বিশ্বকাপে বাংলাদেশের পরাজয়েরে পেছনে শ্রীনি

প্রকাশ:| শুক্রবার, ২৬ জুন , ২০১৫ সময় ১০:০৩ অপরাহ্ণ

বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে বাংলাদেশের বিপক্ষে ভারতের জয় ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) চেয়ায়ম্যান শ্রীনিবাসনের সিদ্ধান্তে হয়েছে।

ওই ফাইনাল ছিল সাজানো নাটক! আইসিসি ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সাবেক সভাপতি আ হ ম মুস্তফা কামাল ভারতের ক্রিকেট বিষয়ক ওয়েবসাইট ক্রিকেট নেক্সটকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এই বোমা ফাঁটিয়েছেন।

শুক্রবার ওয়েবসাইটটিতে ওই সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয়। এতে তিনি দাবি করেন, চলতি বছরের মার্চে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে বাংলাদেশের বিপক্ষে ভারতের জয় ছিল স্রেফ সাজানো নাটক।

মুস্তফা কামাল বলেন, ‘কোয়ার্টার ফাইনালের পর আমি পদত্যাগ করছি এমন সিদ্ধান্তে বাংলাদেশের সবাই অসন্তুষ্ট হয়। তারা আমার ধারণাকে সমর্থন করেনি। অনেকে মনে করে, আমি ভারতের বিপক্ষে বলছি। কিন্তু ভারতের বিপক্ষে আমি কিছু বলিনি। ভারতের খেলোয়াড়রা জানত না কী ঘটছে। তারা জানত না ম্যাচের ভাগ্য। আমার যুক্তি ছিল, খেলা পক্ষপাতিত্বহীন হয়নি। এটি ছিল আইসিসির সিদ্ধান্ত, মানে শ্রীনিবাসনের সিদ্ধান্ত!’

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কে আইসিসি চালায়—প্রেসিডেন্ট, নাকি চেয়ারম্যান? যেহেতু আমি কোনো অন্যায় করিনি, তবে কে করেছে? করেছেন চেয়ারম্যান। অবশ্যই এটি তাঁর বিরুদ্ধে যায়। কেন ওই দিনের খেলায় স্পাইডার ক্যামেরা ছিল না? ওই দিন কেন প্রযুক্তি ব্যবহার করা হলো না? কেন ওই দিন বড় পর্দা ব্যবহার করা হলো না? কেন? এটি ছিল আইসিসির আয়োজন। আমি ছিলাম আইসিসির অংশ। তাঁরা কীভাবে এমনটি বলতে পারে? তাঁরা কীভাবে বলে, বাংলাদেশ হারছে এবং ভারত জিতছে। পরবর্তী খেলায় ভারত অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হচ্ছে। তাঁরা কেন বিষয়টি বড় পর্দায় দেখাল? তাঁরা কেন দেখাল না, জিতেগা জিতেগা ইন্ডিয়া জিতেগা, অস্ট্রেলিয়া হারেগা। তাঁরা কি এমনটি বলতে পারবে? তবে কেন বাংলাদেশের বিপক্ষে? আর আমি প্রতিনিধিত্ব করছিলাম বাংলাদেশের। আমি সেখানে ছিলাম ক্রিকেট বিষয়ে স্বার্থ ঠিক রাখায় এবং ওই দিন এটি যদি জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ঘটলেও আমি এর প্রতিবাদ জানাতাম। কারণ এটি ছিল অন্যায়।

ওয়েবসাইটটির প্রতিবেদককে বলেন, আপনি বলুন, ওই ম্যাচ ছাড়া মেলবোর্নের আর কোনো ম্যাচ কি ক্যামেরা ছাড়া খেলা হয়েছে? কেন? কেন এমন নিশানা করা হয়েছিল? কাকে নিশানা করা হয়েছিল? কারণ ভারতে যে এসব জিনিস করছে, সেই মেলবোর্নে সব করতে পারে। –