বিভিন্ন স্হানে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উদ্যাপন

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| শনিবার, ১৭ মার্চ , ২০১৮ সময় ০৩:৪৭ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম রেলওয়ে শ্রমিক লীগের উদ্যোগে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু
শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্ম বার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদ্যাপন

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্ম বার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদ্যাপন উপলক্ষ্যে অদ্য ১৭ মার্চ বাংলাদেশ রেলওয়ে শ্রমিক লীগ চট্টগ্রাম শাখার উদ্যোগে চট্টগ্রাম নতুন রেলওয়ে স্টেশন চত্বরে চট্টগ্রাম শাখা রেল শ্রমিক লীগের সভাপতি হাজী আশরাফ আলীর সভাপতিত্বে ও সম্পাদক আর্শীষ কুমারের সঞ্চালনায় আলোচনা সভা, কেক কাটা ও আনন্দ র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ চট্টগ্রাম মহাগরের সহ-সভাপতি আলহাজ্ব খোরশেদ আলম সুজন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ রেলওয়ে শ্রমিক লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব শেখ মোহাম্মদ লোকমান হোসেন, কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অরুন কুমার দাশ, কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক বাবু গোকুল চক্রবর্ত্তী ও কেন্দ্রীয় কমিটির ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক এ টি এম আবিদ হোসেন সহ চট্টগ্রামস্থ সকল শাখার সভাপতি, সম্পাদক ও রেল শ্রমিক লীগের বিভিন্ন শাখার নেতাকর্মীবৃন্দ।

বঙ্গবন্ধুর জন্ম হয়েছিল বলে আমরা বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্র পেয়েছি
চট্টগ্রাম উত্তর জেলা কৃষক লীগের উদ্যেগে জাতির জনকের ৯৮তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি….. এড. ফখরুদ্দিন চৌধুরী

১৭ মার্চ ১৯২০ সালে গোপালগঞ্জ টুঙ্গিপাড়ায় জন্ম নিয়েছিলেন বাঙ্গালী জাতির অবিসংবাদিত নেতা হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। আজ এই মহান নেতার ৯৮তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস। যার জন্ম না হলে বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রটি প্রতিষ্ঠা হত না। যার সফল নেতৃত্বে আমরা একটি স্বাধীন দেশ পেয়েছি, নিজেকে পরিচয় দেওয়ার স্বীকৃতি পেয়েছি। কিন্তু দূভাগ্য স্বাধীনতার সাড়ে তিন বছরের মাথায় আমরা বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হারিয়েছি। দীর্ঘ ২১ বছর পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যার নেতৃত্বে আজ এই দেশ উন্নয়নশীল দেশ হিসাবে জাতিসংঘে স্বীকৃতি আদায় করেছে। উল্লেখিত কথাগুলো আজ উত্তর জেলা কৃষক লীগের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও মহানগর পিপি বীর মুক্তিযোদ্ধা এড. ফখরুদ্দিন চৌধুরী তার বক্তব্য তুলে ধরেন। চট্টগ্রাম উত্তর জেলা কৃষক লীগের উদ্যোগে জাতীয় শিশু দিবস ও বঙ্গবন্ধুর ৯৮তম জন্মবার্ষিকী আজ শনিবার সকাল সাড়ে ৯ টায় দোস্ত বিল্ডিংস্থ দলীয় কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধু প্রতীকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পনের মাধ্যমে দিবসের সূচনা হয়। পরে সংগঠনের সভাপতি নজরুল ইসলাম চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও দপ্তর সম্পাদক সেলিম সাজ্জাদের পরিচালনায় আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ গিয়াস উদ্দিন, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও পৌর মেয়র দেবাশীষ পালিত, উপদেষ্টা এড. এম.এ নাসের চৌধুরী, বক্তব্য রাখেন জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ শফিকুল ইসলাম, সহ-সভাপতি আব্দুল হান্নান রানা, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক এম.এন কাশেম, স্থানীয় সরকার বিষয়ক সম্পাদক নুরুল আবছার চৌধুরী, সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক ফজলুল ইসলাম ভূঁইয়া, আইন বিষয়ক সম্পাদক এড. সৈয়দ কামাল উদ্দিন, সহ-দপ্তর সম্পাদক নাজিম উদ্দিন, কার্যকরী পরিষদের সদস্য মোঃ আলী, মাহাবুবুল আলম, জাকির হোসেন, জাহেদ আমিন চৌধুরী, নুরুল আমিন প্রমুখ। এতে মিলাদ ও দোয়া পরিচালনা করেন জেলা কৃষক লীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক মৌলানা মোদাচ্ছের হায়দার।

 

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন বাঙালি জাতির মুক্তির দিশারী

