বিআইটিইএফ-২০১৪ উপলক্ষে এক সাংবাদিক সম্মেলন

প্রকাশ:| শুক্রবার, ৭ নভেম্বর , ২০১৪ সময় ১০:০০ অপরাহ্ণ

আজ ৭ নভেম্বর, শুক্রবার চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির মিলনায়তনে সিএমসিসিআই কর্তৃক আয়োজিত প্রথম বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড এন্ড এক্সপোর্ট ফেয়ার”বিআইটিইএফ-২০১৪” উপলক্ষে এক সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এ সংবাদ সম্মেলনে সিএমসিসিআই কর্তৃপক্ষ মেলার বিভিন্ন দিক সম্পর্কে প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সম্মানিত সাংবাদিকদের অবহিত করবেন। সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সিএমসিসিআই প্রেসিডেন্ট এবং মেলার উপদেষ্ঠা খলিলুর রহমান, কনভেনার আমিনুজ্জামান ভূঁইয়া, কো-কনভেনার এ.এম.মাহাবুব চৌধুরী এবং এম.এ.মালেক, সদস্য আবুল বাশার চৌধুরী এবং আব্দুল আউয়াল সহ পরিচালকবৃন্দ সর্বজনাব আব্দুস সালাম, এনামুল হক, হাজী এম. এ.মালেক, হাজী মোহাম্মদ ইউনুছ, সৈয়দ মোহাম্মদ আবু তাহের, আলহাজ্ব মোহাম্মদ শফি,লিয়াকত আলী চৌধুরী এবং লোকমান হাকিম। মেলা আয়োজন কারী প্রতিষ্ঠান কধুহড়াধ ঈড়সসঁহরপধঃরড়হ খঃফ. এর পক্ষে মোহাম্মদ ফাহিম, সাব্বির আজম এবং হাবিবুর রহমান সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

