ভূমিকম্পে সারাদেশে নিহত ৫

প্রকাশ:| শনিবার, ২৫ এপ্রিল , ২০১৫ সময় ১০:৩১ অপরাহ্ণ

বেশ উচ্চ মাত্রার ভূমিকম্পে কেঁপে উঠেছে পুরো দেশ। কোথাও দু’দফা বা তিন দফায় আবার কোথাও দফায় দফায় দুলে উঠেছে বাড়িঘর দালানকোটাসহ সবকিছু। ভয়ে আতঙ্কে লোকজন বাড়িঘর ছেড়ে নেমে এসেছে রাস্তায়, ফাঁকা স্থানে। তাড়াহুড়ো করে নামতে গিয়ে আহত হয়েছে শত শত মানুষ। অনেক স্থানে দেয়াল বা ছাদ ধসে কিংবা ভূমিকম্পের আতঙ্কে দিশাহারা হয়ে মারা গেছে নারীসহ অন্তত পাঁচজন।

ভূমিকম্পে সারাদেশে নিহত ৫এর মধ্যে বগুড়ার দুঁপচাচিয়ায় দেয়াল ধসে গৃহবধূ, ময়মনসিংহের ধোবাউড়া উপজেলায় স্কুলের ছাদ ধসে শিক্ষার্থী, পাবনায় রাস্তায় পড়ে এক শিক্ষিকা, লক্ষ্মীপরের রামগঞ্জ উপজেলায় এক কৃষক ও টাঙ্গাইলে মির্জাপুর উপজেলায় এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে।

বগুড়া: দুপুরে দুপচাঁচিয়া উপজেলার উনাহত সিংড়া গ্রামের বয়েজ উদ্দিনের স্ত্রী মোর্শেদা বেগম (৫৫) গোয়াল ঘরে কাজ করার সময় ভূমিকম্প শুরু হয়। এসময় গোয়াল ঘরের মাটির দেয়াল ধসে পড়ে। এতে দেয়াল চাপা পড়ে তিনি গুরুতর আহত হন। পরে তাকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হলে দুপুর ২টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

পাবনা: দুপুর সোয়া ১২টার দিকে বাড়ির পাশে সড়কে হাঁটছিলেন অবসরপ্রাপ্ত স্কুল শিক্ষিকা ও পাবনা পৌর মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী রোকেয়া খানম ইতি (৬৫)। এসময় ভূকম্পন শুরু হলে তিনি আতঙ্কিত হয়ে রাস্তায় পড়ে আঘাত পান। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ময়মনসিংহ: দুপুরে ভূকম্পনের সময় ধোবাউড়া উপজেলার দক্ষিণেশ্বরের কালিকাবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনের ছাদ ধসে প্রধান শিক্ষকসহ ১০ শিক্ষার্থী আহত হয়। এর মধ্যে এক শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয় বলে নিশ্চিত করেন ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসক মুস্তাকীম বিল্লাহ ফারুকী।

লক্ষ্মীপুর: দুপুরে রামগঞ্জ উপজেলার ভাটরা ইউনিয়নের দক্ষিণ ভাটরা গ্রামের কালু মিয়া (৫০) ধান ক্ষেতে কাজ করছিলেন। হঠাৎ ভূমিকম্প শুরু হলে আতঙ্কে মাঠ থেকে দৌড়ে বাড়ি যাওয়ার পথে তিনি মারা যান। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ভাটরা ইউপি সদস্য খোরশেদ আলম।

টাঙ্গাইল: দুপুরে পরিনা আক্তার (২২) তার দেড় বছরের শিশুপুত্রকে নিয়ে মির্জাপুর উপজেলার সৈয়দপুর এলাকায় আধাপাকা বাড়িতে ছিলেন। ভূমিকম্প শুরু হলে তিনি আতঙ্কে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। এ সময় স্থানীয়রা তাকে কুমুদিনী হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন।

পরিনা আক্তার কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর উপজেলার সাহেবের আলগা গ্রামের সুকুমুদ্দিন মিয়ার স্ত্রী। তিনি মির্জাপুর গোড়াই শিল্পাঞ্চলের সৈয়দপুর এলাকায় স্বপন মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থাকতেন।