জন্মদিনের অনুষ্ঠানে মঈনউদ্দিন খান বাদল এমপি

বিশিষ্ট পার্লামেন্টারীয়ান জাসদ নেতা মঈনউদ্দিন খান বাদল এমপি বলেছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন বাঙালি জাতির মুক্তির দিশারী। তিনি তাঁর জীবদর্শায় সবসময় বাঙালি জাতির অধিকার আদায়ের সংগ্রাম করে গেছেন। তিনি বাঙালি জাতির উদ্দেশ্যে ঐতিহাসিক সরওয়ার্দী উদ্যোগে বলেছিলেন, “আমি প্রধানমন্ত্রীত্ব চাই না, বাঙালির অধিকার চাই। ৫২‘র ভাষা আন্দোলন থেকে ৫৪‘র যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন, ৬২’র শিক্ষা আন্দোলন, ৬৬‘র ছয়দফা আন্দোলন, ৬৯‘র গণ অভ্যুত্থান, ৭১’র স্বাধীনতা সংগ্রামসহ সকল আন্দোলনে বঙ্গবন্ধুর ভূমিকা ছিল অপরিসীম। তার নেতৃত্বেই বাঙালি জাতি ৭১-এ চূড়ান্ত বিজয় লাভ করে। বঙ্গবন্ধু রাতারাতি বঙ্গবন্ধু হন নি। টুঙ্গিপাড়ার মেটোপথে বঙ্গবন্ধুর জন্ম হয়েছিল বলেই বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল। তিনি জীবনের প্রতিটি ধাপে ধাপে অন্যায়ের বিরুদ্ধে, শোষণকারীদের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করতে করতে বাঙালির হৃদয়ে রাজা হয়েছেন। তিনি জন্মেছিল বলেই জন্মেছে বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল শোষণমুক্ত স্বনির্ভর সোনার বাংলা গড়া। তিনি আজ আমাদের মাঝে নেই। কিন্তু তাঁর আদর্শ আমাদের মাঝে আছে।
অদ্য ১৭ মার্চ বিকাল ৫টায় চান্দগাঁওস্থ বাসভবনের সামনে সাংসদ মঈনুদ্দিন খান বাদলের প্রতিষ্ঠিত ‘মুজিব সৈনিক’ এর উদ্যোগে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে উপরোক্ত কথা বলেন।
চট্টগ্রাম নগরীর চান্দগাঁও, পাঁচলাইশ, বায়েজীদ, মোহরার জনশক্তিদের নিয়ে অনুষ্ঠিত জন্মদিনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কাউন্সিলর কফিল উদ্দিন খান, কাউন্সিলর সাইফুদ্দিন খালেদ, কাউন্সিলর মোবারক আলী, দক্ষিণ জেলা মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক এম এ মতিন, চান্দগাঁও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আইয়ুব খান, মোহরা ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন, ছাত্রলীগ নগর কমিটির সহসভাপতি ইলিয়াছ উদ্দিন, ইয়াছিন আরাফাত কচি, তাছকীর আহমদ, আয়ুব আলী দুলাল, বোয়ালখালী আওয়ামীলীগ নেতা সাবেক চেয়ারম্যান রফিক তালুকদার, রেজাউল করীম বাবুল, জাসদ নগর সভাপতি আবু বক্কর, মাহবুবুল আলম, চান্দগাঁও সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, সাধারণ সম্পাদক সরওয়ার আলম, এ এন এস এল প্রপার্টিজ এর এমডি আহসানুল করীম, জিকে গ্রুপের এমডি রেজাউল করীম মিটু, আওয়ামীলীগ নেতা মো: জামাল, মো: শওকতসহ নগর ও জেলার মুজিব সৈনিক এর সদস্যবৃন্দ, ১৪দলীয় জোটের নেতৃবৃন্দ প্রমুখ।
আলোচনা সভা শেষে জন্মদিনের কেক কাটেন সাংসদ মঈনউদ্দিন খান বাদল।

হাটহাজারীতে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিবস ও জাতীয় শিশু দিবস উদ্যাপন

হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) সংবাদদাতাঃ
হাটহাজারীতে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ এবং তাদের সন্তানরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর ৯৯তম জন্মদিবসে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেছেন। ১৭ই মার্চ শনিবার সকাল সাড়ে নয়টার সময় উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন,উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমাণ্ডার নুরুল আলম,ডেপুটি কমাণ্ডার মোঃ হোসেন মাষ্টার,সহকারী কমাণ্ডার মোঃ সেকান্দর মিয়া,নুরু,জাহাঙ্গীর,ফয়েজ , সদস্য আবু তালেবসহ বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে আগত মুক্তিযোদ্ধা এবং তাদের সন্তানবৃন্দরা।

বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু
শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মবার্ষিকী পালিত

বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির উদ্যোগে নানা আয়োজনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৯৮তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস পালিত হয়েছে। আয়োজনের মধ্যে ছিল, জাতীয় ও রেড ক্রিসেন্ট পতাকা উত্তোলন, জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ এবং দোয়া মাহফিল।

আজ ১৭ মার্চ শনিবার সকাল ৮ টায় সোসাইটির জাতীয় সদর দপ্তরে জাতীয় এবং রেড ক্রিসেন্ট পতাকা উত্তোলন করা হয়। বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির ম্যানেজিং বোর্ডের সম্মানিত সদস্য জনাব মাহবুব জামান ভুলু জাতীয় পতাকা এবং সোসাইটির স্বাস্থ্য বিভাগের দায়িত্বরত পরিচালক জনাব সিরাজুল ইসলাম মোল্লা রেড ক্রিসেন্ট পতাকা উত্তোলন করেন। এসময় সোসাইটির বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।

এরপর সকাল ৯ টায় ধানমন্ডির ৩২ নং এ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। এসময় সোসাইটির সকলস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং যুব স্বেচ্ছাসেবকরা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও সোসাইটির জাতীয় সদর দপ্তরস্থ মসজিদে দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।

 

দারুল উলুম আলিয়া মাদরাসায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন ও
জাতীয় শিশু দিবস উপদযাপন

চট্টগ্রাম দারুল উলুম আলিয়া মাদরাসার উদ্যোগে অদ্য ১৭মার্চ সকাল সাড়ে ১০টায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্ম বার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান মাদরাসা মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন উপলক্ষ্যে শিশু-কিশোরদের চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনীর উপর রচনা প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মাওলানা মাহবুবুল আলম ছিদ্দিকী। আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক শওকত ওসমান চৌধুরী, অধ্যাপক লিয়াকত আখতার ছিদ্দিকী, বাংলা প্রভাষক মুহাম্মদ আবুল কাশেম, জামিল উদ্দিন আহমেদ, মাওলানা মাহবুবুর রহমান, মুহাম্মদ সোহায়েল, হাফেজ জিয়াউল হক, রিজওযানুল করিম, মঈন উদ্দিন, হুসাইন মুহাম্মদ ইউসুফ ও শাহীন জান্নত প্রমুখ।
আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্থপতি শ্রেষ্ট বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম না হলে বাংলাদেশ নামক মানচিত্রও আমরা পেতাম না। ‘বঙ্গবন্ধু কেবল বাঙালি জাতির নন; বিশ্বে নির্যাতিত, নিপীড়িত ও শোষিত মানুষের স্বাধীনতার প্রতীক এবং মুক্তির দূত। আমাদের পরম সৌভাগ্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মতো একজন কালজয়ী নেতাকে পেয়েছি। বাংলাদেশের ইতিহাসের যুগ সন্ধিক্ষণে তাঁর অনন্য নেতৃত্ব আমাদের মুক্তির সংগ্রামের বিজয় এনে দিয়েছিল।
আলোচনা সভা শেষে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ছড়িয়ে দিতে হবে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের মাঝে

