বেগম খালেদা জিয়ার ভিশন-২০৩০ দেখে আলীগ ভয় পেয়েছে

প্রকাশ:| রবিবার, ২১ মে , ২০১৭ সময় ০৯:৫৮ অপরাহ্ণ

বিএনপি’র চেয়ারপার্সনের গুলশান দলীয় কার্যালয়ে তল্লাশীর  প্রতিবাদে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি’র বিক্ষোভ সমাবেশ

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি’র সভাপতি ও কেন্দ্রীয় বিএনপি’র সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. শাহাদাত হোসেন বলেছেন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী, বিএনপি’র চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ভিশন-২০৩০ ঘোষণা করার পর দেশের মানুষের কাছে ব্যাপকহারে গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছে। ২০৩০ ভিশনে দ্বি-কক্ষ বিশিষ্ট পার্লামেন্ট, আর্থসামাজিক উন্নয়ন, সর্বশ্রেণীর মানুষের কল্যাণ, দেশের উন্নয়ন ও উৎপাদনের কথা বলা হয়েছে। ফলে এই ভিশন ঘোষণার পর থেকে আওয়ামীলীগের শিবিরে আতংক বিরাজ করছে। দুর্নীতি-দু:শাসন, নির্যাতন, নিপীড়নে দেশের মানুষ এই সরকারের উপর আস্থা হারিয়ে ফেলেছে। তারা জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয়, তারা দেশের জনগণ থেকে বিছিন্ন হয়ে পড়েছে। আওয়ামীলীগ দেশের মানুষ ভোটাধিকার প্রয়োগ করুক তা চায় না, তারা গণতন্ত্র চায় না, তারা আবারও দেশের মানুষের ভোটাধিকার ও গণতন্ত্র হত্যা করতে চায়। এক দলীয়ভাবে ক্ষমতায় থাকার অপচেষ্টায় লিপ্ত হয়ে বিভিন্ন অপকৌশল অবলম্ব করছে। ডা. শাহাদাত আরো বলেন, যতই ষড়যন্ত্র হোক না কেন, এই দেশের জনগণকে সাথে নিয়ে বিএনপি’র চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে দেশের মানুষের ভোটাধিকার ও গনতন্ত্র পূনরুদ্ধার করবেই। তিনি সরকারের উদেশ্যে বলেন, কোন সরকারই শেষ সরকার নয়, কোন ষড়যন্ত্রই এদেশের মানুষ বরদাস্ত করবে না। দেশের মানুষের ভোটাধিকার ফিরিয়ে দিন। একটি সহায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দিন। অন্যথায় দেশের জনগণ গণআন্দোলনের মাধ্যমে আপনাদের পতনের ঘন্টা বাজাবে। তিনি অদ্য বিকাল ৫টায় দলীয় কার্যালয় নাসিমন ভবন চত্বরে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি ও অঙ্গসংগঠন আয়োজিত বিএনপি’র চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার গুলশান কার্যালয় তল্লাশীর প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে উপরোক্ত বক্তব্য রাখেন।
চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় বিএনপি’র সাবেক সহ-সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর বলেন, কোন রক্তচক্ষুকে বিএনপি ভয় পায় না। বিএনপি’র চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ভিশন-২০৩০ ঘোষণার পর এধরণের আগ্রাসন গণতন্ত্রের ন্যূনতম ভবিষ্যৎ নষ্টের পাঁয়তারা এবং উস্কানিমূলক আচরণ। সরকার যে সম্পূর্ণ বে-আইনীভাবে কাজটি করেছে সেজন্য অবশ্যই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীকে জবাব দিতে হবে। তাকে এই দায় বহন করতে হবে। চেয়ারপার্সনের কার্যালয়ে পুলিশী তল্লাশী এবং ভাংচুর ঘৃণিত ও ন্যাক্কারজনক ঘটনা। ভবিষ্যতে এই ধরণের ন্যাক্কারজনক ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটলে জনগণকে সাথে নিয়ে উপযুক্ত জবাব দেওয়া হবে।
বিক্ষোভ সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় শ্রমিকদলের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি’র সহ-সভাপতি আলহাজ্ব আবু সুফিয়ান, বিএনপি নেতা সাবেক কমিশনার সামশুল আলম, মোহাম্মদ মিয়া ভোলা, আলহাজ্ব এম.এ আজিজ, এস.এম সাইফুল আলম, সবুক্তগীন সিদ্দিকী মক্কি, শেখ নুরুল্লাহ বাহার, হারুন জামান, কাজী বেলাল উদ্দিন, মোশাররফ হোসেন দ্বীপ্তি, ইস্কান্দর মির্জা, আর.ইউ চৌধুরী শাহীন, ইয়াছিন চৌধুরী লিটন, সামশুল হক, আনোয়ার হোসেন লিপু, জি.এম আইয়ুব খান, মনোয়ারা বেগম মনি, এম.এ হান্নান, সাইফুল ইসলাম বাবুল, কামরুল ইসলাম, গাজী সিরাজ উল্লাহ, শিহাব উদ্দিন মোবিন, বেলায়েত হোসেন ভুলু, জেলী চৌধুরী, সরফরাজ কাদের রাসেল, আলী আব্বাস খান, মো. সেকান্দর কমিশনার, হাজী মো. তৈয়ব, মঞ্জুর আলম মঞ্জু, হাজী হানিফ সওদাগর, আলাউদ্দিন আলী নূর, খন্দকার নুরুল ইসলাম, মীর কাওছার এলাহী, সামশুল আলম, মো. আশরাফ, তৌহিদুস সালাম নিশাত, এম. আই চৌধুরী মামুন, সাব্বির আহমেদ, আবুল বশর, হাজী এমরান উদ্দিন, নাজিম উদ্দিন, সাইফুর রহমান শপথ, জসিম উদ্দিন চৌধুরী, জিয়াউর রহমান জিয়া, আলী মর্তুজা খান প্রমুখ।

