বিপিএলের বকেয়া ৬৯ কোটি টাকা

প্রকাশ:| শুক্রবার, ১৪ আগস্ট , ২০১৫ সময় ০৯:৪৮ অপরাহ্ণ

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) আগের সাত ফ্র্যাঞ্চাইজির কাছে বোর্ডের পাওনা রয়েছে ৬৯ কোটি টাকা। এবার তাই পুরনো সব দলকে বাদ দিয়ে নতুন টেন্ডার আহ্বান করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)।

আর এতে করে বিশাল অংকের টাকা বিসিবি গচ্চা দেবে কি-না, সামনে এসে যায় সেই প্রশ্নটি। অবশ্য বকেয়া টাকা তুলতে মামলার প্রস্ততির কথা জানিয়েছেন বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক। তবে ফিক্সিং মামলায় দুর্নীতির অভিযোগে অভিযুক্ত হওয়ায় ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটর্স বিপিএলের তৃতীয় আসরে অংশ নিতে পারবে না বলে জানান তিনি।

এদিকে নতুন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও কনসোর্টিয়ামের পাশাপাশি মালিকানা বাতিল হওয়া পুরনো ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিকরাও নতুন টেন্ডারে সাড়া দিচ্ছে। অন্যদিকে পাওনা অর্থ পরিশোধ করে পুরনো মালিকদের সুযোগ দেওয়ার নীতিতে থাকছে বিসিবি।

২০১২ ও ২০১৩ সালে সফল দুইবার আয়োজনের পর ফিক্সিং জটিলতায় বন্ধ যায় বিপিএল। এরপর চুক্তির শর্ত ভঙ্গ করায় বিসিবি বাতিল করে আগের সাত ফ্র্যাঞ্চাইজির মালিকানাও। গত ২৮ জুলাই নতুন করে চার বছরের জন্য ফ্র্যাঞ্চাইজি বিক্রির নতুন টেন্ডার আহবান করে বিসিবি। নতুন ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিকানা কেনার শেষ তারিখ ১৭ আগস্ট।

এ সম্পর্কে জানতে চাইলে শুক্রবার বিপিএল ফ্যাঞ্চাইজি মালিক অ্যাসোসিয়েশন প্রধান মুশফিকুর রহমান মোহন শিগগিরই নিজেদের আগ্রহ প্রকাশ করে বোর্ডের কাছে আবেদনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। পুরনোদের আবেদন বিবেচনা করে দেখার আশ্বাসও দিয়েছিল বিসিবি।

শুক্রবার বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা গেছে, যে আগের সাত দলের মধ্যে অন্তত তিনটি দল বিপিএলের আসন্ন আসরেও দলে মালিকানা বজায় রাখার জন্য আবেদন করেছে।

এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘অনেকেই যোগাযোগ করছেন ফ্র্যাঞ্চাইজি নেওয়ার ব্যাপারে। নতুনদের সঙ্গে পুরনো ফ্র্যাঞ্চাইজিদের অনেকেই আগ্রহপত্র নিয়েছেন। তবে কোনো প্রতিষ্ঠানের নাম এ মূহুর্তে বলতে পারছি না। ১৭ তারিখের পর এ ব্যাপারে আমরা চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেব।’

এদিকে চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ায় পুরানো ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিকদেরও এবারের বিডিংয়ে অংশ নেয়ায় কোন বাধা দেখতে পাচ্ছেন না বোর্ডের কর্তারা। তবে এ জন্য বোর্ডের কাছে তাদের বিরুদ্ধে থাকা আগের অভিযোগগুলোর মীমাংসা করতে হবে। বিশেষ করে আগের অপরিশোধিত অর্থ পরিশোধ করতে হবে।

তারপর বিসিবি যদি অনুমোদন দেয় কেবল তাহলেই পুরানো ফ্যাঞ্চাইজিগুলো বিডে অংশ নিতে পারবে। পুরনো দলগুলোর ব্যাপারে অর্থ পরিশোধই প্রধান শর্ত।

এছাড়াও অনান্য বিষয় ঠিক থাকলে তবেই তাদের আবেদনগুলো ভেবে দেখবে বোর্ড এমনটা দাবি করলেন বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘টাকা পরিশোধ না করে তারা কোনভাবেই পরবর্তী ধাপে এগুতে পারবে না। ওটা আমাদের লিগ্যাল বিভাগ দেখছে। যদি সালিশে কোন সমাধান না আসে তাহলে আমরা মামলা করে দেব। কোন ছাড় দেয়া হবে না। অর্থ পরিশোধ না করলে মামলা।’

সবকিছু ঠিক থাকলে ২২ নভেম্বর থেকে মাঠে গড়াবে বিপিএলের তৃতীয় আসর। এদিকে বকেয়া থাকা ৬৯ কোটি টাকার মধ্যে সবচেয়ে বড় অংকটা চট্টগ্রাম কিংসের। ১৩ কোটি ৯৪ লাখ টাকা বকেয়া রয়েছে দলটির। আর সর্বনিম্ন বকেয়া দ্বিতীয় আসরে নতুন দল হিসেবে খেলা রংপুর রাইডার্সের। তাদের কাছে বিসিবির পাওনা ৫ কোটি ৭৩ লাখ টাকা।

পুরনো ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর মধ্যে এবারের আসরে অংশগ্রহণ করতে পারবে না গত দুই মৌসুমের চ্যাম্পিয়ন দল ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটর্স।