নর্দান পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও জাতীয় শিশু দিবসের অনুষ্ঠানে বক্তারা

আশেকানে আউলিয়া ডিগ্রি কলেজের মনোবিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. মো. মোজাহেরুল আলম বলেছেন, প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ছড়িয়ে দিতে হবে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের মাঝে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শিশুদেরকে অনেক ভালবাসতেন। তিনি আরো বলেন, শিশুদের পাঠ্যবইয়ে বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনী ভালভাবে তুলে ধরতে হবে এবং সারা বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণ, পাঠাগার নির্মাণ, ধাতব্য চিকিৎসা কেন্দ্র নির্মাণ করলে পরবর্তী প্রজন্ম এদের জীবনী সম্মন্ধে জানার আগ্রহ জাগবে। বক্তারা চট্টগ্রামে বঙ্গবন্ধু নামে একটি স্মৃতি কমপ্লেক্স স্থাপন করার জোর দাবি জানান এবং নতুন প্রজন্মকে এ ধরনের মহান নেতাদের সংগঠনে সম্পৃক্ত হয়ে দেশসেবায় নিজেদের নিয়োজিত করার আহ্বান জানান। ১৭ মার্চ নগরীর মুরাদপুরস্থ নর্দান স্কুল পাবলিক এন্ড কলেজের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও জাতীয় শিশু দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ আহ্বান জানান। প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ প্রফেসর জালাল উদ্দিন সায়েম এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা যুবলীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক এবং আলহাজ্ব নাজিম উদ্দিন স্মৃতি সংসদ চট্টগ্রামের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল আলম হেলাল, আওয়ামীলীগ নেতা আবদুল হান্নান হীরা, সাংবাদিক রেজাউল করিম কায়সার প্রমুখ। অনুষ্ঠানের শুরুতে শিক্ষক-শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও অতিথিদের অংশগ্রহণে জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে সূচিত অনুষ্ঠানে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত করেন ফাহিম হাসান। অনুষ্ঠানে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে আয়োজিত মোট ৩০টি ইভেন্টে বিজয়ী শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। অনুষ্ঠানের ২য়পর্বে শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে জাতির জনকের জন্মদিন উপলক্ষ্যে বিভিন্ন সংগীত, কবিতা, নৃত্য ও একক গান পরিবেশন করা হয়। অনুষ্ঠানের সঞ্চালনায় ছিলেন কো-অডিনেটর মো. মাসুদ পারভেজ চৌধুরী।

 

