মনিবের মৃত্যুটা যেন মেনে নিতে পারছে না ময়না

প্রকাশ:| শুক্রবার, ২১ নভেম্বর , ২০১৪ সময় ১০:৫৯ অপরাহ্ণ

মনিবের মৃত্যুটা যেন মেনে নিতে পারছে না ময়না। যার কাছ থেকে বুলি শেখা সেই মনিবের মৃত্যুতে শোকে স্তব্ধ হয়ে পড়েছে ময়নাটি।

কেউ সামনে উপস্থিত হলে ‘ময়না’, ‘তোমার নাম কি?’ ‘আল্লাহু’ এ রকম হাজার কথায় বাড়ি মাতিয়ে রাখতো যে পাখিটি আজ সে অনেকটা স্তব্ধ। তার চোখ দুটি যেন মনিবকেই খুঁজছে।
মনিবের মৃত্যুটা যেন মেনে নিতে পারছে না ময়নামনিবের মৃত্যুটা যেন মেনে নিতে পারছে না ময়না
রাজশাহী মহানগরীর লক্ষ্মীপুর এলাকার মাজেদুর রহমান মাজেদের মৃত্যুতে তার পোষা ময়নাটি স্তব্ধ হয়ে গেছে। বুধবার ভোর সাড়ে ৪টায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।

মাজেদের ছোট ছেলে পলাশ জানান, পশু-পাখিদের প্রতি তার বাবার ভালোবাসা ছিল অসম্ভব রকমের। তাদের গ্রামের বাড়ি নওগাঁ জেলার পত্মীতলা উপজেলার সোনাপুরে।

দীর্ঘদিন থেকেই পশু-পাখি প্রেমিক মাজেদের বাড়িটি এক সময় ছোট চিড়িয়াখানায় পরিণত হয়েছিল। বানর, বিদেশি কুকুর, বিড়াল, টিয়া, ময়না, বেনিপুষ, খরগোশ পালন করতেন তিনি। তবে ময়নার প্রতি তার ছিল বিশেষ ধরনের ভালোবাস। তাই গ্রামের বাড়ি ছেড়ে রাজশাহী শহরের বাড়িতে আসার সময় ভালোবাসার ময়নাটি সঙ্গে নিয়ে আসেন।

মাজেদের আরেক ছেলে শিমুল জানান, এর আগে তার বাবার আরও একটি ময়না ছিল। বাচ্চা ময়না কিনে দিনের পর দিন বিছানায় বসে বসে কথা শেখানোর চেষ্টা করতেন বাবা। অবশেষে একদিন কথা ফোটে ময়নার মুখে। কয়েক বছর আগে ময়নাটি অসুস্থ হয়ে মারা যাওয়ার সময় কয়েকদিন খাওয়া-দাওয়া ছেড়ে দিয়েছিলেন তিনি। সেই শোক ভুলে তারা বাব আবারও একটি ময়নার বাচ্চা কিনেছিলেন।

বর্তমানে বাড়িতে থাকা ময়না পাখিটিকেও অনেক কষ্ট করে বুলি শিখিয়েছিলেন মাজেদ।

মাজেদের স্ত্রী জাহানারা জানান, রাত ৩টার দিকে তার স্বামী পাখির খাঁচা বিছানায় নিয়ে বসে পড়তেন। এরপরে সকাল পর্যন্ত চলতো বুলি শেখানোর চেষ্টা। এভাবে মাসের পর মাস চেষ্টা করার পরে ময়নার মুখে বুলি ফোটে। পাখির খাওয়া ও গোসলের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পরে তিনি খাওয়-দাওয়া করতেন।

মাজেদের নাতনি মরিয়ম জানান, তার দাদা মারা যাওয়ার সময় থেকেই ময়না পাখিটি স্তব্ধ হয়ে গেছে। ময়নার বুলিতে অট্টহাসি আর নেই, নেই ‘ময়না’, ‘তোমার নাম কি?’ অথবা ‘আল্লাহু’ নামের বুলি। শুধু তাই না খাবারের প্রতি অনীহা দেখা দিয়েছে পাখিটির। এর আগে পাখিটি কখনোই এমন আচরণ করেনি। হয়তো মনিব বিচ্ছেদেই এমনটি করছে ময়নাটি।