আদালত চত্বরে  বিএনপি পন্থী আইনজীবীদের বিক্ষোভ

গুলশান কার্যালয়ে পুলিশ কর্তৃক তল্লাশি’র প্রতিবাদে বিক্ষোভ  সমাবেশ ও মিছিল করেছে বিএনপি পন্থী  আইনজীবীরা। রবিবার (২১ ওম) সকালে চট্টগ্রাম আদালত পাড়ায় বিএনপি পন্থী  আইনজীবীরা  বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া’র রাজনৈতিক কার্যালয় (গুলশানে) পুলিশ কর্তৃক তল্লাশি’র তীব্র নিন্দা জানিয়ে চট্টগ্রাম আদালত চত্বরে প্রতিবাদ সভা  ও মিছিল করেছে।

সিনিয়র আইনজীবী এডভোকেট আব্দুস সাত্তারের সভাপতিত্বে বিএনপি পন্থী  আইনজীবীদের এ বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সিনিয়র অইনজীবী এডভোকেট এ এস এম বদরুল আনোয়ার, এডভোকেট সিরাজুল ইসলাম চোধুরী, এডভোকেট আব্দুস সাত্তার সরওয়ার, বিএনপি নেতা এডভোকেট ইফতেখার মহসিন, এডভোকেট আবুল কাসেম চৌধুরী, এডভোকেট নাজিম উদ্দিন, এডভোকেট আশফাক আহমেদ, এডভোকেট এস ইউ নুরুল ইসলাম, এডভোকেট সোলেমান হায়দার, এডভোকেট জহুরুল আলম, এডভোকেট আরশাদুর রহমান রিন্টু, এডভোকেট সেলিম উদ্দিন সাহিন, এডভোকেটতৌহিদুল আলম শিকদার, এডভোকেট এনামুল হক প্রমুখ।