রাউজানে বঙ্গবন্দ্বুর জম্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস পালিত
শফিউল আলম, রাউজান ঃ জাতির জনক বঙ্গবন্দ্বু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জম্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে রাউজান উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বিশাল আনন্দ র‌্যালী বের করা হয় । গতকাল ১৭ মার্চ শনিবার সকালে রেলপথ মন্ত্রনালয় সর্ম্পকিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবি এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপির নেতৃত্বে বিশাল আনন্দ র‌্যালী রাউজান উপজেলা সদরে প্রদিক্ষন শেষে রাউজান উপজেলা মুক্তিযোদ্বা স্মৃতি কমপ্লেক্স ভবনের সামনে বঙ্গবন্দু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুস্প স্তবক অর্পন করা হয় । পুস্প স্তবক অর্পন শেষে উপজেলা পরিষদ মাঠে রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার শামীম হোসেন রেজার সভাপতিত্বে ও সাজু পালিতের সঞ্চালনায় আলোচনা সভা অনুষ্টিত হয় । আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন রেলপথ মন্ত্রনালয় সর্ম্পকিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবি এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি। এতে আরো উপস্থিত ছিলেন রাউজান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এহেসানুল হায়দার বাবুল, রাউজান উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কামাল উদ্দিন আহম্মদ,উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফৌজিয়া খানম মিনা, রাউজান উপজেলা সহকারী কমিশনার ভুমি জোনায়েদ কবির সোহাগ, রাউজান পৌরসভার প্যানেল মেয়র বশির উদ্দিন খান, চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম, আবদুর রহমান চৌধুরী, নুরুল আবছার বাশিঁ, সুকুমার বড়–য়া, বিএম জসিম উদ্দিন হিরু,আবদুল জব্বার সোহেল, রাউজান পৌরসভার কাউন্সিলর আলমগীর আলী, কাজী ইকবাল, জানে আলম জনি, জমির উদ্দিন পারভেজ. এডভোকোট সমীর দাশ গুপ্ত, এডভোকেট দিলিপ কুমার চৌধুরী, আজাদ হোসেন প্রমুখ । জাতির জনক বঙ্গবন্দ্বু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জম্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে শিশুদের চিত্রাংকন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয় ।
রাউজান পৌরসভা
জাতির জনক বঙ্গবন্দ্বু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জম্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে রাউজান পৌরসভার উদ্যোগে কেক কোটা হয় । রাউজান পৌরসভার প্যানের মেয়র বশির উদ্দিন খানের সভাপতিত্বে রাউজান পৌরসভা কার্যলয়ে আলোচনা সভা অনুষ্টিত হয় । আলেচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন রাউজান পৌরসভার কাউন্সিলর আলমগীর আলী, কাজী ইকবাল, জানে আলম জনি, জমির উদ্দিন পারভেজ. এডভোকোট সমীর দাশ গুপ্ত, এডভোকেট দিলিপ কুমার চৌধুরী, আজাদ হোসেন, মহিলা কাউন্সির জান্নাতুল ফেরদৌস ডলি, নাসিমা আকতার প্রমুখ।
রাউজান উপজেলা আওয়ামী লীগ
জাতির জনক বঙ্গবন্দ্বু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জম্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে রাউজান উপজেলা আওয়ামী লীগ, উপজেলা যুবলীগ, ছাত্রলীগের উদ্যোগে বঙ্গবন্দ্বু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পন করা হয় । পরে কেক কোটার মাধ্যমে জম্মদিনের সুচনা করা হয় । রাউজান উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কামাল উদ্দিন আহম্মদের সভাপতিত্বে উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সম্পাদক রাউজান পৌরসভার প্যানেল মেয়র বশির উদ্দন খানের সঞ্চালনায় অনুষ্টিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন রেলপথ মন্ত্রনালয় সর্ম্পকিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবি এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি। এতে আরো উপস্থিত ছিলেন রাউজান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এহেসানুল হায়দার বাবুল, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফৌজিয়া খানম মিনা। উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আনোয়ারুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক পৌর কাউন্সিলর আলমগীর আলী, আওয়ামী লীগ নেতা পৌর কাউন্সিলর কাজী ইকবাল, আওয়ামী লীগ নেতা নজরুল ইসলাম চৌধুরী, নুরুল ইসলাম শাহাজাহান, সাইফুল ইসলাম চৌধুরী রানা, চয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম, আবদুর রহমান চৌধুরী, নুরুল আবছার বাশিঁ, সুকুমার বড়–য়া, বিএম জসিম উদ্দিন হিরু,আবদুল জব্বার সোহেল, রাউজান পৌরসভার কাউন্সিলর আলমগীর আলী, কাজী ইকবাল, জানে আলম জনি,. এডভোকোট সমীর দাশ গুপ্ত, এডভোকেট দিলিপ কুমার চৌধুরী, আজাদ হোসেন রাউজান উপজেলা যুবলীগের সভাপতি পৌর কাউন্সিলর জমির উদ্দিন পারভেজ, উপজেলা যুবলীগের সহ সভাপতি মফজ্বল আহম্মদ, সারজু মোহাম্মদ নাসের, যুগ্ন সম্পাদক আহসান হাবিব চৌধুরী, জাহাঙ্গীর আলম, রাউজান পৌরসভা যুবলীগের সভাপতি হাসান মোহাম্মদ রাসেল, সাধারন সম্পাদক রোকন উদ্দিন, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জিল্লুর রহমান মাসুদ, সাধারন সম্পাদক সাথাওয়াত হোসেন পিপলু, পৌরসভা ছাত্রলীগের সভাপতি অনুপ চক্রবর্তী, সাধারন সম্পাদক আশিফ প্রমুখ ।
ছবির ক্যাপশনঃ সেন্ট্রাল বয়েজ অব রাউজানের উদ্যোগে রাউজানে ৭ হাজার শিক্ষার্থীদের মধ্যে শিক্ষা সামগ্রী বিতরন করছেন এবি এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি
সেন্ট্রাল বয়েজ অব রাউজানের উদ্যোগে রাউজানে ৭ হাজার শিক্ষার্থীদের মধ্যে শিক্ষা সামগ্রী বিতরন অনুষ্টানে ফজলে করিম চৌধুরী এমপি
সেন্ট্রাল বয়েজ অব রাউজান রাউজানে শিক্ষার মান উন্নয়নে কাজ করছে
শফিউল আলম, রাউজান ঃ সেন্ট্রাল বয়েজ অব রাউজান রাউজানে শিক্ষার মান উন্নয়নে কাজ করছে । রাউজানের সমাজ সেবী সংগঠন সেন্ট্রাল বয়েজ ক্লাব রাউজানের প্রাথমিক বিদ্যালয় ও উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মাদ্রাসার ৭ হাজার শিক্ষার্থীকে ১৫ লাখ টাকা ব্যয়ে শিক্ষা সামগ্রী প্রদান করেন । গতকাল ১৭ মার্চ শনিবার দুপুরে রাউজান এক এম ফজললু কবির চৌধুরী অডিটিরিায়াম হলে সংগঠনের প্রধান পুষ্টপোষক সাইফুল ইসলাম চৌধুরী রানার সভাপতিত্বে ও মাকসুদুল আলম সুমনের সঞ্চালনায় অনুষ্টিত শিক্ষা সামগ্রী বিতরন অনুষ্টানে প্রধান অতিথি রেলপথ মন্ত্রনালয় সর্ম্পকিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবি এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি তার বক্তব্যে বলেন, সেন্ট্রাল বয়েজ অব রাউজান রাউজানে শিক্ষার মান উন্নয়নে কাজ করছে ।রাউজানের ছেলে মেয়েদের সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে তোলার মাধ্যমে রাউজানের ছেলে মেয়েদের দেশের যোগ্য নাগরিক হিসাবে গড়ে তোলার কাজে সেন্ট্রাল বয়েজ অব রাউজান এর কাজ অনুসরণ করে রাউজানের বিভিন্ন সংগঠন দেশের কল্যানে কাজ করলে রাউজান উপজেলা একটি মডেল উপজেলা হিসাবে গড়ে উঠবে । অনুষ্টানের উদ্বোধক হিসাবে উপস্থিত ছিলেন দৈনিক পুর্বকোন লিমিটেডের চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন চৌধুরী, অনুষ্টানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন রাউজান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এহেসানুল হায়দার বাবুল, রাউজান পৌরসভার প্যানেল মেয়র বশির উদ্দিন খান, সেন্ট্রাল বয়েজ অব রাউজানের উপদেষ্টা ব্যবসায়ী আলহাজ্ব ফরহাদ গনী চৌধুরী নয়ন, শিক্ষা সামগ্রী বিতরন অনুষ্টানে স্বাগত্ব বক্তব্য প্রধান করেন সেন্ট্রাল বয়েজ অব রাউজানের সভাপতি সাইদুল ইসলাম ।

ছবির ক্যাপশনঃ রাউজান সুলতানপুর শরীফ পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক পুরস্কার বিতরনী অনুষ্টানে বক্তব্য রাখছেন এবি এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি

রাউজান সুলতানপুর শরীফ পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক পুরস্কার বিতরনী সভা অনুষ্টিত
শফিউল আলম, রাউজান ঃ রাউজান সুলতানপুর শরীফ পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক পুরস্কার বিতরনী সভা অনুষ্টিত হয় । স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব আহসান হাবিব চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা নিবেদিতা দে এর সঞ্চালনায় অনুষ্টিত বার্ষিক পুৃরস্কার বিতরনী সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন রেলপথ মন্ত্রনালয় সর্ম্পকিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবি এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি। এতে আরো উপস্থিত ছিলেন রাউজান উপজেলা চেয়ারম্যান এহেসানুল হায়দার বাবুল, মুক্তিযোদ্বা তোফায়েল আহম্মদ, পৌর কাউন্সিলর এডভোকেট সমীর দাশ গুপ্ত, সাইফুল ইসলাম চৌধুরী রানা, ব্যবসায়ী ফরহাদ গনী চৌধুরী নয়ন, আবুদল মন্নান সওদাগর প্রমুখ

