বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বাড়াতে বাংলাদেশ, চীন, ভারত ও মিয়ানমারকে নিয়ে গঠিত হচ্ছে আন্তঃদেশীয় সংযোগ ও বাণিজ্য ফোরাম

প্রকাশ:| শুক্রবার, ৩১ জানুয়ারি , ২০১৪ সময় ০৫:২০ অপরাহ্ণ

বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বাড়াতে বাংলাদেশ, চীন, ভারত ও মিয়ানমারকে নিয়ে গঠিত হচ্ছে আন্তঃদেশীয় সংযোগ ও বাণিজ্য ফোরাম বিসিআইএম। বিষয়টি এখন চূড়ান্ত পর্যায়ে। বাণিজ্য সমপ্রসারণে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ান দেশগুলোর অর্থনৈতিক ফোরাম আসিয়ানে যুক্ত হওয়ার কথাও ভাবছে সরকার। গতকাল বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ ভারতের হাইকমিশনার পঙ্কজ শরণের সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদেরকে এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, বাণিজ্য বাড়াতে সব ধরনের উদ্যোগই নেবে সরকার। তিনি বলেন, কানেক্টিভিটি বাড়লে বাণিজ্যও বাড়বে। সচিবালয়ে বাণিজ্যমন্ত্রীর দপ্তরে তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে আসেন পঙ্কজ। বাণিজ্যমন্ত্রী ভারতে পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্র বিদ্যমান বিভিন্ন বাধা অপসারণের আহ্বান জানান। সাংবাদিকদেরকে মন্ত্রী বলেন, ভারত বাংলাদেশকে তামাক ও অ্যালকোহল ছাড়া সব পণ্যের শুল্ক ও কোটামুক্ত প্রবেশাধিকার দিয়েছে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে ট্যারিফ ও নন-ট্যারিফ জটিলতা আছে। ভারতের সঙ্গে আলোচনা করে সে সব জটিলতা দূর করা হবে। ভারতের বাজারে বাংলাদেশের পণ্য রপ্তানি বৃদ্ধি পেয়েছে। বাংলাদেশ রপ্তানি বৃদ্ধির এ প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবে। সঙ্গত কারণে ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের বাণিজ্য ঘাটতি কমে আসবে। তিনি বলেন, ভিসা নিয়েও ব্যবসায়ীদের অনেক অভিযোগ আছে। হাইকমিশনারের সঙ্গে এ বিষয় নিয়েও আলোচনা করা হয়েছে। পারস্পরিক আলোচনার মাধ্যমে এ সমস্যার সমাধান করা হবে। তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশে ভারতের প্রায় ২৫০টি প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগ রয়েছে। বৈঠক শেষে পঙ্কজ শরণ বলেন, ভারত দুই দেশের মধ্যে বিরাজমান সব বাধা দূর করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। গত কয়েক বছরে ভারতে বাংলাদেশের রপ্তানি অনেক বেড়েছে। তবে এখনও দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্য ব্যবধান ব্যাপক। তিনি বলেন, বাণিজ্য মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে বাণিজ্য, বিনিয়োগ এবং সড়ক, রেল, টেলিকমসহ সব ধরনের যোগাযোগ বাড়ানোর বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।