এ সময় বক্তারা বলেন বিএনপির চেয়ারপার্সন ও তিনবারের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে তল্লাশি করে সরকার এটাই বুঝিয়েছে- বাংলাদেশে গণতন্ত্রের লেশমাত্র নেই। বাংলাদেশ সম্পূর্ণ গণতন্ত্রহীন রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাহায্যে সরকার দেশ চালাচ্ছে। বেগম খালেদা জিয়ার গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে পুলিশি তল্লাশির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। এই সরকার উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে দেশের গণতান্ত্রিক চর্চা ব্যাহত করছে।

‘অভিযানের সময়ে পুরো কার্যালয়ের কাগজপত্র তছনছ করে দেয়া হয়েছে। পুলিশ অনুমতি ছাড়াই কার্যালয়ের প্রধান ফটকের গেটের তালা ভেঙে কার্যালয়ে প্রবেশ করে। অফিসের ভেতরে থাকা ক্লোজড সার্কিট ক্যামেরা (সিসি টিভি) ভেঙে ফেলা হয় বলেও তারা নেতারা অভিযোগ করেছেন।

বক্তারা বলেন, এই অবৈধ তল্লাশীর মাধ্যমে বিরোধী দলের দমন-পীড়নের চিত্র আবার ফুটে উঠল। এটি গনতন্ত্রের জন্য বড় বাঁধা। সরকারকে এই দমন-পীড়ন নীতি থেকে সড়ে এসে দেশের গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক চর্চার পরিবেশ তৈরি করার আহবান জানান বক্তারা।

 

চট্টগ্রাম বিভাগীয় শ্রমিক দল

কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসাবে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার গুলশান কার্যালয়ে পুলিশী তল্লাশীর প্রতিবাদে চট্টগ্রাম বিভাগীয় শ্রমিক দলের উদ্যোগে এক সমাবেশ অদ্য ২১ মে রোজ রবিবার ২০১৭ইং নাসিমন ভবন দলীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। চট্টগ্রাম বিভাগীয় শ্রমিক দলের সভাপতি এ এম নাজিম উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন শ্রমিক দল কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আনোয়ার হোসেন। বিভাগীয় শ্রমিক দলের সাধারণ সম্পাদক কাজী শেখ নুরুল্লাহ বাহারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন শ্রমিক দল নেতা স ম জামাল, মোস্তফা কামাল পাশা, আবদুল্লাহ হারুন আখঞ্জি, শফিকুর রহমান মজুমদার, আবু বক্কর সিদ্দিকী, সাইফুল ইসলাম, রফিকুল ইসলাম, আবু বক্কর সিদ্দিকী বাপ্পি, রবিউল হোসেন, মো: ফরিদ, জসিম উদ্দিন, মো: মুজিব, মাসুম ভুইয়া, সাইদুল হক সাইদু, মোহাম্মদ নূর নবী, আবদুল মান্নান, মো: বাবলু, কামাল উদ্দিন প্রমুখ।
সমাবেশে প্রধান অতিথি শ্রমিক দল কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আনোয়ার হোসেন বলেন, আওয়ামীলীগ খালেদা আতংকে ভুগছে। নির্বাচন হতে বিএনপিকে দূরে রাখতে সরকার নানামুখী ষড়যন্ত্র করছে। তারই অংশ হিসেবে খালেদা জিয়ার গুলশান কার্যালয়ে পুলিশী তল্লাশী দিয়েছে। তিনি বলেন, বিএনপিকে ছাড়া আগামীতে বাংলাদেশে কোন নির্বাচন হতে দেওয়া হবে না।

মহানগর যুবদল

বিকাল ৩ ঘটিকায় বিএনপি’র চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার গুলশান কার্যালয়ে পুলিশের তল্লাশীর নামে মালামাল তছনছ ও ভাংচুর করার প্রতিবাদে চট্টগ্রাম মহানগর যুবদলের বিক্ষোভ মিছিলোত্তর এক সমাবেশ চট্টগ্রাম মহানগর যুবদলের সভাপতি কাজী বেলাল উদ্দিনের সভাপতিত্বে কাজির দেউরী মোড় প্রদক্ষিণ করে নাসিমন ভবনস্থ দলীয় কার্যালয়ে এসে অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সমাবেশে প্রধান বক্তা ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ হোসেন দীপ্তি। চট্টগ্রাম নগর যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক ইকবাল হোসেনের সঞ্চালনায় আরো উপস্থিত ছিলেন নগর যুবদলের সহ-সভাপতি নুর আহমেদ গুড্ডু,সাহাব উদ্দিন হাসান বাবু, আজমুল হুদা রিংকু, যুবদল নেতা মিয়া মো: হারুন, এম.এ রাজ্জাক, মো: মিল্টন, ম. হামিদ, নুর হোসেন নুরু, হেলাল হোসেন, শাহজালাল পলাশ, শাহাদাত হোসেন ওয়াসিম, লুৎফুর রহমান, মো: সাগির, মো: ইয়াছিন, কামরুল ইসলাম, মুজিবুর রহমান রাসেল, মাহবুবুর রহমান, দীপংকর ভট্টাচার্য, আসাদুজ্জামান রুবেল, মো: স্বপন, মো: হাসান, নিজাম উদ্দিন, মো: আরিফ, হুমায়ুন কবির, আব্বাস উদ্দিন, ইকবাল হোসেন মিলন, মো: হামিদ, মো: ইউনুছ, রাজু খান, বাবু, মো: আজিজ, বেলাল, মো: করিম, নাজমুল হাসান লিটু, সরওয়ার, জাহাঙ্গীর আলম, মিজানুর রহমান, সোহাগ খাঁন, ইকবাল হোসেন, শহীদ, ফোরকান, জানে আলম, জাওয়াদ হোসেন, মকবুল হোসেন প্রমুখ। সমাবেশে বক্তারা বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার অফিসে পুলিশী তল্লাশীর মাধ্যমে বেগম খালেদা জিয়াকে হেয়প্রতিপন্ন করার অপচেষ্টা এবং দেশনেত্রী ঘোষিত ভিশন ২০৩০ এর বিরুদ্ধে সরকারের প্রতিহিংসামূলক অবস্থানে চট্টগ্রাম মহানগর যুবদলের নেতারা তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। ভবিষ্যতে তল্লাশীর নামে এ ধরনের ন্যাক্কারজনক অপকর্ম থেকে বিরত থাকার জন্য আহ্বান জানান। অন্যথায় সর্বস্তরের জনগণকে নিয়ে যুবদল তীব্র আন্দোলন গড়ে তুলবে।

বেগম খালেদা জিয়ার গুলশান অফিস তল্লাশীর প্রতিবাদে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপি’ জাফরুল 