আশেকানে আউলিয়া ডিগ্রী কলেজ

 

আশেকানে আউলিয়া ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ নূর মোহাম্মদ আনছারী বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্ম বলেই আজ এই বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধুর ব্যক্তিত্ব ও নির্ভীকতা দিয়ে হিমালয়ের মত বিশাল মাপের একজন মহা নায়কের স্থান দখল করে নিয়েছিল। আর বঙ্গবন্ধু মুজিব জন্ম গ্রহন না করলে পৃথিবীর মানচিত্রে বাংলাদেশ নামক কোন রাষ্ট্রের সৃষ্টি হত না। তাই অবিলম্বে মুজিব হত্যাকারীদের বিচারের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। আশেকানে আউলিয়া ডিগ্রী কলেজে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মবার্ষিকীর ও জাতীয় শিশু-কিশোর দিবসের আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে এ দাবি জানান। অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ পরিবারের সকল সদস্য, স্বাধীনতা যুদ্ধে ভাষা আন্দোলনে সকল শহীদদের আত্মার মাগফেরাত এবং কলেজেরে সভাপতি সংসদ সদস্য মঈনুদ্দিন খান বাদল এমপি’র আশু রোগ মুক্তি কামনা করে দোয়া ও মুনাজাত করা হয়। কলেজের মনোবিজ্ঞাপন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. মো. মোজাহেরুল আলমের সঞ্চালনায় বঙ্গবন্ধুর দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনের কীর্তিময় দিনের উপর আলোকপাত করে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে অধ্যাপকদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, জোবাইদা খাতুন, নুরুল আজম, মুহাম্মদ খালেদ, সৈয়দ মুহাম্মদ মহিউদ্দিন, মো. খালেদ, মিলটন রায় চৌধুরী, সাইফুল ইসলাম চৌধুরী, মুহাম্মদ তাজুল ইসলাম চৌধুরী, কাজী আজিজা বেগম, নাসিরন বেগম, আলহামরা পারভীন, জিন্নাত আরা চৌধুরী, রক্তিম বড়–য়া, অসীম বড়–য়া ও মোহাম্মদ আলী প্রমুখ। পরিশেষে কেক কেটে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মদিন উদ্যাপন করা হয়।

বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতা স্মৃতি পরিষদ

বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতা স্মৃতি পরিষদের আয়োজনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৯৯ তম জন্মদিন ১৭ মার্চ ২০১৮ খ্রি. শনিবার, দুপুরে সরকারি ন্যাশনাল প্রাইমারি স্কুলে শিশু সমাবেশ, শিক্ষাবৃত্তি প্রদান, বিতর্ক ও বক্তৃতা প্রতিযোগিতা, কেক কাটা, মুক্তিযুদ্ধের বই এবং মিষ্টি বিতরণ কর্মসূচির মধ্য দিয়ে পালিত হয়। এ কর্মসূচিতে ২শতাধিক শিশু-কিশোর শিক্ষার্থী অংশগ্রহন করেন। এ উপলক্ষে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি প্রফেসর ড. জিনবোধি ভিক্ষু। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক চন্দন ধর। আলোচনা করেন বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতা স্মৃতি পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক মো. আবদুর রহিম, ২১নং জামালখান ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি আবুল হাসেম বাবুল, সংগঠনের সহ সভাপতি ডা. জামাল উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক আসিফ ইকবাল, মোরা পত্র লেখক সমিতির সভাপতি কাজল দাশ, সংগঠনের অন্যতম সম্পাদক রাশেদ মাহমুদ পিয়াস, ন্যাশনাল প্রাইমারি স্কুলের প্রধান শিক্ষক বদরুনেসা, আইন কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মাকসুদুর রহমান মাকসুদ, অত্র কলেজ ছাত্র সংসদের জিএস জাফর আলম রবিন, বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতা স্মৃতি পরিষদের আজিম উদ্দিন, মো. ইয়াছিন, গাজী মো. জুনায়েত। অনুষ্ঠানে চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী তানিয়া আক্তার, ৬ষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী তানজিনা আক্তার ও ফারজানা আক্তারকে শিক্ষাবৃত্তি এবং উপস্থিত ২শত জন শিক্ষার্থীর হাতে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের উপর লেখা বই উপহার হিসেবে প্রদান করা হয়। এ ছাড়াও শুরুতে মিলাদ মাহফিল ও মুনাজাত, কেক কাটা এবং মিষ্টি বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে বক্তৃতা ও বিতর্ক প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহনকারীদের পুরস্কৃত করা হয়। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক চন্দন ধর বলেন, শিশুদের প্রতি বঙ্গবন্ধুর মমতা ছিল অপরিসীম। তাই তাঁর জন্মদিনটি জাতীয় শিশু দিবস। তিনি বলেন, জাতির পিতার স্মরণে শিশুরা উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ গড়ে তুলবে। সভাপতির বক্তব্যে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাচ্য ভাষা বিভাগের সভাপতি প্রফেসর ড. জিনবোধি ভিক্ষু বলেন, সরকার জাতির পিতার জীবন ও কর্ম ভিত্তিক বই পাঠ্যপুস্তক হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করে বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। তিনি বলেন, শিশুদের মনে দেশপ্রেম জাগ্রত করে তাদের ব্যক্তিত্ব গঠন, সৃজনশীলতার বিকাশ এবং আত্মবিশ্বাসী করে গড়ে তুলতে একযোগে কাজ করতে হবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশ ও জাতির পিতার সংগ্রামী জীবনের প্রকৃত ইতিহাস শিশু-কিশোরদের জানাতে হবে।

ফিরিঙ্গী বাজার ওয়ার্ড যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ ও ছাত্রলীগের উদ্যোগে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকী পালন

