ভোরে নামছে র‌্যাব-পুলিশ-বিজিবি

প্রকাশ:| বুধবার, ২৩ অক্টোবর , ২০১৩ সময় ১০:৪৮ অপরাহ্ণ

৬ প্লাটুন বিজিবি সদস্যও নগরীতে টহল দেবেবিজিবি
সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ করা সত্ত্বেও যে কোনো মূল্যে বিএনপির সমাবেশ করার ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতে আগামীকাল বৃহস্পতিবার ভোর থেকে নগরীতে র‌্যাব-পুলিশের পাশাপাশি বর্ডার গার্ড অব বাংলাদেশ (বিজিবি) মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রশাসন।

আওয়ামী লীগ-বিএনপির পরস্পর বিরোধী সমাবেশকে কেন্দ্র পুলিশ আগামীকাল বৃহস্পতিবার থেকে সব ধরনের সভা-সমাবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। কিন্তু বুধবার নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে যে কোনো মূল্যে সমাবেশ করার ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি। এতে করে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির মারাত্মক অবনতি হওয়ার আশঙ্কায় আগামীকাল বৃহস্পতিবার ভোর ৬টা থেকে মহানগরীতে র‌্যাব-পুলিশের পাশাপাশি বিজিবি মোতায়নের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

পাশাপাশি ২৫ অক্টোবরের পর রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার সুযোগে বিভিন্ন সরকারি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় বেপরোয়াভাবে হামলার আশঙ্কা করছে সিএমপি গোয়েন্দা বিভাগ। তাই নগরবাসীর সার্বিক নিরাপত্তার পাশাপাশি এসব স্থাপনায়ও বাড়তি নিরাপত্তা দেবে পুলিশ। সর্বোচ্চ সর্তক অবস্থায় রাখা হয়েছে থানা ও ফাঁড়ির পুলিশকে।

সিএমপি সূত্র জানায়, নগরীর ১৬টি থানার ওসিদের সর্বোচ্চ সতর্কাবস্থায় থেকে তাদের থানা ও অধীনস্থ ফাঁড়ির পাশাপাশি নিজ নিজ এলাকায় সরকারি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাগুলোকে নজরদারিতে রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। যে কোনো ধরনের সহিংসতা মোকাবেলায় সবধরনের প্রশাসনিক ও মানসিক প্রস্ততি নিতে বলা হয়েছে।‘চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে পুলিশ জনগণের জানমাল রক্ষার্থে সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। সেজন্য বৃহস্পতিবার ভোর ৬টা থেকে নগরীতে ব্যাপকহারে র‌্যাব-পুলিশের পাশাপাশি বিজিবিও মোতায়ন করা হবে।’

সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার থেকে শিল্প পুলিশের দু’শ ফোর্স এবং এপিবিএনর দু’শ ফোর্স মাঠে নামবে। এছাড়া ১২০ জনের ৬ প্লাটুন বিজিবি সদস্যও নগরীতে টহল দেবে। এর বাইরে রিজার্ভ ফোর্স ও থানার পুলিশ মিলিয়ে আরও প্রায় সাড়ে আঠারোশ’ পুলিশ একইসঙ্গে মাঠে নামানো হবে।

উল্লেখ্য, ১৯৭৮ সালের চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) অধ্যাদেশের ক্ষমতাবলে ২৯, ৩০, ৩৩ ও ৩৪ ধারা মোতাবেক সিএমপি কমিশনার মো. শফিকুল ইসলাম বুধবার বিকেলে বৃহস্পতিবার ভোর ৬টা থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য নগরীতে সব ধরনের সভা সমাবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন।