ভুল চিকিৎসা ও অবহেলায় রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ

mirza imtiaz প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ১৩ সেপ্টেম্বর , ২০১৮ সময় ০১:৫৭ পূর্বাহ্ণ

বেসরকারি হাসপাতালগুলো থেকে একের পর এক ভুল চিকিৎসা ও অবহেলায় রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ আসছে।গত কয়েক মাসে এ রকম ৬টি ঘটনা ঘটেছে।এরমধ্যে শিশুসহ চারজনের মৃত্যু হয়। দু’জন হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন।

বুধবার (১২ সেপ্টেম্বর) বিকেলে নগরের পার্কভিউ হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় মো. সাকের (৪০) নামে একজনের মৃত্যুর অভিযোগ করেন স্বজনরা।যিনি মাথাব্যথা নিয়ে ৮ সেপ্টেম্বর (শনিবার) ওই হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন।

সাকেরের খালাত ভাই আসকাফ বাংলানিউজকে জানান, প্রায় সময় মাথাব্যথা ছিল সাকেরের।৮ সেপ্টেম্বর (শনিবার) মাথাব্যথা উঠলে ভর্তি করানো হয় পার্কভিউ হাসপাতালে। কিন্তু ভর্তি হওয়ার পর শুধু ঘুমের ওষুধ দিয়ে চিকিৎসাসেবা দেওয়া হয়েছে।অন্য কোনো ওষুধও দেয়নি। ঘুমের ওষুধের কারণে তার মৃত্যু হয়।

পাঁচলাইশ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ওয়ালি উদ্দিন আকবর বলেন, পার্কভিউ হাসপাতালে এক রোগীর মৃত্যুর ঘটনায় ভুক্তভোগী পরিবারের স্বজনরা উত্তেজিত হয়ে ওঠেন। পরে খবর পেয়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। স্বজনরা চিকিৎসকের অবহেলায় রোগীর মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ করলেও এ ঘটনায় থানায় কেউ লিখিতভাবে অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ ব্যাপারে জানতে পার্কভিউ হাসপাতালের মহাব্যবস্থাপক জিয়াউর রহমানের সঙ্গে বারবার যোগাযোগ করলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

তবে ওই হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. এটিএম রেজাউল করিম দাবি করেন সাকেরের মৃত্যুর ঘটনায় চিকিৎসকের কোনো অবহেলা কিংবা গাফিলতি নেই।

এর আগে ২৯ জুন সমকালের চট্টগ্রাম ব্যুরোর স্টাফ রিপোর্টার রুবেল খানের আড়াই বছর বয়সী মেয়ে রাইফা খান ম্যাক্স হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। রাইফার মৃত্যুর পর তার পরিবার ও সাংবাদিকরা ভুল চিকিৎসায় মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ করেন।

পরে চট্টগ্রাম সিভিল সার্জনের নেতৃত্বাধীন তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে চিকিৎসকদের অবহেলায় শিশু রাইফার মৃত্যু হয়েছে বলে উঠে আসে। এ ঘটনায় চকবাজার থানায় মামলাও করেন রুবেল খান।পরে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম ডা. বিধান রায় চৌধুরী, ডা. দেবাশীষ সেনগুপ্ত ও ডা. শুভ্র দেবের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন।

গত ১৪ জুন হাটহাজারী পৌরসভার আলিফ হাসপাতালে চিকিৎসকের অবহেলায় এক নবজাতকের মৃত্যু হয়।চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব মেরিন সায়েন্সেস অ্যান্ড ফিশারিজের সহকারী অধ্যাপক শহিদুল আলম শাহীন সংবাদ সম্মেলন করে এমন অভিযোগ করেছিলেন।

মে মাসের দিকে পাঁচলাইশ থানার ফরটিস ইনস্টিটিউটেও ভুল চিকিৎসায় একজনের মৃত্যুর অভিযোগ ওঠে। এ ছাড়া ৪ সেপ্টেম্বর পিপলস হাসপাতালে আবু তালেব লিটন ও ৩০ জুন ম্যাক্স হাসপাতালে পুলিশের স্পেশাল রায়ট ফোর্সের (এসআরএফ) নায়েক জাহাঙ্গীর ভুল অপারেশনের শিকার হন।


আরোও সংবাদ