বিএনপি’র চেয়ারপার্সন, সাবেক তিন বারের প্রধানমন্ত্রী, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ন্যাক্কারজনক ভাবে গুলশান অফিস তল্লাশী ও হয়রানীর প্রতিবাদে কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে অদ্য বিকাল ৪ ঘটিকার সময় চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপি’র দোস্ত বিল্ডিংস্থ দলীয় কার্যালয় হতে এক বিক্ষোভ মিছিল চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপি’র সভাপতি, সাবেক মন্ত্রী আলহাজ্ব জাফরুল ইসলাম চৌধুরীর নেতৃত্বে নতুন রেলওয়ে ষ্টেশনে এসে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। বিক্ষোভ সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপি’র সভাপতি, সাবেক মন্ত্রী জাফরুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ভিশন-২০৩০ ঘোষনায় সরকারের বিভিন্ন মহল থেকে বেসামাল বক্তব্যে বুঝা যায় দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ভিশন-২০৩০ যুগোপযোগী ও সর্বজন গ্রহণযোগ্য। ভিশন-২০৩০ থেকে জনগণের দৃষ্টি অন্যদিকে ফিরিয়ে নিতে সরকার এমন ন্যাক্কারজনক ঘটনা রচনা করে। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে সকল ষড়যন্ত্র রুখে দিবে বাংলাদেশের আপামর জনগণ।
সভায় আরও বক্তব্য রাখেন, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি আলহাজ্ব মুহাম্মদ এনামুল হক, আলমগীর কবির চৌধুরী, সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি আলহাজ্ব মোশাররফ হোসেন, সহ-সাধারণ সম্পাদক এড. নুরুল ইসলাম, বাঁশখালী উপজেলা বিএনপি’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম বিন খলিল, সাতকানিয়া পৌরসভা বিএনপি’র সাবেক আহ্বায়ক হাজী রফিকুল ইসলাম, আইন বিষয়ক সম্পাদক এড. মুহাম্মদ কাশেম চৌধুরী, চন্দনাইশ পৌরসভা বিএনপি’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাইফুল্লাহ বাহার, প্রকাশনা সম্পাদক এড. মুহাম্মদ আবু তাহের, সাংস্কৃতিক সম্পাদক এড. এম নাছির উদ্দিন, সহ-ক্রীড়া সম্পাদক শওকত ওসমান, বিএনপি নেতা কে.এম জসিম উদ্দিন, ফজলুল কাদের, আলহাজ্ব মমতাজুল ইসলাম, আজমল হোসেন কামাল, মোজাম্মেল হক তালুকদার, আবদুল মান্নান তালুকদার, আবুল হোসেন বাবুল, হামিদুর রহমান পেয়ারু, জেলা যুবদলের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মোজাম্মেল হক, জেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটির সাবেক সদস্য মুহাম্মদ শহীদুল আলম শহীদ, আনোয়ারা উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সালা উদ্দিন সুমন, এড. শিপন, এড. মফিজুর রহমান, নিজাম উদ্দিন মাহাবুব আলম, হাজী নুরুল আলম, জাহিদ হোসেন, আবু তৈয়ব, বাদশা মেম্বার, জাহাঙ্গীর, জেলা ছাত্রদলের সাবেক সদস্য দিদার হোসেন, ওবায়দুল হক রিকু, এম হান্নান রহিম, আব্বাস উদ্দিন, সাকেরুল ইসলাম শাকিব, মো. শাহজাহান হোসেন, কে.এম আব্বাস, আতিকুর রহমান আতিক, শফিউল করিম শফিক, নোমানুল হক, লোকমান উদ্দিন, খোরশেদুল হক চৌধুরী, আহমেদ নুর, তৌহিদুল আলম, নাজিম উদ্দিন, মো. সেলিম, সুমন, রবিউল, রুবেল প্রমুখ।

খালেদা জিয়ার কার্যালয়ে পুলিশী তল্লাশীর প্রতিবাদে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা যুবদলের সমাবেশ


কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসাবে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার গুলশান কার্যালয়ে পুলিশী তল্লাশীর প্রতিবাদে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা যুবদলের উদ্যোগে এক বিক্ষোভ মিছিল কাজির দেউরী মোড় হতে শুরু হয়ে নাসিমন ভবন দলীয় কার্যালয়ে এসে এক সমাবেশে মিলিত হয়। সমাবেশে যুবদল নেতৃবৃন্দরা বলেন, অবৈধ ক্ষমতাকে জায়েজ করতে সরকার দিশেহারা হয়ে পড়েছে। সরকারের অস্থিরতার বহিপ্রকাশ ঘটেছে খালেদা জিয়ার গুলশান কার্যালয়ে পুলিশী তল্লাশীর মাধ্যমে। আগামীতে আওয়ামীলীগকে খালি মাঠে গোল দিতে দেওয়া হবে না। বিএনপি নির্বাচনমুখী দল। বিএনপিকে নির্বাচন হতে দূরে রাখতে সরকার নানামুখী ষড়যন্ত্র করছে। বিএনপিকে ছাড়া কোন নির্বাচন বাংলার মাটিতে হতে দেওয়া হবে না।
উত্তর জেলা যুবদলের সভাপতি কাজী সালউদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি এম এ হালিম। এতে অন্যান্যেদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি আলহাজ্ব ছালাউদ্দিন, অধ্যাপক ইউনুস চৌধুরী, ইসহাক কাদের চৌধুরী, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক নুরুর আমিন, এ্যাড. আবু তাহের, পেশাজীবী নেতা ডা. খুরশিদ জামিল চৌধুরী, মীরসরাই উপজেলা চেয়ারমান নুরুল আমিন, ইউসুফ নিজামী, দিদারুল আলম মিয়াজী, মো: সেলিম, জাকের হোসেন, সীতাকুন্ড উপজেলা যুবদল সভাপতি ফজলুল করিম চৌং, মীরসরাই যুবদল আহবায়ক শাহীনুল ইসলাম স্বপন, সীতাকুন্ড উপজেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক শাহাব উদ্দিন রাজু, সন্দ্বীপ উপজেলা যুবদল সদস্য সচিব গাজী হানিফ, জেলা ছাত্রদল সহ-সভাপতি আজিজ উল্লাহ, যুগ্ম সম্পাদক সেলিম উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক আনিস আকতার টিটু, যুবদল নেতা একরাম, সাইফুল, মোমিন উদ্দিন, সেলিম উদ্দিন, সরওয়ার জাহান পুতুল, সাইফুল, দিদারুল আলম, আলাউদ্দিন, সোহেল, সাইফুল ইসলাম, শাকিল চৌধুরী, মো: ফিরোজ খান, জুয়েল, নূর নবী সালাম, মুসলেম উদ্দিন প্রমুখ।

,
বিএনপি চেয়ারপার্সনের গুলশান অফিসে অবৈধভাবে তল্লাশীর প্রতিবাদে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ

বিএনপি’র চেয়ারপার্সন বাংলাদেশের তিন বারের সাবেক সফল প্রধানমন্ত্রী আপোষহীন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার গুলশান কার্র্যালয়ে অবৈধভাবে পুলিশী তল্লাশী ও ভাংচুরের প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে অদ্য ২১ মে, বিকাল ৪ ঘটিকায় নগরীর নিউ মার্কেট চত্বরে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের উদ্যোগে জেলা সাধারণ সম্পাদক মহসীন চৌধুরী রানার সভাপতিত্বে ও সাতকানিয়া উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি আব্দুস সবুর’র সঞ্চালনায় বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য রাখেন আনোয়ারা উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক নঈম উদ্দীন চৌধুরী, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলনেতা কামাল হোসাইন, সালমান ইফতেখার, আবসার কামাল ভট্টু, মোঃ তৈয়্যব, মাসুদ করিম চৌধুরী, বোরহান উদ্দিন, জমির উদ্দিন জনি, সেলিম, রিপন, সোহেল, সাদ্দাম প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।
বিএনপি ঘোষিত ‘ভিশন ২০৩০’ প্রকাশিত হওয়ার পর দেশের জনগণের কাছে ব্যাপক সমাদৃত হওয়ায় আওয়ামীলীগের নেতাকর্মী, সরকারের মন্ত্রী এমপি ও সরকার প্রধানের অন্তর জ্বালায় যেভাবে পাগল পাড়া হয়ে বিএনপিকে নিয়ে আ’ক্রমণাত্বক বক্তব্য দেওয়া শুরু করেছে, তার শেষ বহিঃপ্রকাশ হচ্ছে খালেদা জিয়ার গুলশান অফিসে অবৈধভাবে পুলিশী তল্লাশী। স্বেচ্ছাসেবক দল হুশিয়ার করে বলে দিতে চাই, খালেদা জিয়ার গুলশান অফিসে অবৈধ তল্লাশী ও খালেদা জিয়াকে আদালতের মাধ্যমে দোষি সাব্যস্ত করে নির্বাচন থেকে সরিয়ে দেওয়ার যে অপচেষ্টা করছে আওয়ামীলীগ তার জবাব রাজপথেই দেবে স্বেচ্ছাসেবকদল ।


আরোও সংবাদ