ভুয়া শিশু বিশেষজ্ঞ আটক করে দুই বছরের কারাদণ্ড

প্রকাশ:| বুধবার, ১২ আগস্ট , ২০১৫ সময় ১০:১০ অপরাহ্ণ

বুধবার ভ্রাম্যমান আদালত জাহাঙ্গীর আলম নামে এ ভুয়া চিকিৎসককে আটক করে দুই বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন। আদালত পরিচালনা করেন রাউজান উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) দীপক কুমার রায়।

মেডিক্যাল কলেজে দ্বিতীয় বর্ষ পর্যন্ত পড়েছেন। এরপর বনে গেছেন শিশু বিশেষজ্ঞ। রাউজান উপজেলার পথেরহাটে চেম্বার খুলে দেখতেন রোগীও।

শিশু বিশেষজ্ঞ পরিচয় দিয়ে রাউজানের নোয়াপাড়া পথেরহাটে রোগী দেখতেন জাহাঙ্গীর আলম। সাইনবোর্ড ও ভিজিটিং কার্ডে নামের পাশে এমবিবিএসসহ বিভিন্ন ডিগ্রি উল্লেখ রয়েছে। বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের নিবন্ধন নম্বরও (৩৩৮৪৩) ব্যবহার করতেন। তবে তা অপর এক চিকিৎসকের। এমবিবিএসের সার্টিফিকেটও আদালতের কাছে উপস্থাপন করেন। পরে যা জাল প্রমাণিত হয়।

রাউজান উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) দীপক কুমার রায় বলেন, অভিযান চালানোর সময় সন্দেহ হলে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। একেক সময় একেক তথ্য দেন তিনি। কখনো ফেনী কখনো চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ থেকে পাশ করেছে বলে দাবি করেন। একপর্যায়ে ফেনী মেডিক্যাল কলেজে দ্বিতীয় বর্ষ পর্যন্ত পড়েছে বলে স্বীকার করে নেন। পরে আর পড়ালেখা শেষ করেননি। একপর্যায়ে চিকিৎসা দেওয়া শুরু করেন। তাকে আটক করে দুই বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। কারাদণ্ডের পর তাকে কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।