বান্দরবানে অপহৃত আ’লীগ নেতার খোঁজ মেলেনি ৪৬ দিনেও

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ২৮ জুলাই , ২০১৬ সময় ০৯:৫২ অপরাহ্ণ

নিখোঁজ
বান্দরবান প্রতিনিধি ॥
বান্দরবানে আওয়ামীলীগ অপহরণের মামলায় হাইকোর্ট থেকে আগাম জামিন নিয়েছেন আঞ্চলিক রাজনৈতিক সংগঠন জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) ১০ শীর্ষ নেতা। তবে অপহৃত আওয়ামীলীগ নেতা মংপু মারমার খোঁজ মেলেনি অপহরণের ৪৬ দিন পরও। আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত অপহৃত আওয়ামীলীগ নেতাকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।
আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও স্থানীয়রা জানায়, সদ্য সমাপ্ত ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গত ১৩ জুন ‘রাতে জেলার জামছড়ি পাড়া থেকে বান্দরবান সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সম্পাদক ও সাবেক ইউপি সদস্য মংপু মারমা’কে অস্ত্রের মুখে অপহরণ করে নিয়ে গেছে জেএসএস’র অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনায় অপহৃত নেতার মেয়ের জামাতা হ্লামংচিং মারমা বাদী হয়ে সদর থানায় পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) শীর্ষ নেতাদের নাম’সহ ৩৮ জনের বিরুদ্ধে অপহরণ মামলা করেন। অপহরণের মামলায় পুলিশ জনসংহতি সমিতি জেলা শাখার যুগ্ন সম্পাদক উচচিং (৩৮), নেত্রী মেহ্লাচিং মারমা (৩৫) এবং সানু মং মারমা (২৫) তিনজন’কে গ্রেফতার করে। অপহরণের ঘটনায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানে গ্রেফতার এড়াতে পালিয়ে যান জেএসএস’র শীর্ষ নেতারা। এ ঘটনায় হাইকোর্ট থেকে আগাম জামিন নিয়েছেন বান্দরবানের জনসংহতি সমিতির ১০ শীর্ষ নেতা। এদের মধ্যে রয়েছেন- জেএসএস’র কেন্দ্রীয় নেতা কেএসমং, কেন্দ্রীয় সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক জলিমং, জেলা জেএসএস’র সাবেক সভাপতি সাধুরাম ত্রিপুরা মিল্টন, জেএসএস জেলা সভাপতি উছোমং, সাধারণ সম্পাদক ক্যবামং, নোয়াপতং ইউপি চেয়ারম্যান অংথোয়াইচিং মারমা, জেএসএস নেতা শম্ভু কুমার তঞ্চঙ্গ্যা, বিজয় চাকমা। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জনসংহতি সমিতির পক্ষে মামলা পরিচালনাকারী আইনজীবী ইলিয়াসুর রহমান জানান, হাইকোর্টে বিচারপতি মো. আসাদুজ্জামান ও জাফর আহম্মদের ডিভিশন বেঞ্চ আদালতে হাজির হয়ে অভিযুক্ত ১০ আসামী আগাম জামিনের আবেদন করলে আদালত দশ জনের আগাম জামিন মঞ্জুর করেন।
অপরদিকে বান্দরবান জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা’র নেতৃত্বে জেলা আওয়ামীলীগের ১০ নেতা গতবুধবার সন্ধ্যায় সংসদ ভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন। পার্বত্য চট্টগ্রামের জনসংহতি সমিতি (জেএসএস) চাঁদাবাজি, অপহরণ সর্ম্পকে প্রধানমন্ত্রী’কে লিখিতভাবে জানানোর কথা জানিয়েছেন জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি একেএম জাহাঙ্গির।
এদিকে অপহরণের ৪৬ দিন পরও অপহৃত আওয়ামীলীগ নেতার কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি। অপহৃত’কে উদ্ধারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে জানিয়েছেন সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিক উল্লাহ।