‘বিরোধী দলের ওপর সরকারের ক্র্যাকডাউন’ ফখরুল

প্রকাশ:| সোমবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি , ২০১৪ সময় ০৯:২৪ অপরাহ্ণ

উপজেলা নির্বাচনকে সামনে রেখে অসংখ্য বিএনপি নেতাকর্মী গ্রেপ্তারের ঘটনাকে বিরোধী দলের ওপর সরকারের ক্র্যাকডাউন বলে মন্তব্য করেছেন দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সোমবার বিএনপির দপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদ স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে তিনি এ মন্তব্য করেন। বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তারের নিন্দা জানিয়ে মির্জা আলমগীর বলেন, বিএনপি’র যুগ্ম মহাসচিব ও রাজশাহী মহানগর বিএনপি’র সভাপতি মিজানুর রহমান মিনু এবং রাজশাহী সিটি মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, মেহেরপুর জেলা বিএনপি’র সভাপতি আমজাদ হোসেন, রাজশাহী সিটি বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক মিলন এবং পিরোজপুর জেলা বিএনপি’র সিনিয়র সহ-সভাপতি নজরুল ইসলাম খানসহ আজ দেশব্যাপী অসংখ্য নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। উপজেলা নির্বাচন চলাকালীন এসব নেতাকর্মীর গ্রেপ্তারের ঘটনা বিরোধী দলের ওপর সরকারের একটি ক্র্যাকডাউন। তিনি বলেন, বর্তমান অবৈধ সরকার বিরোধী দলগুলোর ওপর স্টিম রোলার চালিয়ে তাদেরকে নিঃশেষ করতে পারলেই দীর্ঘদিন অবৈধভাবে ক্ষমতায় টিকে থাকা নিশ্চিত হবে। তাই তারা সন্ত্রাসের মাধ্যমে সারাদেশকেই রক্তাক্ত জনপদে পরিণত করেছে। জনসমাজে স্বস্তি ও শান্তির বদলে তারা গুম খুনের সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠিত করেছে। বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বলেন, উপজেলা নির্বাচনের প্রার্থী থেকে শুরু করে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকে এই সময়ে মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেপ্তার করার মূল উদ্দেশ্যই হলো জনমনে ভীতি সৃষ্টি করা যাতে ভোটকেন্দ্রে জনগণ যেতে ভয় পায়। মির্জা আলমগীর বলেন, তবে তাদের কোন অশুভ পরিকল্পনা জনগণ বাস্তবায়িত হতে দেবে না। জনগণের শক্তিকে চ্যালেঞ্জ করে কখনোই কোন বেপরোয়া স্বৈরাচার টিকে থাকতে পারেনি। নেতৃবৃন্দকে গ্রেপ্তার করে দ্বিতীয় দফার উপজেলা নির্বাচনে জনগণের রায়কে কেড়ে নেয়ার কোন চক্রান্তই সফল হবে না। তিনি বলেন, অবৈধ, অগণতান্ত্রিক ও গণবিরোধী এই সরকার এখন চূড়ান্ত পতনের দ্বারপ্রান্ত। তাই নিজেদের বিনাশ টের পেয়ে এখন রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে নির্মূল করে নিজেদের টিকিয়ে রাখার সর্বশেষ চেষ্টা চালাচ্ছে। সেজন্য খুনখারাবি করে, রাষ্ট্রীয় অর্থনীতি লুটপাট করে, দুর্নীতি ও স্বজন পোষণের আয়োজন চলছে। সরকারের উদ্দেশ্যে কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে মির্জা আলমগীর বলেন, প্রধানমন্ত্রী যদি গণতন্ত্রের পথে না চলেন, জনগণের ইচ্ছাকে মূল্য না দেন, বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের নির্মুল করার পন্থা বন্ধ না করেন, তাহলে তার একগুঁয়েমির কারণে অবশ্যই রাজনীতির ময়দান শান্ত, নিরাপদ ও সুখময় থাকবে না। অবিলম্বে সারা দেশে গ্রেপ্তারকৃত নেতাকর্মীদের নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান তিনি।