বাণিজ্য ঘাটতি ৫০০ কোটি ডলার

প্রকাশ:| রবিবার, ১৬ জুন , ২০১৩ সময় ১১:৫৯ অপরাহ্ণ

বাণিজ্যমন্ত্রী জিএম কাদের জানিয়েছেন, চলতি অর্থবছরে গত এপ্রিল পর্যন্ত আমদানি ও রফতানির ক্ষেত্রে দেশে বাণিজ্য ঘাটতি হচ্ছে প্রায় ৫০০ কোটি ডলার।বাণিজ্য ঘাটতি ৫০০ কোটি ডলার
বাণিজ্যমন্ত্রী জিএম কাদের।gm-quader_5325_0

দুই দিন বিরতির পর রোববার বিকেলে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে জাতীয় সংসদের অধিবেশন শুরু হলে টেবিলে উপস্থাপন করা প্রশ্নোত্তর পর্বে বাণিজ্যমন্ত্রী সংসদকে এ তথ্য জানান।

সাধনা হালদারের এক প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী সংসদকে জানান, চলতি অর্থবছরের গত এপ্রিল মাস পর্যন্ত আমদানি ব্যয় হয়েছে ২ হাজার ৬৭৩ কোটি ৬২ লাখ ৫০ হাজার ডলার। আর রফতানি আয় হয়েছে ২ হাজার ১৭৮ কোটি ৩৯ লাখ ডলার। একই সময়ে বাণিজ্য ঘাটতির পরিমাণ হলো চার হাজার ৪৯৫ কোটি ৩১ লাখ ৬০ হাজার ডলার।

চলতি অর্থবছরে আগের তুলনায় আমদানি ও রফতানির মধ্যে পার্থক্য কমানো সম্ভব হয়েছে- উল্লেখ করে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, “রফতানি বৃদ্ধি করে এ পার্থক্য আরও কমানোর প্রচেষ্টা চলছে।”

একেএম মাইদুল ইসলামের অপর এক প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী জানান, বর্তমানে দেশে আট হাজার ২২০টি গার্মেন্ট কারখানা রয়েছে। এর মধ্যে সাত হাজার ৫২০টি কারখানা বিজিএমইএ এবং বিকেএমইএ’র সদস্যভুক্ত। অবশিষ্ট ৭০০টি গার্মেন্ট কারখানা এ দুই সংগঠনের কোনটিরই সদস্য নয়। এসব গার্মেন্ট কারখানা সাব-কণ্ট্রাক্টে কাজ করে।

জাফরুল ইসলাম চৌধুরী, এবিএম আশরাফ উদ্দিন নিজান ও সুকুমার রঞ্জন ঘোষের প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী জানান, আসন্ন রমজান উপলক্ষে সব শ্রেণীর মানুষের জন্য টিসিবি’র পক্ষ থেকে ন্যায্যমূল্যে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যসামগ্রী সরবরাহ করা হবে।

মন্ত্রী জানান, সারাদেশে দুই হাজার ৯৮৪ জন ডিলারের মাধ্যমে চিনি, মশুর ডাল, ছোলা, সয়াবিন তেল, পামঅয়েল ও খেজুর সরবরাহের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়া রমজানে ঢাকায় ২৫টি, চট্টগ্রামে ১০টি এবং অন্যান্য বিভাগীয় শহরে পাঁচটি ও জেলা শহরে দু’টি করে ট্রাকসেলের ব্যবস্থা করা হয়েছে। রমজান মাস শুরুর ২০ দিন আগে টিসিবি পণ্যবিক্রি কার্যক্রম শুরু করবে।


আরোও সংবাদ