বান্দরবানের থানছিতে গেল আরো ৬৩ মেট্টিক টন চাল

প্রকাশ:| সোমবার, ৩০ মে , ২০১৬ সময় ০৮:০০ অপরাহ্ণ

চাল বিতরণ বান্দরবান
বান্দরবান প্রতিনিধি ॥
বান্দরবানের থানছিতে দূর্গমাঞ্চলে বিমান বাহিনীর হেলিকপ্টারে পাঠানো হয়েছে আরো সাড়ে ৬৩ মেট্টিক টন চাল। আজ সোমবার দ্বিতীয় দফায় হেলিকপ্টারে চালগুলো দূর্গমাঞ্চলে পৌছানো হয়েছে।
প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা জানায়, জেলার থানছি উপজেলার রেমাক্রী, তীন্দু, সদর এবং বলিপাড়া চারটি ইউনিয়নের দুর্গমাঞ্চলে জিন্নাপাড়া, বাকলাই পাড়া, দলিয়ান পাড়া, বড়মদক ভীতর পাড়া, হৈয়োক খুমী পাড়া, যোগী চন্দ্র পাড়া, দুলুপাড়া’ রেমচং পাড়া’সহ আশপাশের পাহাড়ী গ্রামগুলোতে সাময়িকভাবে দেখা দেয়া ভাতের চালের সংকট মোকাবেলায় এ পর্যন্ত চার দফায় নদীপথে এবং হেলিকপ্টারে করে একশ ১৮ মেট্টিক টন চাল পাঠানো হয়েছে। জরুরী ভিত্তিতে প্রথম দফায় জেলা প্রশাসনের ত্রাণ শাখা থেকে ১৬ মেট্টিক টন এবং দ্বিতীয় দফায় ৩০ মেট্টিক চাল নদীপথে দূর্গমাঞ্চলগুলোতে পাঠানো হয়। বরাদ্দ দেয়া চালগুলো স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে বিতরণ করা হয়। এছাড়াও পরবর্তীতে সরকারের ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে ১শ মেট্টিক টন খাদ্য শষ্য বরাদ্দ দেয়া হয়। ত্রান মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দ দেয়া চালের মধ্যে প্রথম দফায় হেলিকপ্টারে সাড়ে ৮ মেট্টিক টন এবং সোমবার দ্বিতীয় দফায় হেলিকপ্টারে আরো সাড়ে ৬৩ মেট্টিকটন চাল পাঠানো হয়েছে।
স্থানীয় রেমাক্রী ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মুই শৈ থুই মারমা রনি বলেন, বরাদ্দ দেয়া ত্রানের চালগুলো সংকটে থাকার পরিবারগুলোর তালিকা অনুযায়ী বিতরণ করা হচ্ছে। পর্যাপ্ত পরিমাণে বরাদ্দ দেয়ায় চালের আর কোনো ধরণের সংকট নেই এখন থানছি উপজেলায়।
জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিক জানান, জেলা প্রশাসন এবং ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এ পর্যন্ত ১১৮ মেট্টিক টন চাল পাঠানো হয়েছে দূর্গত এলাকাগুলোতে। কোনো ধরণের খাদ্য সংকট নেই। প্রায় আড়াই হাজার মানুষের মধ্যে সাময়িকভাবে চালের সংকট দেখা দিলেও দ্রুত পদক্ষেপ নিয়ে সংকট মোকাবেলা করা সম্ভব হয়েছে। সরকারের কাছে আরো পর্যাপ্ত চাল মওজুদ রয়েছে।