বাংলাদেশ ১০৩/২

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ১০ অক্টোবর , ২০১৩ সময় ০৮:৩২ অপরাহ্ণ

মমিনুলের ৭৭
চট্টগ্রাম টেস্টের দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষে প্রথম ইনিংসে সফরকারী নিউজিল্যান্ডের চেয়ে ৩৬৬ রানে পিছিয়ে আছে টাইগাররা।

মমিনুল হক
নিজেদের প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ধাক্কা খায় বাংলাদেশ। দলীয় ৮ রানেই সাজঘরে ফিরে যান দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল ও এনামুল হক।

বুধবার সকালে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে টসে জিতে ব্যাট করতে নামে সফরকারী নিউজিল্যান্ড। বৃহস্পতিবার ম্যাচের দ্বিতীয় দিনে মধ্যাহ্ন বিরতির পর অলআউট হওয়ার আগে প্রথম ইনিংসে ৪৬৯ রানের বড় সংগ্রহ গড়ে অতিথিরা।

নিউজিল্যান্ডের পক্ষে উইলিয়ামসন ১১৪ ও ওয়াটলিং ১০৩ রান করেন।

বাংলাদেশের পক্ষে আব্দুর রাজ্জাক ৩টি, সোহাগ গাজী ও সাকিব আল হাসান ২টি এবং রুবেল হোসেন, নাসির হোসেন ও মমিনুল হক ১টি করে উইকেট নেন।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে নিজেদের প্রথম ইনিংসের প্রথম ওভারেই কোনো রান না করেই সাজঘরে ফিরে যান তামিম। বোল্টের বলে উইলিয়ামসনের হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হন তিনি।

ইনিংসের চতুর্থ ওভারের তৃতীয় বলে ব্রেসওয়েলের বলে এলবিডব্লিউর শিকার হয়ে তামিমের পথ ধরেন এনামুলও। তিনি করেন ৩ রান।

এরপর মার্শাল আইয়ুব ও মমিনুল হক প্রাথমিক ধাক্কা সামলে দলকে এগিয়ে নিতে থাকেন।

মার্শাল আইয়ুব দেখে-শুনে ব্যাট চালালেও মমিনুল আছেন অনেকটা মারমুখী ভূমিকায়। ৭৭ রান করতে তিনি বল খেলেছেন ৭১টি।

দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষে এই জুটির সংগ্রহ দাঁড়িয়েছে ৯৫ রান। শুক্রবার সকালে আবারও ব্যাট করতে নামবেন তারা।

আগামী ২১ অক্টোবর মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে হবে শুরু হবে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট।

এছাড়া টাইগারদের সঙ্গে ৩টি এক দিনের ম্যাচেও মুখোমুখি হবে সফরকারী নিউজিল্যান্ড। খেলাগুলো হবে ২৯ ও ৩১ অক্টোবর এবং ৩ নভেম্বর মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে।

আর সিলেট স্টেডিয়ামে ৬ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে সিরিজের একমাত্র টি-২০ ম্যাচটি। এই ম্যাচ দিয়েই বাংলাদেশ সফর শেষ করবে নিউজিল্যান্ড।

চট্টগ্রামে বাংলাদেশের ৬৯তম টেস্ট ক্রিকেটার হিসেবে অভিষেক হয়েছে মার্শাল আইয়ুবের। ম্যাচ শুরুর আগে তাকে টেস্ট ক্যাপ পরিয়ে দেন সাবেক অধিনায়ক আকরাম খান।
নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টাইগারদের সেরা একাদশ গঠন নিয়ে নির্বাচক হাবিবুল বাশার সুমনকে বেশ বেগ পেতে হয়েছিল দলের তিন ও চার নম্বরের ব্যাটিং সিলেকশন নিয়ে। এই তিন ও চার নম্বর ব্যাটিং অর্ডারের জন্য নির্বাচকদের বিবেচনায় ছিল নাঈম ইসলাম, মমিনুল হক ও অভিষিক্ত মার্শাল আইয়ূব।

এই তিনজন থেকে দু’জনকে বেছে নিতে নির্বাচক সুমন ও কোচ জার্গেনসন চেয়েছিলেন এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে বিসিবি একাদশ ও কিউইদের প্রস্তুতি ম্যাচের নৈপূণ্য পরখ করে সেরা একাদশে জায়গা দিতে। কিন্তু বৃষ্টিতে প্রস্ততি ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ায় শেষ পর্যন্ত নির্বাচকরা আস্থা রাখলেন মাত্র তিন ম্যাচ খেলা কক্সবাজারের ছেলে মমিনুল হক ও নবাগত মার্শাল আইয়ূবের ওপর।

বাংলাদেশ ম্যাচের ২য় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে দলীয় একরানের মাথায় হারায় লোকাল হিরো তামিম ইকবালকে। এরপর দলীয় আট রানের মাথায় ফের সাজ ঘরে ফিরেন আরেক নির্ভরযোগ্য ওপেনিং ব্যাটসম্যান আনামুল হক। চট্টগ্রাম টেস্টে শুরুতে হোঁচট খাওয়া টাইগারদের ম্যাচে ফেরান মমিনুল ও মার্শাল। নির্বাচকদের প্রতিদান দিয়েছেন তৃতীয় উইকেট জুটিতে ৯৫ নম্বর রানে অপরাজিত থেকে দিন শেষ করে। এন্ডারসনের বলে চার মেরে মাত্র ৩৬ বলে অর্ধশতক পূরণ করেন মার্চে শ্রীলঙ্কায় গল টেস্টে অভিষেক হওয়া মমিনুল।

কক্সবাজরের সদরের গোলদীঘির পাড়ের বাসিন্দা মমিনুলের দলের চরম মুহুর্তে হাল ধরার ঘটনাকে সত্যিই প্রশংসিত বললেন বিপক্ষ দলের সেঞ্চুরিয়ান ওয়াটলিং। ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘দলের চরম বিপর্যয়ে মমিনুল সাহসের সাথে খেলে তার টিমকে ম্যাচে ফিরিয়েছেন। তিনি সত্যিই ভালো খেলেছেন।’