধবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ অভিনন্দন ও কৃতজ্ঞতা জানান তিনি। পৃথক বিবৃতিতে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলররা।

বিবৃতিতে তিনি বলেন, এবারের বর্ষা মৌসুমে চট্টগ্রামের জলাবদ্ধতা অতীতের সকল রেকর্ড অতিক্রম করেছে। এতে করে সাধারণ মানুষের দুঃখ, দুর্দশা চরম পর্যায়ে পৌঁছে। মাত্র তিন দিনের বৃষ্টিতে নগরীর যে দুরবস্থার সৃষ্টি হয়েছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। পানিতে নিম্নাঞ্চল তলিয়ে যায়। নগরবাসী বিশেষ করে সাধারণ মানুষের মাঝে চরম দুর্ভোগ নেমে আসে।

তিনি বলেন, বাণিজ্যক এলাকাগুলোতে ক্ষতির পরিমাণ অপরিসীম। কোথাও কোথাও বিভিন্ন ধরনের ভোগ্য পণ্যসহ জিনিস পত্রের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে এই ধরনের পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। কিন্তু অপরিকল্পিত নগরায়নের কারনে এবার তা নজির বিহীন পর্যায়ে পৌঁছেছে। এ জন্য মুলতঃ ড্রেনেজ মাস্টার প্ল্যান বাস্তবায়ন না হওয়া যেমন দায়ী তেমনি সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোর উদাসিনতাও কম দায়ী নয়।

চট্টগ্রামের এবারের পরিস্থিতি বর্তমান গণতান্ত্রিক সরকার দ্রুত আঁচ করতে পেরে নগরবাসীর দুঃখ দুর্দশা নিরসনে গত ২৪ জুন একনেকের সভায় নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনের লক্ষ্যে প্রাথমিক পর্যায়ে ২৮৯ কোটি টাকা যে বরাদ্দ দিয়েছে তা এই নগরীর জলজট সমস্যা নিরসনে ইতিবাচক একটি দিক বলে তিনি মনে করেন।

তিনি আশা করেন, এ কাজে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নগরীর সংশ্লিষ্ট সকল সংস্থাগুলোকে সমন্বয় করে পরিকল্পিতভাবে সরকারের এই মহৎ উদ্যোগকে বাস্তবায়নে আন্তরিকভাবে তৎপর হবেন।

বর্তমান সরকারের আমলে বাণিজ্যিক নগরী চট্টগ্রামের সকল কর্মকান্ডে ব্যাপক অগ্রগতি সাধিত হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।


আরোও সংবাদ