বোয়ালখালীতে নির্বাচনী প্রচারে বাধাসহ হয়রানির অভিযোগ

প্রকাশ:| বুধবার, ২৫ মে , ২০১৬ সময় ০৪:১৭ অপরাহ্ণ

অভিযোগ
বোয়ালখালী প্রতিনিধি:
বোয়ালখালীতে নির্বাচনী প্রচারপ্রচারণায় বাধাসৃষ্টি ও মিথ্যা অভিযোগে পুলিশি হয়রানি করছে বলে অভিযোগ তুলেছেন। বুধবার (২৫ মে) সাংবাদিকদের কাছে এসব অভিযোগ আনেন উপজলার ১০নং আহলা কড়লডেঙ্গা ইউনিয়নের বিএনপি মনোনীত প্রার্থী হামিদুল হক মান্নান ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহরম আলী।
তারা অভিযোগ করে বলেন, ‘সুষ্ঠু নির্বাচন হলে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী আবদুল ওয়াদুদ পরাজয় নিশ্চিত জেনে নির্বাচনী প্রচার প্রচারণায় অহেতুক বাধা সৃষ্টি করছে । তারাই গোলযোগ সৃষ্টি করে আবার তারাই মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে নিরীহ মানুষজনকে পুলিশি হয়রানির করছে। দু:খের বিষয় হলো, কোনো তদন্ত ছাড়াই পুলিশ নিরীহ এলাকাবাসীকে অহেতুক গালমন্দ ও রাতে ঘরে ঘরে তল্লাশির করছে। এছাড়া পাশাপাশি প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীর প্রতীক নৌকায় ভোট দেয়ার জন্য একপ্রকার চাপ সৃষ্টি করছেন।’
২৮ মে’র নির্বাচন নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে তারা আরো জানান, ‘প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী বৈধ ও অবৈধ অস্ত্রসহ বহিরাগত সান্ত্রসী নিয়ে গণসংযোগের নামে এলাকায় ভয়ভীতি প্রদর্শন করে এলাকাবাসীকে হুমকি ধমকি দিলেও প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না।’
নির্বাচনের দিন যাতে ভোটাররা নির্বিঘেœ ভোট দিতে পারেন সে ব্যাপারে নির্বাচন কমিশন ও সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তারা।
উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. ইলিয়াছ কামাল রিসাত জানান, ‘নির্বাচনী সময়ে কোনো প্রার্থীকে পুলিশি হয়রানি করতে পারে না। যদি করে থাকে, অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’
বোয়ালখালী থানার অফিসার ইনচার্জ মো. সালাহ উদ্দিন চৌধুরী এ ব্যাপারে বলেন,‘নির্বাচন সুষ্ঠু করার লক্ষ্যে পুলিশ কাজ করছে। কে কোনো প্রতীক পেয়ে নির্বাচনে আছে তা নিয়ে পুলিশের মাথাব্যাথার কোনো কারণ নেই। হয়রানি করার অভিযোগ নাকজ করে দিয়ে তিনি বলেন, সুনির্দিষ্ট অভিযোগ থাকায় পুলিশ গিয়েছিল।’
উল্লেখ্য, ২৮মে’র নির্বাচনে বোয়ালখালী উপজেলার সাত ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের ৭, বিএনপি’র ৭, জাপা’র ২, ইসলামী ফ্রন্ট্রের ৩ ও স্বতন্ত্র ১৮ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন । এছাড়া ২১ সংরক্ষিত ওয়ার্ডে মহিলা সদস্য ৪২জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও ৪জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতা রয়েছেন । সাধারণ ওয়ার্ডের ৬৩টি সদস্যপদে ২৭৫ জন প্রার্থী নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন।