বি আর টি সি বাস চালু এখন সময়ের দাবী

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ৪ জুলাই , ২০১৩ সময় ১১:২৭ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম-হাটহাজারী-নাজিরহাট রুটে বি.আর.টি.সি বাস সার্ভিস চালু করা এখন সময়ের দাবীতে পরিনত হয়েছে। এ রম্নটে বি.আর.টি.সি বাস চালু করা হলে একদিকে বি.আর.টি.সি বাসযেমন সরকারের রাজস্ব আয় বৃদ্ধি পাবে অন্যদিকে যাত্রীদের দুর্ভোগও লাগব হবে। দক্ষিন চট্টগ্রামের বিভিন্ন রুটে বিআরটিসি বাস চালু থাকলেও চট্টগ্রাম-নাজিরহাট রুটে বিআরটিসি বাস চলাচল নেই।
জানা যায়, ১৯৬০ এর দশকে হাটহাজারী, ফটিকছড়ি ও রাউজান (আংশিক) উপজেলার লোকজনের চলাচলের সুবিধার্থে চট্টগ্রাম-নাজিরহাট রুটে বাস সার্ভিস চালু করা হয়। উলেস্নখিত তিন উপজেলার লোকজন কর্মতাগিদে চট্টগ্রাম নগরী সহ দেশের বিভিন্ন স’ানে যাতায়াতের জন্য নাজিরহাট সড়কের বাস সার্ভিসের উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়ে। এ রম্নটে বেসরকারী মালিকানাধীন বাস সার্ভিস লাভ জনক হয়ে পড়ায় সরকারী মালিকানাধীন তৎকালিন পাকিস্থান সড়ক পরিবহন সংস্থার গাড়ি এ রুটে সার্ভিস দেওয়া হয়। এতে সরকারী রাজস্ব বৃদ্ধির সাথে সাথে যাত্রীরাও সুবিধা জনক ভাবে ভ্রমণ সুবিধা পেতে থাকে। এর মধ্যে স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরু হলে সরকারী মালিকানাধীন বাস সার্ভিস নাজিরহাট রুটে বন্ধ হয়ে যায়। পরবর্তীতে দেশ স্বাধীন হলে সরকার পাকিস্তান সড়ক পরিবহন সংস্থার মালিকানাধীন এ সার্ভিসের নাম পরিবর্তন করে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন সংস্থা নামাকরণ করেন। পরে নাজিরহাট রুটে সরকারী মালিকানাধীন এ সার্ভিস চালু করা হয়। বিআরটিসির বাস চালুর পর পুনরায় যাত্রীদের ভ্রমণ সুবিধা বৃদ্ধি পায়। তেমনি সরকারী রাজস্ব আয়ও বৃদ্ধি পায়। ক্রমে সরকারী এ যানবাহন মানুষের মধ্যে জনপ্রিয় হয়ে উঠলেও গাড়ি সংকট সহ নানা অজুহাত তুলে নাজিরহাট রম্নটে বিআরটিসি গাড়ি সার্ভিস বন্ধ করে দেওয়া হয়। দেশ স্বাধীন হলে এখন জনসংখ্যা বৃদ্ধি পায়। স্বাভাবিক কারণে বাড়তি এ জনসংখ্যা কর্মপ্রয়োজনও বৃদ্ধি পেতে থাকে। কর্মপ্রয়োজন বৃদ্ধি পেলে গাড়ির প্রয়োজনও বৃদ্ধি পেতে থাকে। তাছাড়া বর্তমানে নগরীর বাসা ভাড়া সহ আনুষাঙ্গিক খরচ বৃদ্ধি পেলে হাটহাজারী তথা নাজিরহাট এলাকার বিপুল সংখ্যক মানুষ প্রতিদিন নগরীতে আসা যাওয়া করে চাকরী, ব্যবসা বাণিজ্য তথা নানা প্রয়োজনে। এতে করে এ রম্নটে যানবাহনের প্রয়োজনীয়তা আরো বৃদ্ধি পেতে থাকে। ইদানিং নাজিরহাট রুটে বেসরকারী মালিকানাধীন বাস/ কোস্টার সার্ভিস সংখ্যা একেবারে কমে গেছে। মানুষের প্রয়োজনে গাড়ি তথা বাস কোস্টারের প্রয়োজনীয়তা যেখানে বৃদ্ধি পেয়েছে সেখানে বাস কোস্টারের সার্ভিস তুলনামূলকভাবে কমে যাওয়ায় নিত্যদিন প্রয়োজনের তাগিদে নগরী সহ বিভিন্ন স’ানে যাতায়াতকারীদের দুর্ভোগ দুর্গতী চরম আকার ধারণ করেছে। ফলে মানুষের প্রয়োজন মিঠাতে এ রম্নটে অবৈধ ও অননুমোদীত গাড়ীর সংখ্যা আশংকা জনক ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে এ অবৈধ গাড়ি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে গোপন সমাঝোতার মাধ্যমে সড়কে চলাচল করার কথা মানুষের মুখে মুখে। এতে করে একদিকে যেমন সরকার অবৈধ গাড়ির রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে অন্যদিকে এ অবৈধ গাড়ি গুলো নিয়ম নীতি না মেনে সড়কে চলাচল করার কারণে দুঃসহ ও ভয়াবহ যানজট সৃষ্টি করছে। অপরদিকে যাত্রীদের কর্মসময় যেমন নিত্যদিন যানজটের কারণে নষ্ট হচ্ছে তেমনি যাত্রীদের ভাড়তি ভাড়াও গুনতে হচ্ছে। তাছাড়া মহিলা যাত্রী ও রোগীদের দুর্গতী ও বেড়ে গেছে। উলেস্নখিত বিষয়াদি বিবেচনা করে যাত্রীদের কম খরচে অপেক্ষাকৃত সুবিধাজনক ভ্রমণের জন্য নাজিরহাট রুটে বিআরটিসি বাস চালু করার উপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন ভুক্তভোগী মহল। তাছাড়া এ রুটের জনগন বিআরটিসি বাস চালুর দাবীতে সভা সমাবেশ করার কথা একটি সূত্রে জানা গেছে। সূত্র জানায় হাটহাজারী,ফটিকছড়ির জনপ্রতিনিধি,রাজনৈতিক,বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের সমন্বয়ে একটি আন্দোলন সংগ্রাম কমিটি গঠন করা হচ্ছে। দাবী আদায় না হওযা পর্যন- সংশ্লিষ্ট সরকারী দপ্তরে দাবী সম্পেৃকে বলা হবে। এতে স্বল্প আয়ের লোকজনের চলাচল যেমন সুবিধা হবে তেমনি অবৈধ গাড়ী সড়কে চলাচল কমে গেলে সড়কও অপেক্ষাকৃত যানজট মুক্ত থাকবে। এ বাসে এক সাথে অধিক যাত্রী বহন করলে সড়কের যানজট অনত্মত কিছুটা হলেও কমবে বলে মত প্রকাশ করেছে পর্যবেক্ষক মহল।hathazarinews24.com