মুরাদপুরে ব্যাংকের নৈশ্য প্রহরীকে গলাকেটে হত্যা

প্রকাশ:| শুক্রবার, ৮ মে , ২০১৫ সময় ১০:৩৪ অপরাহ্ণ

মুরাদপুর এলাকায় আল-আরাফা ইসলামী ব্যাংকের নৈশ প্রহরীকে গলা কেটে হত্যা করেছে দুবৃর্ত্তরা।
মুরাদপুরে ব্যাংকের নৈশ্য প্রহরীকে গলাকেটে হত্যা
শুক্রবার রাত ১০টার দিকে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত ইব্রাহীম (৩৪) ব্যাংকটির নিজস্ব প্রহরী ছিলেন। তিনি চট্টগ্রামের চন্দনাইশের বাসিন্দা।

নিহতের স্ত্রী জানায়, বৃহস্পতিবার রাত ১০টা থেকে শুক্রবার ভোর ৬টা পর্যন্ত ইব্রাহীমের ডিউটি ছিল। কিন্তু ডিউটি শেষে শুক্রবার সকালে না ফেরায় ফোনে তার সাথে যোগাযোগ করেও সংযোগ পাওয়া যায়নি। এরপর সন্ধ্যায় ফোনে ব্যাংক ম্যানেজার সালামত উল্লাকে বিষয়টি জানানো হয়। পরে পুলিশ ও ভবনের মালিককে নিয়ে ম্যানেজার রাত ৯টার দিকে ব্যাংকে এসে দেখেন গলা কাটা অবস্থায় ইব্রাহীমের লাশ মেঝেতে পড়ে আছে। আর ব্যাংকের পেছনের জানালার গ্রিল কাটা।

সিসি ক্যামেরা পরৃয়বেক্ষণ করে পুলিশ কর্মকর্তারা জানায়, তিন তলা ভবনের ২য় তলায় অবস্থিত ব্যাংকটিতে বৃহস্পতিবার রাত ২টা ৩০ মিনিটে পেছনের জানালার গ্রিল কেটে প্রবেশ করে ২৫-৩০ বছর বয়সী তিন ডাকাত। এরপর তারা ব্যাংকের সামনের রুমের সোফায় ঘুমন্ত নৈশ প্রহরী ইব্রাহিমের মাথায় রড দিয়ে আঘাত করে। এসময় প্রহরী ইব্রাহিম উঠে দাঁড়ানোর চেষ্টা করলে তাকে দুইজন ডাকাত চেপে ধরে এবং অন্য একজন গলা কেটে জবাই করে। পরে তারা ব্যাংকের ভল্ট ভাঙার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়। এরপর রাত ৩টার দিকে ব্যাংক ত্যাগ করে প্যান্ট ও শার্ট-গেঞ্জি পরিহিত ডাকাতরা।

এদিকে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করতে এসে নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (ডিবি) এস এম তানভীর আরাফাত বলেন, ‘ব্যাংকটির সিসি ক্যামেরা পরৃয়বেক্ষণ করে দেখা গেছে, ৩ জনের একটি ডাকাত দল বৃহস্পতিবার রাতে ব্যাংকটিতে হানা দেয়। এসময় ব্যাংকের নৈশ প্রহরীকে জবাই করে হত্যা করে ভল্ট ভাঙার চেষ্টা করে। তবে অনভিজ্ঞ হওয়ায় তারা সফল হয়নি।’

তিনি আরো বলেন, ‘ডাকাতরা ৩০ মিনিট ব্যাংকের ভেতরে অবস্থান নেয়। এ ঘটনায় ব্যাংকের ভেতর থেকে একটি ছোরা, বটি ও রড উদ্ধার করা হয়েছে। তবে প্রাথমিকভাবে ব্যাংকের কিছু খোয়া যায়নি মনে হচ্ছে।বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।’

ঘটনাস্থলে থাকা আল-আরাফা ইসলামী ব্যাংকের ম্যানেজার সালামত উল্লা বলেন, ‘বৃহস্পতিবার রাতে নৈশ প্রহরী ইব্রাহিমের ডিউটি ছিল। শুক্রবার সকালে বাড়িতে না ফেরায় তার স্ত্রীর ফোন পেয়ে রাতে পুলিশ নিয়ে ব্যাংকে এসে দেখি মেঝেতে লাশ পড়ে আছে। ব্যাংকের কিছু খোয়া যায়নি মনে হচ্ছে। নিহত ইব্রাহিম ১৪ বছর ধরে আমাদের ব্যাংকের বিভিন্ন শাখায় কর্মরত ছিল।’