ভারত মহাসগরে ভাসমান বস্তু দুটি মালয়েশীয় বিমানটি অংশ বলে ধারণা

প্রকাশ:| শুক্রবার, ২১ মার্চ , ২০১৪ সময় ০২:৫৫ অপরাহ্ণ

দক্ষিণ ভারত মহাসগরে ভাসমান বস্তু দুটি মালয়েশীয় বিমানটি অংশ বলে ধারণা করছে অধিকাংশ উদ্ধারকারী দল। তবে প্রবল বৃষ্টি, বাতাস ও বজ্রপাতের কারণে ওই এলাকায় অনুসন্ধান কাজ ব্যাহত হচ্ছে বলে জানিয়েছে অস্ট্রেলীয় কতৃপক্ষ।

এর আগে বৃহস্পতিবার অস্ট্রেলীয় প্রধানমন্ত্রী টনি অ্যাবোট আনুষ্ঠানিকভাবে জানান যে, তাদের স্যাটেলাইট চিত্রে দক্ষিণ ভারত মহাসাগারের দুর্গম অঞ্চলে দুটি ভাসমান বস্তু ধরা পড়েছে। যার একটি প্রায় ২৪ মিটার লম্বা। ধারণা করা হচ্ছে এটি নিখোঁজ মালয়েশীয় বিমানটির ধ্বংসাবশেষ।

বিমান উড্ডয়ন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গত ১৩ দিনে মালয়েশীয় বিমানটির চিহ্ন খোঁজা যত তথ্য পাওয়া গেছে, এটিই তার মধ্যে সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য।
যদিও জন উইলিয়াম নামে এবিসি নিউজের এক সাংবাদিক টুইট করে জানিয়েছেন, পি-৮ মডেলের একটি মার্কিন বিমানে করে ধ্বংসাবশেষ স্থলের সব জায়গা ঘুরে এসেছেন তিনি। সেখানে কেবল কিছু ডলফিনের ঝাঁক ছাড়া আর কিছুই দেখা যায়নি।

অস্ট্রেলীয় অনুসন্ধানকারীরা টুইট করে জানিয়েছেন, ওই অঞ্চলের আবহাওয়া খারাপ থাকায় ধ্বংসাবশেষের জায়গায় পৌঁছানো যাচ্ছে না। তবে ঘটনাস্থলে রয়েছে তাদের ২৫টি বিমান, ১৮ টি সামরিক জাহাজ ও ৬টি হেলিকপ্টার কাজ করছে। এ বিষয়ে শুক্রবার অস্ট্রেলীয় প্রধানমন্ত্রী টনি অ্যাবোট বলেন, ‘অবস্থা খুবই ঝুঁকিপূর্ণ ও চ্যালেঞ্জিং। তারপরও আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি।’

এদিকে অস্ট্রেলিয়ার অনুরোধে নরওয়ে প্রশাসন মাদাগাসকর থেকে মেলবোর্নের দিকে রওনা করেছে একটি জাহাজ। এছাড়া ব্রিটিশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী এইচএমএস ইকো উপকূলবর্তী সার্ভে জাহাজ পাঠাচ্ছে দক্ষিণ করিডরের দিকে।

পুরো তল্লাসি অভিযান সরাসরি দেখানো হচ্ছে বেশ কিছু অস্ট্রেলিয়ান চ্যানেলে।

উল্লেখ্য, গত ৮ মার্চ মধ্যরাতে ২৩৯ জন যাত্রী ও ক্রু নিয়ে কুয়ালালামপুর থেকে বেইজিং যাওয়ার পথে মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট এমএইচ ৩৭০ বিমানটি রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হয়।