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ফিরিঙ্গীবাজার ওয়ার্ড যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ ও ছাত্রলীগ এর উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান, ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ, কেক কাটা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত আলোচনা সভায় মহানগর যুবলীগ সদস্য খোরশেদ আলম রহমানের সভাপতিত্বে ও মহানগর ছাত্রলীগ নেতা অনিন্দ্য দেবের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ৩৩নং ফিরিঙ্গীবাজার ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলহাজ¦ হাসান মুরাদ বিপ্লব। এতে আরো বক্তব্য রাখেন, ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ নেতা হাজী মোঃ ইমরান কাদের, হাজী নাছির আহমেদ, সাবেক ছাত্রনেতা তাজউদ্দিন রিজভী, মহানগর যুবলীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম, নগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আবদুল আজিজ, এনামুল হক, আবদুল মতিন, তারাপদ দাশ, যুবনেতা হুমায়ুন মোর্শেদ শাকিল, মোঃ মাসুম, জামাল উদ্দিন মাসুম, মিজানুর রহমান জসিম, সৈয়দুল ইসলাম, আবদুল গফুর সুমন, সাবেক ছাত্রনেতা মুগ্ধ সেন, যুবলীগ নেতা মোঃ জাবেদ, তামজীদ হোসাইন, ছাত্রনেতা সৌমন্য চক্রবর্ত্তী আকাশ, এজাজুল হক এজাজ প্রমুখ।
প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, বঙ্গবন্ধু আজীবন লালিত স্বপ্ন ছিল এই বাঙালি জাতিকে স্বাধীনতা এবং অর্থনৈতিক মুক্তি এনে দেওয়ার জন্য। একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধে বাঙালি জাতি বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে স্বাধীনতার স্বাদ পেলেও ১৫ আগষ্ট কালরাত্রিতে বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যার মধ্য দিয়ে অর্থনৈতিক মুক্তি আসেনি। কিন্তু বর্তমান বঙ্গবন্ধু সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ ও বিচক্ষণ নেতৃত্বে দেশ আজ উন্নয়নের শিখরে পৌঁছে বিস্ময়ের জন্ম দিয়েছেন। আজ জাতিসংঘের ঘোষণায় বাংলাদেশ এখন উন্নয়নশীল রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। তাই আমাদের সবাইকে সজাগ থেকে আগামী নির্বাচনে নৌকা প্রতিককে জয় করতে হবে।

 

বিজয়’৭১ ও জয় বাংলা ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্যোগে
জাতির জনকের জন্মদিন ও শিশু দিবস পালিত

স্বাধীনতার স্বপক্ষের সংগঠন বিজয়’৭১ ও জয় বাংলা ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্যোগে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮ তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস পালিত হয়। বিজয়’৭১ এর সভাপতি পরিমল দত্তের সভাপতিত্বে ও বিজয়’৭১ এর সাংগঠনিক সম্পাদক ডাঃ রাজীব চক্রবর্ত্তী’র সঞ্চালনায় জয় বাংলা ফাউন্ডেশনের প্রধান ট্রাস্টি এম.এ. ওমর ফারুক সিকদারের মুখ্য আলোচনায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিজয়’৭১ এর প্রধান সমন্বয়ক সাংস্কৃতিক সংগঠক সজল চৌধুরী, বিজয়’৭১ এর সাধারণ সম্পাদক ডাঃ আর.কে রুবেল, মহানগর যুবলীগ নেতা সুমন দেবনাথ, উত্তর জেলা জাসদ সভাপতি ভানু রঞ্জন চক্রবর্ত্তী, মুক্তিযোদ্ধা অমর কান্তি দত্ত, অধ্যক্ষ রতন দাশ গুপ্ত, প্রকৌশলী টিকে সিকদার, শিক্ষিকা নিলা বোস, জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক পার্টি চট্টগ্রাম মহানগর আহ্বায়ক সোনিয়া সালাম, আবুল কাশেম চৌধুরী, আবদুল মজিদ, ফয়সাল, ডাঃ এস.কে পাল সুজন, পলি আক্তার। সভায় বক্তারা বলেন, বঙ্গবন্ধুর এই শুভ জন্মদিনে তাঁর স্বপ্ন বাস্তবায়নের যোগ্য উত্তরসূরী বঙ্গকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নে ও শিশু দিবসের শুভ কামনা করা হয়।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মদিন ও জাতিয় শিশু দিবস উপলক্ষে প্রগতিশীল সচেতন ছাত্র যুব সমাজের উদ্যোগে মেধাবী যুব সংগঠক মহানগর আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য মো. জসিম উদ্দিনের সভাপতিত্বে ও পংকজ রায় ও রাকিব আহমদ চৌধুরীর যৌথ পরিচালনায় সংগঠনের অস্থায়ী কার্যালয়ে আলোচনা সভা ও কেক কাটা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক ও চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের বোর্ড সদস্য কে.বি.এম শাহজাহান উপরোক্ত মন্তব্য করেন। তিনি আরো বলেন, ১৯২০ সালে রতœগর্ভা টুঙ্গিপাড়ায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মের মাধ্যমে আল্লাহ যেন, বাঙালী জাতির ভাগ্য নির্ধারণের ধারাবাহিকতায় ধীরে ধীরে বেড়ে উঠা সেই দামাল ছেলে বাঙালী জাতিকে পরাধীনতা থেকে মুক্ত করতে মেধা ও সৎ সাহসকে সম্মুত করে সময়ের সঠিক সিদ্ধান্তের মাধ্যমে বাঙালীর আপাময় জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রকারীদের বিরোদ্ধে তাঁহার মেধা ও ত্যাগের সমন্বয়ে বাঙালী জাতিকে স্বাধীন সার্বভৌমত্ব রাষ্ট্র উপহার দেয়িছেন। তিনি স্বপ্ন দেখেছেন তাঁহার স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণ করে জাতির মুখে হাঁসি ফুটানোর আগে ষড়যন্ত্রকারীরা ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু সহ স্বপরিবার হত্যার মাধ্যমে মহান স্বাধীনতাকে কুলশিস করার ষড়যন্ত্র বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে প্রতিহত করে সরকার গঠন করে যে উন্নয়নের ধারা বাহিকতায় ২০২১ ভিশন এবং ৪১ সালে সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ গড়ার যে স্বপ্ন এবং গণতন্ত্র ও সংবিধানকে সমুন্বত রাখতে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আগামী নির্বাচনে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করার লক্ষ্যে প্রগতিশীল সচেতন ছাত্র ও যুব সমাজকে ভ্যানডাগের ভূমিকা পালন করার উদ্যাত্ত আহ্বান জানান।
উক্ত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য মনোয়ার জাহান মনি, দেলোয়ার হোসেন ফরহাদ, আজগর আলী, বেলাল হোসেন, সাধন দে, এস.এম নাছির উদ্দিন, শওকত আকবর রাশেদ, লোকমান হোসেন, মো. আমিন, মো. মনি, মোজাম্মেল হক মানিক, এম.এইচ. মানিক, সুমন সেন, ইলিয়াছ খান মিলন, সাহাদাত হোসেন রনি, গিয়াস উদ্দিন রিফাত, মো. ফয়সাল, মো.্ আসিফ, শাহজাহান রুবেল, মো. আমিন, মো. সুমন, মো. আমির হোসেন, ধীমান সেন, মোহাম্মদ হেলাল, ইসমে আজম আসিফ প্রমুখ।

