বান্দরবানে বিজিবি সেক্টরের অফিস ভবন উদ্ধোধন

প্রকাশ:| রবিবার, ২০ জুলাই , ২০১৪ সময় ১০:০৫ অপরাহ্ণ

নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্তে ৬টি বিওপি ক্যাম্প বৃদ্ধি

বান্দরবান প্রতিনিধি ॥
বান্দরবানে বিজিবি সেক্টরের অফিস ভবন উদ্ধোধনবর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) বান্দরবান সেক্টরের নবনির্মিত অফিস ভবন উদ্ধোধন করা হয়েছে। রোববার বিকালে আর্মী পাড়াস্থ এলাকায় বান্দরবান সেক্টরের অফিস ভবনের আনুষ্ঠানিক উদ্ধোধন করেন বিজিবি’র চট্টগ্রাম রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ আহম্মদ আলী। এসময় অন্যান্যদের মধ্যে বান্দরবান বিজিবি সেক্টর কমান্ডার কর্ণেল সাইফুল ইসলাম’সহ বিজিবির উর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও গনমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি চট্টগ্রাম রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ আহম্মদ আলী মুক্তিযুদ্ধে অবদানের জন্য বিজিবির দুই সৈনিক বীর মুক্তিযুদ্ধাকে আর্থিক অনুদানের চেক বিতরণ করেন এবং কৃষ্ণচূড়া ফুল গাছের একটি চারা রোপন করেন। এরা হলেন- ইউকেচিং বীর বিক্রম’কে (৯৬ লক্ষ টাকা) এবং রহিম বক্ত স্ত্রীকে ৫ হাজার টাকা। অনুষ্ঠানে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ আহম্মদ আলী সাংবাদিকদের বলেন, সীমান্ত সুরক্ষায় বাংলাদেশ-মিয়ানমার ১৮৬ কিলোমিটার স্থল সীমান্ত জুড়ে দু’দেশের সম্মতিতে সড়ক নির্মাণ করা হবে। নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্তে ৬টি নতুন বিওপি ক্যাম্প (নিরাপত্তা চৌকি) বাড়ানো হয়েছে। পর্যায়ক্রমে নাইক্ষ্যংছড়ি থেকে থানছি উপজেলা পর্যন্ত মিয়ানমার সীমান্তে ৩৬টি ভিওপি ক্যাম্প করা হবে। তিনি আরো বলেন, নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্তে মিয়ানমারের অভ্যন্তরে প্রায় গোলাগুলির শব্দ শোনা যাচ্ছে। বিষয়টি সর্ম্পকে মিয়ানমার সীমান্তরক্ষীর সঙ্গে কথা বলেছি। তাদের দাবী সীমান্তে মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীর প্রশিক্ষণ ফায়ারিং হয়। তারই গুলির শব্দ মাঝে মধ্যে শোনা যায়। সাম্প্রতিক ঘটনায় বিজিবি সদস্যের মৃত্যু হয়েছে ঠিকই। কিন্তু মিয়ানমারের ক্ষতি হয়নি, তা নয়। তাদের ঘটনার খেসারত দিতে হয়েছে। মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী সাম্প্রতিক সময়ের ঘটনা নিয়ে দু:খ প্রকাশ করেছে। ভবিষ্যতে এই ধরণের কোনো ঘটনা ঘটবে না বলেও প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।


আরোও সংবাদ