কনভেনার আমিনুজ্জামান ভূঁইয়া তার উদ্বোধনী বক্তব্যে মেলার বিভিন্ন দিক নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন (সংযুক্ত)। সাব্বির আজম মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে আমন্ত্রিত অতিথিদের মেলার বিভিন্ন বিষয়ের উপর আলোকপাত করেন।
বর্তমান বিশ্ব দ্রুত এগিয়ে চলছে। যেখানে শুধু আমদানী নির্ভরতা জাতিকে উন্নত করতে পারে না। যে কারনে জাতীয় স্বার্থে বৈদেশিক রপ্তানী বাণিজ্য সম্প্রসারন অত্যাবশ্যকীয় হয়ে পড়েছে।এই লক্ষ্যে সিএমসিসিআই বাংলাদেশে ব্যতিক্রমধর্মী একটি ট্রেড এবং এক্সপোর্ট ফেয়ার আয়োজন করছে। যেখানে সাধারন মেলার মতো সচরাচর চুড়ি, শাড়ি, আসবাবপত্র ইত্যাদি বিক্রয়ের পাশাপাশি আমাদের এই মেলায় একটি রপ্তানী জোন থাকবে। এই জোন দেশে রপ্তানীযোগ্য ক্যান ফিশ, চামড়া, ঔষধ, পোশাক , মৃৎ শিল্প রপ্তানীকারক ইত্যাদির স্টল থাকবে। যার কার্যকারিতার জন্য আমরা বিভিন্ন দেশের আমদানীকারক সমিতিতে তাদের আমন্ত্রণ প্রদান করেছি। তারা এখানে এসে অন দ্য স্পট অর্ডার প্রদান সহ দীর্ঘস্থায়ী যোগাযোগ স্থাপন করতে পারবে।জাতীয় রপ্তানী উন্নয়নের স্বার্থে আমরা পরবর্তীতে আরও সম্প্রসারিত ভাবে প্রতি বছর এই মেলার আয়োজন করব আশা রাখি।
বিআইটিইএফ-২০১৪” উপলক্ষে এক সাংবাদিক সম্মেলন
বাংলাদেশ বর্তমান বিশ্বের দ্রুত উন্নয়নশীল দেশগুলোর মধ্যে অগ্রগণ্য। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে আমাদের জিডিপির পরিমাণ ৬% এর উপরে যা অত্যন্ত আশাব্যঞ্জক। এই দেশকে মধ্য আয়ের দেশে পরিণত করার স্বপ্ন বাস্তবায়নে দেশীয় শিল্পের দ্রুত প্রসার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই চেম্বার ব্যবসায়ীদের এলিট সংগঠন হিসেবে এক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় নীতি নির্ধারণে সরকারের সাথে ব্যবসায়ী সমাজের দাবীর সমন্বয় সাধন, উপযুক্ত পরিবেশ নিশ্চিতকরণ, যৌক্তিকহারে শুল্ক ও কর নির্ধারণ, শিল্পায়নের গতি ত্বরান্বিতকরণ এবং উৎপাদিত পণ্যের বিপণন, প্রচার ও প্রসারের সহায়ক পরিবেশ সৃষ্টিকরণে নিরন্তর কাজ করে চলেছে। এ প্রয়াসের অংশ হিসেবে আমাদের ইওঞঊঋ-২০১৪দেশীয় শিল্প বিশেষ করে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের প্রসারের ক্ষেত্রে বিশাল ভূমিকা পালন করছে। মেলায় আগত হাজার হাজার দর্শনার্থী এসব পণ্য সুলভ মূল্যে ক্রয়ের সুযোগ পাবেন যার ফলে বিদেশী পণ্যের পরিবর্তে দেশীয় পণ্যের অভ্যন্তরীণ বাজার সম্প্রসারিত হচ্ছে। যার ফলে আমাদের উৎপাদিত পণ্যসমূহের গুণগত মান, উৎপাদন খরচ ইত্যাদি তুলনামূলকভাবে বিচার করার মাধ্যমে রপ্তানির সুযোগ সৃষ্টি হবে। অন্যদিকে এখানে একটি রপ্তানী জোন থাকবে, যেখানে রপ্তানী যোগ্য পণ্য প্রদর্শিত হবে। ফলে বিদেশী ক্রেতা এ দেশীয় পণ্যের প্রতি আকৃষ্ট হবে।
এই নিউ জেনারেশন চেম্বার ইধহমষধফবংয ওহঃবৎহধঃরড়হধষ ঞৎধফব ্ ঊীঢ়ড়ৎঃ ঋধরৎ”(ইওঞঊঋ-২০১৪) আয়োজনের জন্য চট্টগ্রাম মহানগর এলাকার কেন্দ্রস্থল হালিশহরস্থ চট্টগ্রাম আবাহনী মাঠকে নতুন একটি মেলার ভেন্যু হিসাবে নির্বাচন করা হয়েছে। আমরা আরও আনন্দের সাথে জানাচ্ছি যে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন ‘রূপকল্প ২০২১’ এর মূল প্রতিপাদ্য ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ইওঞঊঋই সর্বপ্রথম দেশে রপ্তানি ও বাণিজ্যকে এক সাথে সমন্বয় করে ডিজিটাল জীবন ধারা ভিত্তিক মেলা আয়োজন করতে যাচ্ছে। মেলার সময়কাল আমরা বাঙালীর গৌরবের মাস, বিজয়ের মাস ডিসেম্বরকে বেছে নিয়েছি। মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় বাণিজ্য মন্ত্রী জনাব তোফায়েল আহমেদ উপস্থিত থাকবেন।দেশের প্রখ্যাত ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠান কধুহড়াধ ঈড়সসঁহরপধঃরড়হ খঃফ. মেলা পরিচালনার দায়িত্ব পালন করবে। ইওঞঊঋ-২০১৪ এর ব্যাপ্তি প্রায় ১, ৭০,০০০ বর্গ ফুট। এতে মেগা প্যাভিলিয়ন ১০ টি, মিডিয়াম প্যাভিলিয়ন ৮টি, ষ্ট্যান্ডার্ড প্যাভিলিয়ন ১৮টি, ইধহশ ্ ওহংঁৎধহপব ৫টি, ষ্টল ১২৪টি, রেষ্টুরেন্ট ৫টি সহ ৩টি সুদৃশ্য টাওয়ার এবং দুইটি দৃষ্টি নন্দন ফোয়ারা থাকবে।

এখন মাল্টিমিডিয়া প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে বিস্তারিত বর্ণনা করবে কধুহড়াধ ঈড়সসঁহরপধঃরড়হ খঃফ.

* প্রথম বারের মতো আমরা ও.চ ঈধসবৎধ ব্যবহারের মাধ্যমে অংশগ্রহণকারী এবং দর্শনার্থীদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে।

* সর্বসাধারণ এর পরিদর্শনের সুবিধার্থে দর্শনার্থীর টিকিটের মূল্য মাত্র ১০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

* অনাকাঙ্খিত অগ্নিকান্ডের বিষয় বিবেচনা করে তাৎক্ষনিক অগ্নি নির্বাপন ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি সহ একটি টিম মেলা চলাকালীন সময়ে সর্বদা অবস্থান করবে।

