‘ভালই টানাটানির মধ্যে আছি’রিচি সোলায়মান

প্রকাশ:| বুধবার, ২৯ জানুয়ারি , ২০১৪ সময় ০৬:৩২ অপরাহ্ণ

রিচি সোলায়মান। রিচি সোলায়মানএখন সংসার সন্তান নিয়েই বেশি মনোযোগী। তাই তো ফেসবুকে নিজের ওয়ালজুড়ে স্বামী রাশেক আর পুত্র রায়ানের সঙ্গে ‘হ্যাপি ফ্যামিলি’ ছবি। মাঝখানে বেজায় রটনা রটেছে মিডিয়াজুড়ে। রিচির আমেরিকা প্রবাসী সংসারে নাকি ছাইচাপা আগুন লেগেছে! মূলত এমন রটনার প্রতিবাদ হিসেবে গেল ছয় মাসে রিচির ফেসবুকে ভাসছিল স্বামী-সন্তান-সংসারের সুখী সুখী অসংখ্য ঘনিষ্ঠ ছবি। রিচি বলেন, গুজব-রটনায় কান দিতে নেই। এমন অনেক গুজবের শিকার হয়েছি এক জীবনে। প্রথমত মিডিয়ার লোকজনের প্রতি সবার আগ্রহ একটু বেশি। তাই মিডিয়ার লোকজন কোন ভুল করলে সেটাই আগে সবার চোখে পড়ে। সাধারণ মানুষের মধ্যে কি এই ধরনের সমস্যা হয় না? আবার এটাও ঠিক, বাংলাদেশে ডিভোর্স প্রবণতা বেড়ে গেছে। আগে আমাদের দাদী নানীরা অনেক কিছু ছাড় দিয়ে সংসার করতো।
বর্তমান জেনারেশনের মেয়েরা এই ছাড় দিতে চায় না। আর তখনই ডিভোর্সটা অবধারিত হয়। এখানে দু’জনকেই ছাড় দিলে সংসারটা ভালভাবে টিকে থাকে। যেটা আমি এবং আমার স্বামী দু’জনই করার চেষ্টা করি। এদিকে সংসার কেন্দ্রিক এই রটনা থেকে এরই মধ্যে অব্যাহতি পেয়েছেন রিচি সোলায়মান। ভালই ওড়াউড়ি করছেন আমেরিকা টু বাংলাদেশ। দেশে ফিরছেন অভিনয়ের টানে। আমেরিকা ফিরে যাচ্ছেন
স্বামী-সংসারের টানে। রিচি বলেন, ভালই টানাটানির মধ্যে আছি। তবে দেশে অভিনয়ের পাশাপাশি আরও একটি জরুরি কাজে বারবার ছুটে আসি। ‘সোলায়মান ট্রাস্ট’ নামে নীলফামারীতে বাবার করা একটা প্রতিষ্ঠান আছে। বর্তমানে অভিনয়ের বাইরে সেটাই মূলত দেখাশোনা করছি। আর ভবিষ্যতে আরও বড় পরিসরে এর কার্যক্রম পরিচালনা করতে চাই। যেন অনেক অসহায় মানুষকে সাহায্য করতে পারি এ প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে। রিচি সোলায়মান নতুন বছরে এসে সংসারের পাশাপাশি অভিনয় জীবনটাকে নতুন করে গোছানোর পরিকল্পনা নিয়েছেন। বলেছেন, বরাবরই আমি কম কাজ করে আসছি। সমপ্রতি আরও কম করতে হচ্ছে। তবে এই সময়ে এসে আমি মানসিকভাবে প্রস্তুতি নিচ্ছি চলচ্চিত্রে কাজ করার। কারণ, এখন অনেক ধরনের ছবি নির্মাণ হচ্ছে। যেখান থেকে আমি নিজের মতো কিছু ছবিতে কাজ করতে চাই। আশা করছি শিগগিরই এমন কোন সুসংবাদ দিতে পারবো। জয়া-তিশাদের পর চলচ্চিত্র নিয়ে ভালই ভাবছেন রিচি সোলায়মান। তবে তার আগেই চলতি মাসে রিচি শুটিং করেছেন বেশ কিছু উল্লেখযোগ্য একক ও ধারাবাহিক নাটকে। এগুলো হলো চয়নিকা চৌধুরীর পরিচালনায় ‘সুন্দরের পাশে’ এবং ‘রূপকথার বেহালা’ আর গোলাম সোহরাব
দোদুলের ‘আমদপুর পাঠশালা’। রিচির ভাষায়, সংসার কেন্দ্রিক শত ব্যস্ততার মাঝেও এ বছর দর্শকদের এমন কিছু দেয়ার চেষ্টা করবো, যা তারা আগে কখনও পায়নি আমার কাছ থেকে


আরোও সংবাদ