ভারতকে ‘হিন্দু রাষ্ট্র’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন আরএসএসএর প্রধান

প্রকাশ:| রবিবার, ২১ ডিসেম্বর , ২০১৪ সময় ১০:২৮ অপরাহ্ণ

ভারতকে ‘হিন্দু রাষ্ট্র’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন দেশটির ক্ষমতাসীন দল বিজেপি’র আদর্শিক সংগঠন আরএসএস-এর প্রধান মোহন ভগবত। এছাড়া হিন্দুরা বাংলাদেশ ও পাকিস্তান অপরাধের শিকার দাবি করে তিনি বলেন, আমাদের ভগবান বলেছেন, ১০০ বারের পর তুমি আর কোনো অপরাধ ক্ষমা করো না। এছাড়া অতীতে হিন্দুরা যা হারিয়েছিল, তা আরএসএস ‘ফিরিয়ে’ আনার চেষ্টা করবে বলে জানান তিনি। ভারতের যেসব দল ধর্মান্তরের বিরোধীতা করে, তাদেরকে পার্লামেন্টে জোরপূর্বক ধর্মান্তরের বিরুদ্ধে পার্লামেন্টে বিল উত্থাপনের চ্যালেঞ্জও জানিয়েছেন তিনি। পশ্চিমবঙ্গে বিশ্ব হিন্দু পরিষদের প্রথম জনসমাবেশে ভাষণ দেয়ার সময় এসব বলেন ভগবত। এ খবর দিয়েছে টাইমস অফ ইন্ডিয়া। ভগবত বলেন, ভয় পাওয়ার কারণ নেই। আমরা আমদের নিজ দেশে রয়েছি। আমরা এখানে অনাহুত আগন্তুক নই, অনুপ্রবেশকারীও নই। এটা আমাদের নিজেদের রাষ্ট্র, আমাদের ‘হিন্দু রাষ্ট্র’। আমরা অতীতে যা হারিয়েছি, তা ফিরিয়ে আনতে আমরা চেষ্টা করবো। হিন্দুদের উত্থানে কারো ভয় পাওয়ার কিছু নেই। যারা হিন্দুদের উত্থানের বিরুদ্ধে কথা বলে তারা স্বার্থপর ও কায়েমী স্বার্থবাদী। আর তারা যদি বাধা দেয়, তাহলে লড়াই হবে। অন্য ধর্ম থেকে হিন্দু ধর্মে জোরপূর্বক ধর্মান্তরের পক্ষে কথা বললেও, হিন্দুদের অন্য ধর্মে ধর্মান্তরিত করানোর চেষ্টা করাও কারো উচিত নয় বলে হুঁশিয়ারি করে দেন তিনি। বিশ্ব হিন্দু পরিষদের নেতা তোগাদিয়া বলেন, একটি গরু জবাই হলেও তা হিন্দুদের জন্য অবমাননাকর। তিনি বলেন, আমরা গরুর মূত্র ও গোবর দিয়ে বানানো শ্যা¤পু ও ফেসপ্যাক বিক্রি করে ১৫ কোটি রূপি আয় করেছি। সবার উদ্দেশ্যে তিনি প্রশ্ন রাখেন, এ শ্যা¤পু ও ফেস প্যাক থেকে অর্জিত অর্থ ১৫ হাজার কোটি রুপিতে দাঁড়াবে কিনা। বিশাল জনসমাবেশ তাকে হতাশ করেনি। সমস্বরে সায় দিয়েছে তার কথায়। এমন একটি সময় বিজেপি-র নীতিনির্ধারণে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখা নেতারা এসব মন্তব্য করছেন, যখন আগ্রায় বেশ কয়েকটি মুসলিম পরিবারকে জোরপূর্বক হিন্দু ধর্মে ধর্মান্তরিত করা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বিবৃতি দাবি করছে দেশটির বিরোধী দলগুলো। এ অবস্থায় তাদের এসব মন্তব্য গুরুত্বপূর্ন বলে ভাবছেন বিশ্লেষকরা।