ভোটারাধিকার ফিরিয়ে দিতে হবে-শাহাদাত হোসেন

প্রকাশ:| শুক্রবার, ২৪ জানুয়ারি , ২০১৪ সময় ০৯:২২ অপরাহ্ণ

মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ডা. শাহাদাত হোসেন বলেছেন, ‘৫ জানুয়ারি ভোটারবিহীন নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার দেশের মানুষের গণতন্ত্রকে গলাটিপে হত্যা করেছে। দেশের ৯৫ ভাগ মানুষের ভোটের অধিকার ফিরিয়ে দিতে হবে। ভোটার বিহীন এ নির্বাচনের জনগণের প্রতিনিধিত্ব ছিল না তাই এ সরকার অবৈধ। কারণ দেশের শতকরা ৯৫ ভাগ ভোটার তাদের ভোট দিতে পারে নাই।’

পুলিশের মামলায় উচ্চ আদালত থেকে মুক্তি পাওয়ার পর দলের পক্ষ থেকে নগর বিএনপির কার্যালয়ে এক সংবর্ধনা সভায় এ কথা বলেন তিনি।

ডা. শাহাদাত আরো বলেন, ‘আজকে আমি কোনো সংবর্ধনা নেবো না। কারণ আমাদের অসংখ্য নেতাকর্মী জেলে রয়েছেন এবং মিথ্যা মামলায় বাড়ি ছাড়া হয়েছে। এছাড়া দেশের ৯৫ ভাগ মানুষের ভোটের অধিকার থেকে বঞ্চিত হয়েছে। তাই যে দিন আমার দলের নেতাকর্মীরা মুক্তি পাবে, মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করা হবে এবং দেশের ৯৫ ভাগ মানুষের ভোটের অধিকার ফিরিয়ে দেয়া হবে সেদিন আমি আমার নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে সংবর্ধনা গ্রহণ করব। তাই আজ তাৎক্ষণিকভাবে নেতাকর্মীদের মুক্তি, মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার এবং সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতনের প্রতিবাদে সমাবেশ করার ঘোষণা দিচ্ছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘সংখ্যালঘুদের ওপর হামলার ঘটনা বিচার বিভাগীয় তদন্তের মাধ্যমে প্রকৃত দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালে সংখ্যালঘুদের ওপর এমন হামলা হয় নাই। আমাদের সরকারের আমলে রোজা পূজা এক সাথে হয়েছে।’

সভাপতির বক্তব্যে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সহসভাপতি আবু সুফিয়ান বলেন, ‘মামলা, হামলা, জুলুম, নির্যাতন উপেক্ষা করে বিএনপির নেতাকর্মীরা রাজপথে আছে। আমাদের দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত নেতাকর্মীরা রাজপথ থেকে সরে যাবে না।’

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সহসভাপতি আবু সুফিয়ানের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- বিএনপি নেতা মো. আলী, ইঞ্জিনিয়ার আবু সুফিয়ান, জাহেদুল করিম কচি, আনোয়ার হোসেন লিপু, ইকবাল চৌধুরী, ফাতেমা বাদশা, মনোয়ারা বেগম মনি, জেলী চৌধুরী, ইস্কান্দর মির্জা, মাইমুল ইসলাম হুমায়ুন, জিএম আইয়ুব খান, এসএসজি আকবর, আবদুল মান্নান, ডা. কামরুল নামার দস্তগীর, শওকত আজম খাজা, এস.এম সালাউদ্দিন, কামরুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা সানোয়ার আলী সানু, নবাব খান, মহানগর যুবদলের সহ-সভাপতি ইসমাইল বাবুল, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক মো. শাহেদ, বিএনপি নেতা মো. সালাউদ্দিন, মো. শাহাব উদ্দিন, আবদুল বাতেম, এস.এম.জি আকবর, ইসমাইল বালি, এমআই চৌধুরী মামুন, মো. সেলিম, মো. বখতিয়ার, জামাল আহমদ, হাবিব, মো. বেলাল, মো. আসলাম, এস.এম. মফিজ উল্লাহ, ইব্রাহিম বাচ্চু, সালাউদ্দিন কাউছার লাভু, আমিন মাহমুদ, ইমরান উদ্দিন, মহানগর সাংগঠনিক সম্পাদক ইকবাল হোসেন, ছাত্রদল নেতা মাইনুদ্দীন শহীদ, জসীম উদ্দিন চৌধুরী, ফজলুল হক সুমন, জিয়াউর রহমান জিয়া, মোশারফ হোসেন, মোস্তাকিন মাহাম্মুদ, গুলজার হোসেন প্রমুখ।