বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ককটেল বিস্ফোরণ

প্রকাশ:| শনিবার, ৭ ফেব্রুয়ারি , ২০১৫ সময় ১১:৪৭ অপরাহ্ণ

বিএনপি-জামায়াত নেতৃত্বাধীন ২০দলীয় জোটের টানা ৭২ ঘণ্টা হরতাল শুরুর আগের রাতে বন্দরনগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে দুর্বৃত্তরা।

শনিবার রাত ৮টা থেকে সাড়ে ৮টার মধ্যে এসব ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হয়।

শনিবার সন্ধ্যা ৭টায় নগরীর আলমাস সিনেমা হল এলাকা থেকে ১৮টি ককটেলসহ এক যুবককে আটক করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। তবে আটক হওয়া যুবকের পরিচয় জানা যায়নি।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, নগরীর নিউমার্কেট, ২নং গেইট, বহদ্দার হাট, আগ্রাবাদ, টাইগার পাস, ইপিজেড, বড়পুল, একে খান গেটসহ বিভিন্ন এলাকায় ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হয়।

শনিবার রাত ৮টার দিকে ককটেল হামলায় নিউমার্কেট এলাকায় মো. আবদুল কাদের (২৮) নামে এক যুবক আহত হন। আহত আব্দুল কাদেরকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তিনি রাউজানের সুলতানপুর গ্রামের আশরাফুল ইসলামের ছেলে।

চমেক হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়িতে দায়িত্বরত এসআই জহির জানান, বাসে ওঠার সময় আবদুল রাতে ককটেল বিস্ফোরণ কাদেরকে লক্ষ্য করে ককটেল ছুড়ে মারা হলে তিনি ডান পায়ে আঘাত পান।

এদিকে শনিবার সন্ধ্যায় পতেঙ্গার কাটগড় এলাকায় একটি বাসে দুর্বৃত্তরা অগ্নিসংযোগ করেছে বলে খবর পাওয়া গেছে । তবে ফায়ার সার্ভিস এ ব্যাপারে কিছু জানাতে পারেনি।

এছাড়া শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে নগরীর পাঁচলাইশ থানার ষোলশহর এলাকার ফসিল ফিলিং স্টেশনের সামনে থেকে চারটি অবিস্ফোরিত ককটেল উদ্ধার করেছে পুলিশ।

পাঁচলাইশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মহিউদ্দিন মাহমুদ বলেন, ‘ষোলশহর এলাকায় অবস্থিত ফসিল সিএনজি ফিলিং স্টেশনের গেটের সামনে চারটি ককটেল নিক্ষেপ করে
দুর্বৃত্তরা। তবে এসব ককটেল বিস্ফোরিত হয়নি।’

খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে অবিস্ফোরিত অবস্থায় ককটেল চারটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।


আরোও সংবাদ