 

বঙ্গবন্ধুর ৯৯তম জন্মদিনে কেক কেটে
জাতির জনকের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন

আজ ১৭ মার্চ বেলা ১২ ঘটিকায় দারুল ফজল মার্কেটস্থ দলীয় কার্যালয়ে কোতোয়ালী থানা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর ৯৯তম জন্মদিনে কেক কেটে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনকের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয় এবং সংক্ষিপ্ত পরিসরে এক সভা সংগঠনের সভাপতি আলহাজ্ব ফিরোজ আহমদের সভাপতিত্বে সাধারণ সম্পাদক আবুল মনসুরের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত হয়। এসময় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সংগঠনের সহ-সভাপতি জাগির উদ্দিন সর্দার, মোঃ মুজিবুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক টিংকু বড়–য়া, আশফাক আহমদ, পীযুষ বিশ্বাস, সাংগঠনিক সম্পাদক মিথুন বড়–য়া, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য মোঃ আনিস মিয়া, মোঃ নাসির উদ্দিন, তারেক ইমতিয়াজ ইমতু, আবু বক্কর বক্কু, এড. মহিবুল্লাহ চৌধুরী, থানা আওয়ামীলীগ নেতা লিয়াকত আলী, মোঃ সাজ্জাতুর রহমান, মাস্টার জসিম উদ্দিন, দীপক ভট্টাচার্য, আফসার উদ্দীন, ফজলে আজিজ বাবুল, মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, রাশেদ হোসেন, কাইছার উদ্দিন প্রমুখ।

 

ফিরিঙ্গী বাজার ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিপ্লব এর উদ্যোগে
জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকী পালন

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশুদিবস উপলক্ষে ফিরিঙ্গীবাজার ওয়ার্ড কাউন্সিলর এর উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান, মাইকে ঐতিহাসিক ভাষন প্রচার, ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ, কেক কাটা সহ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন ৩৩নং ফিরিঙ্গীবাজার ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলহাজ¦ হাসান মুরাদ বিপ্লব। এতে উপস্থিত ছিলেন রাখেন, ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ নেতা হাজী মোঃ ইমরান কাদের, হাজী নাছির আহমেদ, মহানগর যুবলীগ সদস্য খোরশেদ আলম রহমান, সাবেক ছাত্রনেতা তাজউদ্দিন রিজভী, মহানগর যুবলীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম, নগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আবদুল আজিজ, এনামুল হক, আবদুল মতিন, তারাপদ দাশ, যুবনেতা হুমায়ুন মোর্শেদ শাকিল, মোঃ মাসুম, জামাল উদ্দিন মাসুম, মিজানুর রহমান জসিম, সৈয়দুল ইসলাম, আবদুল গফুর সুমন, সাবেক ছাত্রনেতা মুগ্ধ সেন, মহানগর ছাত্রলীগ নেতা অনিন্দ্য দেব, যুবলীগ নেতা মোঃ জাবেদ, তামজীদ হোসাইন, ছাত্রনেতা সৌমন্য চক্রবর্ত্তী আকাশ, এজাজুল হক এজাজ প্রমুখ।

প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, বাঙালি জাতির অধিকার আদায়ে বঙ্গবন্ধু ছিলেন অবিসাংবাদিত ও অসামান্য এক ব্যক্তিত্বের অধিকারী। তিনি হয়েছেন বাংলার ইতিহাসের রাখাল রাজা। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে এই বাঙালি জাতি পেয়েছিল তার স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব একটি রাষ্ট্র। তিনি শিশুদের উদ্যেশ্যে আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু শিশুদের অত্যন্ত ভালবাসতেন। শত ব্যস্ততার মাঝেও শিশুদের অধিকার নিয়ে ভাবতেন, শিশুদের সুন্দর ভবিষ্যত ও সুখী সমৃদ্ধ বাংলাদেশ এবং শিশুদের নিরাপদ আশ্রয় ভূমি গড়ার লক্ষে তিনি কাজ করে গেছেন। কিন্তু ১৯৭৫ সালে কালরাত্রিতে বিদেশী ষড়যন্ত্র ও পাকিস্তানি দালালদের গভীর চক্রান্তে বঙ্গবন্ধু স্বপরিবারে হত্যা করার মধ্য দিয়ে সে স্বপ্ন ধূলিসাৎ হয়। বর্তমানে তারই সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে একটি আধুনিক তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর বাংলাদেশ উপহার দিতে কাজ করে যাচ্ছেন।

শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন বাঙালি জাতির মুক্তির দিশারী
যুবলীগের আলোচনা সভায় নেতৃবৃন্দ

