বিএনপির জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে স্মারকলিপি প্রদান

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ২০ মার্চ , ২০১৪ সময় ০৯:০৮ অপরাহ্ণ

চলমান উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোট কারচুপি, কেন্দ্র দখল,, দলীয় প্রার্থীদের উপর হামলা, গুম ও খুনের প্রতিবাদে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসককে স্মারকলিপি দিয়েছে মহানগর বিএনপি।

বৃহস্পতিবার দুপুরে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ান বিএনপি নেতা-কর্মীদের নিয়ে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে স্মারকলিপি প্রদান করেন। এসময় জেলা প্রশাসক আব্দুল মান্নান স্মারকলিপি গ্রহণ করেন।

বিএনপির কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি এ কর্মসূচি পালন করে।

জেলা প্রশাসক বরাবর লেখা স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, চলমান উপজেলা নির্বাচনে সরকার সমর্থিত প্রার্থীদের বিজয়ী করার জন্য সহিংসতার মাত্রা বৃদ্ধি পেয়েছে। গত তিন দফা উপজেলা নির্বাচনে ব্যালট বাক্স ও ব্যালট পেপার ছিনতাই,, কেন্দ্র দখল, প্রার্থীর ওপর হামলা ও ব্যাপক ভোট জালিয়াতির ঘটনাও বেড়েছে।

নির্বাচনী সহিংসতা ও ভোট কেন্দ্র দখলের উৎসবে প্রশাসন নির্লিপ্ত রয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সরকারি দলের সমর্থকদের সৃষ্ট সন্ত্রাস ও তান্ডবে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সহযোগীর ভূমিকায় অবতীর্ণ বলেও অভিযোগ করা হয়।

‘বিএনপি এসব সহিংস ঘটনার প্রতি আপনার মনোযোগ আকর্ষণ করছে। রাষ্ট্রীয় আইন অনুযায়ী জনপ্রশাসনের নিরপেক্ষ ভূমিকা নিশ্চিত করে পরবর্তী দুই দফা উপজেলা নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে অনুষ্ঠিত করা এবং গুম খুন ও গুপ্তহত্যা বন্ধ করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য জোর দাবি জানাচ্ছে।’

স্মারকলিপি প্রদানের আগে জেলা পরিষদ চত্বরে আবু সুফিয়ানের সভাপতিত্বে এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএনপির সহ-শ্রম বিষয়ক সম্পাদক এএম নাজিম উদ্দিন বলেন, আওয়ামী লীগ রাজনৈতিক প্রতিহিংসা পরায়ন হয়ে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে জিয়া অরফেনেজ ট্রাস্ট মামলায় চার্জশীট দাখিল করেছে। বর্তমান আ’লীগ সরকার শেষ সরকার নয়, এর পরে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠিত হলে আওয়ামী লীগের সমস্ত অগণতান্ত্রিক কর্মকাণ্ডের বিচার করা হবে।

সভাপতির বক্তব্যে আবু সুফিয়ান বলেন, সরকার পরিচালনায় আওয়ামী লীগ সম্পূর্ণ ব্যর্থ। অবৈধ এবং অগণতান্ত্রিক পন্থায় সরকার পরিচালনায় তাদের সফলতা বলতে কিছুই নেই, আছে শুধু দুর্নীতি, দলীয়করণ ও লুটপাটের ইতিহাস।

ব্যর্থ এই সরকারকে জনগণ আর ক্ষমতায় দেখতে চায় না উল্লেখ করে তিনি বলেন, যত তাড়াতাড়ি এই সরকার বিদায় হবে, দেশ ও জনগণের মঙ্গল হবে।

সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য মাহবুবুর রহমান শামীম, বিএনপি নেতা কাজী শেখ নুরুল্লাহ বাহার, কাজী বেলাল উদ্দিন হারুন জামান, ইয়াছিন চৌধুরী লিটন, ইকবাল চৌধুরী, আনোয়ার হোসেন লিপু, জি এম আইয়ুব খান, মঞ্জুর আলম, এস এম সালাউদ্দিন, কামরুল ইসলাম, ফাতেমা বাদশা, মনোয়ারা বেগম মনি প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।