বিটিভিকে নতুনভাবে সাজানোর কথা ভাবছে সরকার : ইনু

প্রকাশ:| বুধবার, ২৪ ডিসেম্বর , ২০১৪ সময় ১০:২৭ অপরাহ্ণ

রামপুরাস্থ টেলিভিশন ভবন মিলনায়তনে বাংলাদেশ টেলিভিশনের (বিটিভি) সুবর্ণ জয়ন্তী ও বিটিভিবাংলা ভাষায় টেলিভিশন সম্প্রচারের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, সরকার বিটিভিকে নতুনভাবে ঢেলে সাজানোর কথা ভাবছে। তিনি বলেন, ঢাকা ও চট্টগ্রামের পাশাপাশি দেশের অন্য পাঁচটি বিভাগীয় সদরেও পাঁচটি পূর্ণাঙ্গ টেলিভিশনকেন্দ্র স্থাপনের পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে। এ লক্ষ্যে একটি চীনা কম্পানির সঙ্গে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে।

বিটিভির আধুনিকায়ন প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী আরো বলেন, ডিজিটাল টেরিস্টরিয়াল ট্রান্সমিটার স্থাপন করে অত্যাধুনিক ছবি ও শব্দের গুণগত মানসম্পন্ন ট্রান্সমিশন চালু করার পরিকল্পনা বিটিভির রয়েছে। ইতিমধ্যে পরীক্ষামূলক সম্প্রচারও শুরু হয়েছে। ইন্টারন্যাশনাল টেলিকমিউকেশন ইউনিয়ন (আইটিইউ) এর বিধিবদ্ধ শর্তানুযায়ী ২০১৭ সালের মধ্যে এ ট্রান্সফরমেশন সম্পন্ন হবে বলে সাংবাদিকদের জানানো হয়। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী জানান, ৫১ বছরে পা দেয়া বিটিভির নতুন বছরের শুরু থেকেই গণমানুষের আকাঙ্খা পূরণে নতুন করে পথচলা শুরু হবে। তিনি বলেন, ৫০ বছরের অভিজ্ঞতাকে পুঁজি করেই আমাদেরকে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে। জঙ্গিবাদ, সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী ও ঔপনিবেশিক ধাঁচের শাসনব্যবস্থা রুখে শোষণমুক্ত অসাম্প্রদায়িক ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গঠনে বিটিভি সরকারের সহযাত্রী।

ইনু বলেন, গণতান্ত্রিক ও সমৃদ্ধ ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় বিটিভি আমাদেরকে সামনের দিকে নিয়ে যাবে। এজন্য আমাদের সাহসী ভূমিকা পালন করতে হবে। তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করে ৫১ বছরের শুরুতেই যুগের চাহিদা পূরণে বিটিভি উদ্যোগ নেবে। বাংলাদেশ আর কখনও পেছনের দিকে ফেরত যাবে না। উন্নয়ন ও অগ্রগতির দিকে এগিয়ে যাবেই। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী জানান, বিটিভি অনুষ্ঠান সম্প্রচার করে শতকরা ৮১ ভাগ, বাকি ১৯ ভাগে রয়েছে খবর। এ নিয়ে বিটিভিকে অনেক সমালোচনা সহ্য করতে হয়। তিনি বলেন, বিটিভি জাতীয় প্রতিষ্ঠান হিসেবে জাতির কাছে দায়বদ্ধ। তাই বিটিভিকে অন্যান্য চ্যানেলকে অনুসরণ করে নয়, জাতির কৃষ্টি, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যকে অনুসরণ করে সামনে দিকে এগিয়ে যেতে হবে।