বিদ্যুতের কানামাছি খেলায় ক্ষোভে ফুঁসছে বোয়ালখালী

প্রকাশ:| শনিবার, ৩ জুন , ২০১৭ সময় ০৭:১২ অপরাহ্ণ

পূজন সেন, বোয়ালখালী : বোয়ালখালীতে দিনে রাতে চলছে বিদ্যুতের কানামাছি খেলা। বিদ্যুৎ নেই তো জনজীবন প্রায় অচল হয়ে পড়ে।
একদিন দু’দিন সমস্যা থাকতে পারে তাই বলে গত কয়েকমাস ধরে বিদ্যুতের আসা যাওয়া আর না থাকায় ক্ষোভে ফুঁসছে বোয়ালখালীবাসী।
এ নিয়ে গতকাল শুক্রবার (২জুন) জুমার নামাযের পরপরই উপজেলার গোমদন্ডী ফুলতলী চট্টগ্রাম পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর বোয়ালখালী জোনাল অফিস বিক্ষুদ্ধ গ্রাহকরা ভাঙ্গচুর করে।
এছাড়া আজ শনিবার (০৩জুন) সকাল ১১টার দিকে পটিয়া ইন্দ্রপুল এলাকায় চট্টগ্রাম পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১এর কার্যালয়ে বিক্ষুদ্ধ জনতা ভাঙ্গচুর চালায়।
এ ব্যাপারে এলাকা পরিচালক আশরাফ উদ্দিন কাজল বলেন, বিদ্যুৎ সরবরাহ বিভ্রাটের ফলে বোয়ালখালীবাসী নানা সমস্যায় পড়ছেন। এ বিষয়ে বারবার বিদ্যুৎ সরবরাহকারী কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে কোনো লাভ হচ্ছে না। ফলে ক্ষোভে ফুঁসছে গ্রাহকরা।
বোয়ালখালী জোনাল অফিসের ডেপুটি ব্যবস্থাপক মো. সাখাওয়াত হোসেন জানান, বোয়ালখালীতে ১৬ মেগাওয়াট বিদ্যুতের চাহিদার বিপরীতে ১৬ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ গ্রিড থেকে পাওয়া যাচেছ। ফলে এখন লোডশেডিং নাই বললেই চলে। তবে বৈরী আবহাওয়ার কারণে লোডশেডিং করতে হচ্ছে।
গতকাল শুক্রবার জুমার নামাযের পর একদল লোক বোয়ালখালী জোনাল অফিসে হামলা চালিয়ে ভাঙ্গচুরের বিষয়টি নিশ্চিত করে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।
শ্রীপুর-খরণদ্বীপ ইউনিয়নের বাসিন্দা মো. কপিল উদ্দিন বলেন, ঘণ্টার পর ঘণ্টার বিদ্যুৎ থাকে না। আসলে তা কয়েক মিনিট স্থায়ী হয়। এরপর আর খবর থাকে না। বিদ্যুৎ বিভ্রাটের জন্য পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে ফোন করলেও তারা ফোন ধরেন না।
পবিত্র রমজান মাসের আগে থেকে এ সমস্যা চলছে জানিয়ে পৌর সদরের আবদুল হক বলেন, তীব্র তাপদাহ চলা সময়েও কাজের অজুহাতে কোনো ঘোষণা ছাড়াই একদিন পর পর বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখা হয়। এরপর রমজান মাসে সেহরী, ইফতার তারাবী নামাজের সময়ও বিদ্যুৎ সরবারাহ থাকে না।
পৌর সদরের সাধন শীল বলেন, বিদ্যুতের আসা মাত্র চলে যাওয়ার ফলে বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এছাড়া এতে বিদ্যু না থাকলেও বিল ঠিকই আসছে।


আরোও সংবাদ