ভোগ্যপণ্যের দাম বৃদ্ধির কারসাজিতে মহিউদ্দিন চৌধুরীর উদ্বেগ

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ৪ মে , ২০১৭ সময় ০৯:০৯ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব এ.বি.এম মহিউদ্দিন চৌধুরী মাহে রমজানের এক মাস আগে থেকেই নিত্য প্রয়োজনীয় ভোগ্যপণ্যের দফায় দফায় দাম বৃদ্ধিতে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। আজ এক বিবৃতিতে তিনি বলেছেন, অতি মুনাফালোভী ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের গোপন কারসাজিতে চাল, ডাল, ছোলা, ভোজ্য তেল, চিনি সহ নিত্য প্রয়োজনীয় ভোগ্যপণ্যের দাম বাড়ানোর ঘৃণ্য তৎপরতা দৃশ্যমান হচ্ছে। তারা সরবরাহের অপ্রতুলতার কথা বলে এই দাম বৃদ্ধির অসৎ ও অসাধু পায়তারা চালাচ্ছে। তিনি আরো বলেন, অধিকাংশ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের সরবরাহের ক্ষেত্রে কোন ধরনের অপ্রতুলতা নেই। হাওর অঞ্চলের প্লাবনে ফসল হানির কথা বলে তারা চাল সরবরাহের অপ্রতুলতার দোহাই দিচ্ছে। অথচ হাওর অঞ্চলের ধান, প্রাকৃতির বিপর্যয় না ঘটলে আরও দুমাস পর বাজারে আসতো। কিন্তু একে অজুহাত হিসেবে দাড় করিয়ে চালের মূল্যবৃদ্ধির পক্ষে সাফায় গাইছে। সরকারিভাবে চালের পর্যাপ্ত মওজুদ রয়েছে। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, এই ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটগুলোর উপর চট্টগ্রাম চেম্বার অব কর্মাস এন্ড ইন্ড্রাষ্ট্রিজ, চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন কর্মাস এন্ড ইন্ড্রাষ্ট্রিজ, সরকারি সংস্থা ও প্রশাসনের কোন নিয়ন্ত্রণ নেই। প্রায় প্রতি বছর রমজান মাস এলেই অতি মুনাফালোভী অসৎ ব্যবসায়ীদের মূল্যবৃদ্ধির প্রবণতা লক্ষ্য করা যায়। সরকারিভাবে বারবার তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলা হলেও তা কখনো কার্যকর হয়নি। তিনি দাবী করেন, ব্যবসায়ীদের গুদামগুলোতে নিত্য প্রয়োজনীয় ভোগ্যপণ্যের কতটুকু পরিমাণ মওজুদ রয়েছে এবং প্রতিদিন পরিবহনে করে খাতুনগঞ্জ, কোরবাণীগঞ্জ ও আছাদগঞ্জে কি পরিমাণ ভোগ্যপণ্য ঢুকছে তার ওপর সরকারিভাবে নজরদারি এখন থেকেই শুরু করতে হবে। এ জন্য জেলা প্রশাসক এর নেতৃত্বে সিএমপি কমিশনার, এবং সরকারি সংস্থার নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটদের নিয়ে একটি উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন মনিটরিং ফোর্স গঠন করতে হবে। এছাড়া বিশেষ অভিযানের মধ্য দিয়ে যে সমস্ত গুদামে নিত্য প্রয়োজনীয় ভোগ্য মজুদ করে রাখা হবে সেগুলো জব্দ করে তা ভোক্তা সাধারণের মধ্যে ন্যয্যামূল্যে বিতরণ করতে হবে। তিনি আরো দাবী করেন, রমজান মাসে নিত্য প্রয়োজনীয় মূল্যবৃদ্ধির হোতাদের নিভৃত করার জন্য প্রচলিত আইন যথেষ্ট নয়। শুধুমাত্র জরিমানা ও ২/১ মাসের জেল দিয়ে এই প্রবণতা দূর করা যাবে না। তাই এদের বিরুদ্ধে কঠোর আইন প্রণয়ন ও তা প্রয়োগ করার জন্য মাননীয় আইনমন্ত্রী ও বাণিজ্যমন্ত্রী প্রতি আহ্বান জানান।


আরোও সংবাদ