বাণিজ্য ক্ষেত্রে চট্টগ্রামের প্রতি বৈষম্য কেন?

প্রকাশ:| সোমবার, ৬ নভেম্বর , ২০১৭ সময় ১২:৩২ পূর্বাহ্ণ

 

৫ নভেম্বর ২০১৭ইংরেজী কার্যকরী পরিষদের মাসিক সভার আলহাজ্ব সোলায়মান বাদশা’র সভাপতিত্বে সাধারণ সম্পাদক এহছান উল্লাহ জাহেদীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় পরিবহন ক্ষেত্রে নরাজ্য ও মাঝির ঘাট গুদামের লেভার কর্তৃক বকশিস নামে চাঁদাবাজী বন্ধের প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়। সাথে সাথে স্থল বন্দর কর্তৃক অর্থ মন্ত্রণালয়ের পণ্য নির্ধারণী শুল্ক আদায় ক্ষেত্রে এক এক বন্দর এক এক নিয়মে নিজেদের মত করে শুল্ক আদায়ে অনিয়ম দূর করার জন্য অর্থ মন্ত্রণালয়ের হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়। তাছাড়া নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের গাড়ীর সিরিয়ালের ক্ষেত্রে দৃরদৃষ্টি দেওয়ার জন্য কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা ও চট্টগ্রাম বন্দরকে বাংলাদেশের অর্থনীতির হৃদপিন্ড বলা হয়। দেশের শতকরা ৮০ ভাগ পণ্য চট্টগ্রাম বন্দর হয়ে আসে। কিন্তু অনুমতি পত্র আনার ক্ষেত্রে ঢাকা থেকে অনুমতি দেওয়া চট্টগ্রামের প্রতি চরমভাবে বৈষম্য যার ফলে যেমন সময়ের অপচয় ও অর্থের বিরাট ক্ষতি হচ্ছে প্রতিনিয়ত ব্যবসায়ীদের। আমরা সরকারের কাছে আবেদন রাখছি বানিজ্য অনুমতি চট্টগ্রাম বাণিজ্য শাখা হতে দেওয়া হউক।
সভায় বক্তব্য রাখেন সিনিয়র সহ সভাপতি হাজী সাহাব উদ্দিন, আলহাজ্ব মহিউদ্দিন, সহ সাধারণ সম্পাদক হাজী আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক সজল মুহুরী, অর্থ সম্পাদক শহীদুজ্জামান টিটু, সহকারী অর্থ সম্পাদক আহসান খালেদ, প্রচার সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন তপন, নির্বাহী সদস্য ইউছুপ গাজী, মনির হোসেন গাজী, রাশেদুল আলম চৌধুরী, মেহেদী হাসান, মিন্টু পোদ্দার প্রমুখ ।