বিটিসিএলে ৬১০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

প্রকাশ:| রবিবার, ২৫ আগস্ট , ২০১৩ সময় ০৯:০৩ অপরাহ্ণ

বিটিসিএলবাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন্স কোম্পানি লিমিটেডের (বিটিসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এস ও এম কলিমুল্লাহ ও সাবেক তিন এমডিসহ মোট ২২ জনের বিরুদ্ধে চারটি মামলা দায়েরের অনুমোদন দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এ চারটি মামলায় প্রায় ৬১০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ করা হয়েছে। আজ রবিবার বিকালে কমিশন মামলার এ অনুমোদন দেয়। চলতি সপ্তাহের যেকোনো দিন তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করবে দুদক।

অভিযোগে বলা হয়, ২০০৯ সালের আগস্ট থেকে ২০১১ সালের নভেম্বর পর্যন্ত বিটিসিএল ও এরিকসনের প্রতারক চক্র ভয়েস ওভার ইন্টারনেট প্রটোকলের (ভিওআইপি) মাধ্যমে আন্তর্জাতিক কলের রেকর্ড গায়েব করে অন্তত ৬১০ কোটি টাকার সমপরিমাণ বৈদেশিক অর্থ থেকে সরকার বঞ্চিত হয়েছে। এটাকা প্রচারক চক্র আত্মসাত করেছে।

অনুসন্ধান সংশ্লিষ্ট দুদকের এক কর্মকর্তা জানান, বিদেশ থেকে আসা বিপুলপরিমাণ টেলিফোন কলের ডাটা মুছে ফেলার অভিযোগ পেয়ে গত বছর দুদক অনুসন্ধানে নামে। বিটিসিএল ও ভয়েস ওভার ইন্টারনেট প্রটোকলের (ভিওআইপি) দুর্নীতির অনুসন্ধান করতে গিয়ে দুদক কর্মকর্তারা দেখতে পান বিটিসিএলের আন্তর্জাতিক এক্সচেঞ্জের আইটিএক্স-৫ এবং আইটিএক্স-৭ থেকে যেসংখ্যক কল পাঠানো হয়েছে তা সঠিকভাবে রেকর্ড না করে কল ডাটা মুছে ফেলা হয়েছে। এ জালিয়াতির কারণে প্রকৃত ইনকামিং কলের তুলনায় আইটিএক্সে প্রদর্শিত কল ডাটার পরিমাণ অনেক কম। এতে সরকার বিপুলপরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন থেকে বঞ্চিত হয়েছে মনে করছে দুদক। এরপর দুদক কর্মকর্তারা প্রাথমিক অনুসন্ধানে গত জুন মাসে অনুসন্ধান টিম কমিশনে প্রতিবেদন জমা দেয়। ওই প্রতিবেদনে তথ্য-প্রমাণসহ অপরাধের ধারা উল্লেখ করে বিটিসিএলের এমডিসহ ২২ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের সুপারিশ করা হয়। যাচাইবাছাই শেষে রবিবার মামলার অনুমোদন দেয় দুদক।

দুদক সূত্র জানায়, বিটিসিএলের ভিওআইপি কেলেঙ্কারির বিষয়ে দুদকের উপ-পরিচালক এস এম সাহিদুর রহমানের নেতৃত্বে একটি টিম অনুসন্ধান করছেন।


আরোও সংবাদ