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন বাঙালি জাতির মুক্তির দিশারী। তিনি তাঁর জীবদর্শায় সবসময় বাঙালি জাতির অধিকার আদায়ের সংগ্রাম করে গেছেন। তিনি বাঙালি জাতির উদ্দেশ্যে ঐতিহাসিক সরওয়ার্দী উদ্যোগে বলেছিলেন, “আমি প্রধানমন্ত্রীত্ব চাই না, বাঙালির অধিকার চাই। ৫২‘র ভাষা আন্দোলন থেকে ৫৪‘র যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন, ৬২’র শিক্ষা আন্দোলন, ৬৬‘র ছয়দফা আন্দোলন, ৬৯‘র গণ অভ্যুত্থান, ৭১’র স্বাধীনতা সংগ্রামসহ সকল আন্দোলনে বঙ্গবন্ধুর ভূমিকা ছিল অপরিসীম। তার নেতৃত্বেই বাঙালি জাতি ৭১-এ চূড়ান্ত বিজয় লাভ করে। বঙ্গবন্ধু রাতারাতি বঙ্গবন্ধু হন নি। টুঙ্গিপাড়ার মেটোপথে বঙ্গবন্ধুর জন্ম হয়েছিল বলেই বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল। তিনি জীবনের প্রতিটি ধাপে ধাপে অন্যায়ের বিরুদ্ধে, শোষণকারীদের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করতে করতে বাঙালির হৃদয়ে রাজা হয়েছেন। তিনি জন্মেছিল বলেই জন্মেছে বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল শোষণমুক্ত স্বনির্ভর সোনার বাংলা গড়া। তিনি আজ আমাদের মাঝে নেই। কিন্তু তাঁর আদর্শ আমাদের মাঝে আছে। যুবলীগের নেতাকর্মীরা যদি বঙ্গবন্ধু’র আদর্শকে ধারণ করে সাধারণ মানুষের সুখে দুঃখে তাদের পাশে থাকে তাহলেই বঙ্গবন্ধুর আত্মা শান্তি পাবে। বাংলাদেশ যদি উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত হয়, তবেই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়ণ হবে। জাতির জনক বেঁচে থাকলে অনেক আগেই বাংলাদেশ হত উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ। ৭৫‘র কালোরাত্রিতে বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যা করার পর বাঙালি জাতির উন্নয়নের অগ্রগতি থমকে দাড়িয়েছিল। বর্তমানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ২০৪১ সালে বাংলাদেশকে উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত করতে যুবলীগের নেতাকর্মীদের ভ্যানগার্ডের দায়িত্ব পালণ করতে হবে। উক্ত বক্তব্যগুলো চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের উদ্যোগে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮ তম জন্মাবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় নেতৃবৃন্দ বলেছেন। চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক মো: মহিউদ্দিন বাচ্চু’র সভাপতিত্বে চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক দেলোয়ার হোসেন খোকা’র সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক ফরিদ মাহমুদ, মাহবুবুল হক সুমন, আহ্বায়ক কমিটির সদস্য এড. আনোয়ার হোসেন আজাদ, সাইফুল ইসলাম, একরাম হোসেন, আঞ্জুমান আরা আনজু, মাহাবুব আলম আজাদ, সাখাওয়াত হোসেন স্বপন, মাসুদ রেজা, আবু সাঈদ জন, রওশন উদ্দিন, অধ্যাপক কাজী মুজিবুর রহমান, এস এম সাঈদ সুমন, শহীদুল ইসলাম শামীম, ছালেহ আমদ ডিগল, ছাবের আহমদ, আবদুল আজিম, খোকন চন্দ্র তাঁতী, শেখ নাছির আহম্মদ, ওয়াসিম উদ্দিন, সনত বড়–য়া, আবু বক্কর ছিদ্দিকী, দেলোয়ার হোসেন দেলু, আজিজ উদ্দিন, ইকবাল ইকরাম শামীম, এস এম ফারুক, কফিল উদ্দিন, কাজল প্রিয় বড়–য়া, শাকিল হারুন, হোসেন সরওয়ার্দী সরওয়ার, ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি/সাধারণ সম্পাদকের মধ্যে তারেক ইমতিয়াজ ইমতু, অমল সেন, হাজী আবদুল মান্নান, নজরুল ইসলাম আবদুল ওয়াজেদ রাজীব, শাহীন সরওয়ার, আতিক উল্লাহ, আহমেদ আবদুর রহিম, সালাউদ্দিন, সাজু বিশ্বাস, জামাল উদ্দিন রাজু প্রমুখ। সভার শুরুতে দলীয় কার্যালয়ে স্থাপিত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয় ও সভার শেষ প্রান্তে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে বিশাল কেক কেটে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মাঝে বিতরণ করা হয়।

 

জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’র
জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস পালিত

চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভা ১৭ মার্চ শনিবার সংগঠনের সভাপতি নমিতা আইচ এর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদিকা রেখা আলম চৌধুরীর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত হয়। এতে আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন সংগঠনের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক চসিক কাউন্সিলর আন্জুমান আরা বেগম, নবুয়ত আরা সিদ্দিকা রকি, সাংগঠনিক সম্পাদক লুচি চৌধুরী, প্রচার সম্পাদিকা রুমা দাশ, জেসমিন আক্তার জেসি, সেলিনা আফরোজ, নুর আক্তার জেবু, রোকেয়া বেগম, মিলি চৌধুরী, কবিতা বিশ্বাস, দিপ্তী মজুমদার, রুমকি সেনগুপ্তা, শিপ্রা দাশ, নাসরিন রসুল, ফাতেমা আক্তার, পেয়ারা বেগম, তাসলিমা আক্তার, মনি আক্তার প্রমুখ।
সভায় বক্তারা বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে এদেশ কোন দিন স্বাধীন হত না। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শিশুকাল থেকে মানবতার কল্যাণে এদেশে কাজ করে গেছেন। বাঙালি জাতির স্বপ্নপূরণে ১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে দেশ স্বাধীন না হওয়া পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু দেশের মানুষের জন্য নিরঙ্কুশভাবে কাজ করে গেছেন। ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ৯ মাস যুদ্ধ শেষে পাক বাহিনীর কাছ থেকে দেশ স্বাধীন করলেও জামায়াত-শিবিরচক্র বঙ্গবন্ধু হত্যা করে এক কালো অধ্যায় রচনা করে। বর্তমানে বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কণ্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া পর্যন্ত উন্নয়ন কাজ করে যাচ্ছেন। উন্নয়নের এই ধারা অব্যাহত রাখতে আওয়ামী লীগ সরকারের বিকল্প নেই