ব্যবসায়ী জালাল খুন: গৃহপরিচারিকা সুরমা গ্রেফতার

প্রকাশ:| শুক্রবার, ২৫ নভেম্বর , ২০১৬ সময় ১১:৫৬ অপরাহ্ণ

নগরীর আগ্রাবাদে ব্যবসায়ী জালাল উদ্দিন সুলতানকে (৪৬) নির্মমভাবে শ্বাসরোধ করে খুনের ঘটনায় চতুর্থ আসামি গৃহপরিচারিকা সুরমা আকতারকে (২৫) গ্রেফতার করা হয়েছে। এর আগে কামাল, তার স্ত্রী লিলু আক্তার (২২) ও রাশেদকে (১৯) গ্রেফতার করা হয়েছিল।

শুক্রবার (২৫ নভেম্বর) ভোরে কর্ণফুলী থানা এলাকা থেকে সুরমাকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর কামাল ও সুরমা চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম আবদুল কাদেরের আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। যাতে তারা হত্যার দায় স্বীকার করেছেন।

মামলার তদন্তকারী সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) চট্টগ্রামের পরিদর্শক সন্তোষ কুমার চাকমা জানিয়েছেন, জালালকে কৌশলে আটকে ৫০ লাখ টাকা দাবি করা হয়। তিনি টাকা দিতে অস্বীকার করায় তাকে মুখে বালিশ চাপা দিয়ে নির্মমভাবে খুন করা হয়।

পিবিআই ঘটনার সঙ্গে জড়িত লিলু আক্তার (২২) এবং রাশেদ (১৯) নামে দুজনকে গ্রেফতারের পর তাদের কাছ থেকে এই তথ্য উদঘাটন করেছে। লিলু এই ঘটনার বর্ণনা দিয়ে আদালতে জবানবন্দিও দিয়েছে।

এর আগে জালাল হত্যায় গ্রেফতার হওয়া কামালের স্ত্রী লিলু। আর রাশেদ কামালের দূর সম্পর্কের ফুপাত ভাই। বুধবার দুপুরে রাশেদকে নগরীর পাঁচলাইশ এবং লিলুকে কর্ণফুলী থানায় তার বাবার বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়। বৃহস্পতিবার (২৪ নভেম্বর) বিকেলে তাদের আদালতে হাজির করা হয়। চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম নাজমুল হোসেন চৌধুরীর আদালতে উভয়ই দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন।

কামালকে গত সোমবার গ্রেফতার করা হয়। এরপর তাকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

পিবিআই পরিদর্শক সন্তোষ কুমার চাকমা বলেন, ঘটনার দিন দুপুরে ফাঁদে ফেলে জালালকে নিজের বাসা পশ্চিম মাদারবাড়িতে নিয়ে যায় কামাল। এসময় জালালকে আটকে তার কাছে ৫০ লাখ টাকা দাবি করা হয়। কিন্তু জালাল টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানায়। জালাল বিষয়টি প্রকাশ করে দেবে এই ভয়ে তারা মুখে বালিশ চাপা দিয়ে ‍তাকে মেরে ফেলে। এরপর কামাল ও রাশেদ মিলে তাকে রাস্তায় ফেলে আসে।

গত ২০ নভেম্বর সকালে আগ্রাবাদ সিডিএ আবাসিক এলাকার ২৯ নম্বর সড়ক থেকে বস্তাবন্দি অবস্থায় জালালের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এর আগে প্রায় ২০ ঘণ্টা নিখোঁজ ছিলেন জালাল। জালাল খুনের ঘটনায় তার ছেলে বাদি হয়ে ডবলমুরিং থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।