* বৃহৎ পরিসরের আয়োজনে জান-মালের নিরাপত্তার বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে মেলা প্রাঙ্গন ও সংলগ্ন এলাকায় র‌্যাব ও পুলিশের অস্থায়ী ক্যাম্প স্থাপন করা হবে। যেখানে একজন দক্ষ অফিসারের নেতৃত্বে চৌকশ পুলিশ বাহিনী আলাদা ৩ (তিন) শিফটে বিভক্ত হয়ে সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করবে, পাশাপাশি গোয়েন্দা সংস্থা সমূহকে আমরা মেলার বিষয়টি অবহিত করেছি। মেলা প্রাঙ্গনে সুদক্ষ প্রাইভেট সিকিউরিটির সদস্যগণ ২৪ (চব্বিশ) ঘন্টা নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত থাকবেন। বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থার অংশ হিসেবে সার্বক্ষণিকভাবে সিসিটিভি ক্যামেরার মাধ্যমে মেলার সার্বিক পরিস্থিতি রেকর্ডিং করা হবে।

* বিজয়ের মাস ০৩ ডিসেম্বর ২০১৪ ইং থেকে মাসব্যাপী অনুষ্ঠিতব্য এই মেলা প্রতিদিন সকাল ১০.০০টা থেকে রাত ১০.০০টা পর্যন্ত চলবে। মেলা চলাকালীন সময়ে বিপনণ ও প্রদর্শনের সমান্তরালে থাকবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে থাকবে বিনোদনের ব্যবস্থাও।

* মেলা চলাকালীন সময়ে বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত ও হাইকমিশনারবৃন্দ মেলা পরিদর্শন করবেন। এতে করে সেসব দেশেও আমাদের পণ্যের বাজার সম্প্রসারণের সুযোগ সৃষ্টি হবে। বেলজিয়াম সহ কয়েকটি দেশের বাণিজ্য প্রতিনিধিদল মেলা পরিদর্শন করবে।

* মেলা চলাকালীন সময়ে চট্টগ্রামের উন্নয়ন ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে বেসরকারী খাতের প্রেক্ষাপট নিয়ে কয়েকটি ঝবসরহধৎ ও জড়ঁহফ ঞধনষব আয়োজন করা হবে।

* সংশি¬ষ্ট সরকারী মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়গণ এবং উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাবৃন্দ এই মেলা পরিদর্শন করবেন যা এ দেশীয় শিল্পের বিকাশে প্রয়োজনীয় নীতি নির্ধারণে সহায়ক হবে।

* মেলায় আগত দর্শনার্থীদের সুবিধার্থে ও প্রয়োজনীয় তথ্য সরবরাহের লক্ষ্যে সার্বক্ষণিকভাবে একটি ইনফরমেশন বুথ (তথ্য কেন্দ্র) চালু থাকছে।

* মেলা প্রাঙ্গনে দর্শনার্থীদের জন্য দৈনিক র‌্যাফেল ড্র এর ব্যবস্থা রয়েছে।

* এই মেলায় প্রথমবারের মতো বেশি সংখ্যক ব্যাংক ও বাংলাদেশে প্রথম বারের মতো বীমা কোম্পানী ইওঞঊঋ এ অংশগ্রহণ করছে।

* মেলায় পণ্য ভিত্তিক জোন স্থাপিত হবে যেমন আইটি জোন, তরুণ উদ্যোক্তা জোন, গেমিং জোন এছাড়াও দেশ ভিত্তিক পণ্যের জোনও থাকবে।

* মেলা সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় তথ্য ও গণমাধ্যমের সাথে নিবিড় সম্পর্ক স্থাপনের লক্ষ্যে মেলা প্রাঙ্গণে একটি মিডিয়া সেন্টার থাকবে যেখানে সংবাদকর্মীরা তাদের প্রয়োজনীয় তথ্যপ্রাপ্তি নিশ্চিত হওয়ার পাশাপাশি তাদের স্ব স্ব গণমাধ্যমে সংবাদ প্রেরনেরও ব্যবস্থা থাকবে।

* মেলায় আগত দর্শনার্থীদের সুবিধার কথা চিন্তা করে নারী ও পুরুষের জন্য আলাদা-আলাদা টিকেট কাউন্টার, অজু- নামাজের স্থান এবং টয়লেটের সু-ব্যবস্থা করা হয়েছে যা নারী ও পুরুষ দ্বারা আলাদাভাবে পরিচালিত হবে।

* মেলার সমাপনী অধিবেশনে ১ম, ২য় ও ৩য় বিবেচিত বুথ ও প্যাভিলিয়নকে বিশেষ পদক প্রদান এবং মেলায় অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানসমূহকে সনদপত্র প্রদান করা হবে।

পরিশেষে, ইওঞঊঋ-২০১৪’র নিরাপদ ও শান্তিপূর্ণ উদ্বোধন, সফল ও সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা এবং সুন্দর সমাপ্তির জন্য পরম করুণাময় মহান আল্লাহতালার অশেষ রহমত এবং গণমানুষের আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করছি।


আরোও সংবাদ