ভাড়া বাড়ানোর সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে জেলা প্রশাসন

প্রকাশ:| বুধবার, ২২ মার্চ , ২০১৭ সময় ১১:৪১ অপরাহ্ণ

সংস্কৃতিকর্মীদের ক্ষোভের মুখে ডিসি হিলের মুক্তমঞ্চের ভাড়া বাড়ানোর সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে জেলা প্রশাসন। বুধবার (২২ মার্চ) বিকেলে চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মো.সামসুল আরেফিন এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

জানতে চাইলে জেলা প্রশাসক বাংলানিউজকে বলেন, সবদিক বিবেচনা করে আগের মতো ডিসি হিলের ভাড়া ২ হাজার টাকা নেওয়ার সিদ্ধান্ত বহাল করা হয়েছে।

আগামী ১ এপ্রিল থেকে ডিসি হিলে (নজরুল স্কয়ার) যে কোনো অনুষ্ঠান আয়োজনের জন্য ১০ হাজার টাকা হারে ভাড়া নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল জেলা প্রশাসন।

দুই হাজার টাকা থেকে পাঁচগুণ বাড়িয়ে ১০ হাজার টাকা ভাড়া করার সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে জেলা প্রশাসন চট্টগ্রামের সাংস্কৃতিক সংগঠন ও সংস্কৃতিকর্মীদের সঙ্গে কোন আলোচনা করেনি।

জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ভাড়া বৃদ্ধির যুক্তি তুলে ধরে বলা হয়েছিল, অনুষ্ঠান শেষে ডিসি হিলে ময়লা-আবর্জনার যে স্তূপ হয়, সেটা পরিষ্কার করতে অনেক টাকা খরচ হয়। আবার ২ হাজার টাকা ভাড়া নিয়ে বিভিন্ন সংগঠন ডিসি হিলে ২০ থেকে ৩০টি দোকান বসিয়ে দেয়। তাদের কাছ থেকে ৫ থেকে ১০ হাজার টাকা করে দোকান ভাড়া আদায় করা হয়।

হঠাৎ করে ভাড়া বাড়ানোর ঘোষণা নিয়ে চট্টগ্রামের সংস্কৃতিকর্মীদের মধ্যে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়। বিভিন্ন গণমাধ্যমের প্রকাশিত সংবাদেও বিষয়টি উঠে আসে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও ব্যাপক প্রতিক্রিয়া হয়।

এর প্রেক্ষিতে চট্টগ্রামের শীর্ষস্থানীয় সাংস্কৃতিক সংগঠকদের বুধবার বিকেলে বৈঠকে ডাকেন জেলা প্রশাসক। মঙ্গলবার রাতে ফোন করে কয়েকজন সংস্কৃতিকর্মীকে বৈঠকে আসার অনুরোধ করা হয়।

রাত ১০টার দিকে ফোন করা হয় প্রমা আবৃত্তি সংগঠনের সভাপতি রাশেদ হাসানকে। তিনি বলেন, রাত ১০টায় আমাকে ফোন করে বলা হচ্ছে ডিসি সাহেবের সঙ্গে মিটিং। আমি তখনই অপারগতা জানিয়েছি। বুধবার বিকেলে আমরা সংস্কৃতিকর্মীরা একুশে পদকজয়ী কবি ও সাংবাদিক আবুল মোমেনকে সংবর্ধনা দিয়েছি। সেটা ফেলে আমাদের পক্ষে জেলা প্রশাসনে বৈঠকে যাওয়া সম্ভব নয়।

উদীচী চট্টগ্রাম জেলা সংসদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপিকা শীলা দাশগুপ্তাকে বুধবার সকাল ১১টার দিকে ফোন করে বলা হয় বিকেল ৪টায় বৈঠকে যেতে। তিনিও অপারগতা জানিয়েছিলেন বলে জানান।

চট্টগ্রামে যেসব সাংষ্কৃতিক সংগঠন সক্রিয়ভাবে কর্মকান্ড পালন করে তাদের অধিকাংশই শেষ পর্যন্ত বৈঠকে যাননি। এই অবস্থায় জেলা প্রশাসক ভাড়া বাড়ানোর সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেন বলে সূত্র জানিয়েছে।

জানতে চাইলে উদীচী চট্টগ্রাম জেলা সংসদের সহ সভাপতি ডা.চন্দন দাশ বলেন, সংস্কৃতিকর্মীদের ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়ার মুখে জেলা প্রশাসন তাদের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করতে বাধ্য হয়েছে। ডিসি হিলের জন্য কোন ভাড়াই আদায় করা উচিৎ নয়। এখানে তো কোন ফ্যাসিলিটি দেয়া হচ্ছে না। এরপরও ভাড়া আদায় করা হয় কোন যুক্তিতে।

ডিসি হিলের ভাড়া না বাড়ানোর সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে তির্যক নাট্যদল প্রধান আহমেদ ইকবাল হায়দার জানান, শুরু থেকেই বলেছি, সংস্কৃতিকর্মীদের তো লাখ টাকা ইনকাম নেই। ভাড়া বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়াটাই ভুল ছিল। তবে জেলা প্রশাসন ভুল বুঝতে পেরে ভাড়া বাড়ানোর সিদ্ধান্ত থেকে যে সরে এসেছে, সেজন্য ধন্যবাদ জানাই।


আরোও সংবাদ