বাংলাদেশ যতদিন থাকবে ততদিন সমুজ্জ্বল থাকবেন মানিক মিয়া: চবি ভিসি

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ৩১ মে , ২০১৬ সময় ১০:০৯ অপরাহ্ণ

ভিসি-মানিক মিয়াচট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) উপাচার্য ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী বলেছেন, ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ যতদিন বেঁচে থাকবে, তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া ততদিন বাঙালী জাতির জীবনে সমুজ্জল হয়ে থাকবেন। স্বাধীন বাংলাদেশের ইতিহাসে মহান এ ব্যক্তিত্বের অবদান চিরকাল অম্লান থাকবে।’

মঙ্গলবার বিকালে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজে সংবাদপত্র জগতের পথিকৃৎ দৈনিক ইত্তেফাকের প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া স্মরণে ‘তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া, দৈনিক ইত্তেফাক ও আজকের বাংলাদেশ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, বঙ্গবন্ধু বাঙালী জাতিকে স্বাধীনতার স্বাদ এনে দিলেও মানিক মিয়ার অবদানও কোনো অংশে কম ছিলোনা। মানিক মিয়াই বাঙালী জাতিকে জাগরিত করতে বঙ্গবন্ধুর জন্য ক্ষেত্র প্রস্তুত করেছিলেন, যা বঙ্গবন্ধু তাঁর লেখায় স্বীকারও করেছেন। অথচ তিনি (মানিক মিয়া) যে বিশাল পরিধির ব্যাক্তিত্ব, বাঙালী জাতির ইতিহাসে তাঁর যে অবদান ও কর্মকা- তা ঠিকমতো উন্মোচিত হয়নি।

প্রতিটি জাতির কিছু অনুস্মরণীয় ব্যাক্তিত্ব থাকে উল্লেখ করে তিনি বলেন, বিশাল ক্যানভাসের কিছু মানুষ থাকেন। মানিক মিয়া সে রকমই বিশাল ক্যানভাসের একজন ব্যক্তিত্ব। নতুন প্রজন্মের মাঝে তাঁর মতো ব্যক্তিত্বতে অনুস্মরণের মানসিকতা তৈরি করতে পারলে তারা অনেকদূর এগিয়ে যেতে পারবে।’

এ সময় তিনি মানিক মিয়ার কর্মকাণ্ড পরিচিত করতে চবি শিক্ষার্থীদের জন্য লাইব্রেরিতে মানিক মিয়া কর্ণার করার আশ্বাস দেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিশিষ্ট চিকিৎসক ও চিটাগাং ক্লাবের সাবেক চেয়ারম্যান ডা. মঈনুল ইসলাম মাহমুদ বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু, মানিক মিয়ারা বাংলাদেশকে নিয়ে যে স্বপ্ন দেখেছিলেন তা আজ পুরোপুরি বাস্তবায়িত হচ্ছেনা। একমাত্র বঙ্গবন্ধু কণ্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়া বাকি যেসব রাজনীতিবিদ আছেন তাদের দেশপ্রেম প্রশ্নবোধক। মানিক মিয়ারা খেটে খাওয়া মানুষের কথা বলেছিলেন। একটি সুন্দর গণতান্ত্রিক বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছিলেন। অথচ আজ দেশে উন্নয়ন কর্মকান্ড নিয়ে প্রশ্ন না থাকলেও গণতন্ত্রের বিকাশ নিয়ে প্রশ্ন উঠছে।’

দৈনিক ইত্তেফাকে চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান সালাহউদ্দিন মো. রেজা বলেন, ‘একটি পত্রিকা যে সমাজ পরিবর্তনের হাতিয়ার হতে পারে, একটি স্বাধীনতাকামী একটি জাতির মুখপত্র হয়ে উঠতে পারে ইত্তেফাকের মাধ্যমে তা দেখিয়েছেন মানিক মিয়া। বিশ্বের ইতিহাসে এমন ঘটনা বিরল।’

সাংবাদিক সৈয়দ আবদুল ওয়াজেদ বলেন, ‘মানিক মিয়া শুধু একজন সম্পাদক ছিলেন না, তিনি একজন সমাজবিজ্ঞানীও ছিলেন। তিনি বাঙালী জাতির দুঃখ দুর্দশা, স্বাধীনতার আকাংঙ্খা ও সর্বপোরি বাঙালী মনোস্তত্ব বুঝতে পেরেছিলেন। এ কারণে তিনি এ জাতির ইতিহাসের গুরত্বপূর্ণ স্থানে আসীন হয়েছেন।’

স্বাধীন সংবাদপত্র পাঠক সমিতির আয়োজনে সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সভাপতি সাংবাদিক এস এম জামাল উদ্দিনের সভাপতিত্বে ও নাজিম উদ্দিনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে সংগঠনের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা এম এ সামাদ খান, এডভোকেট মো. আমির হোসেন, সাংবাদিক মিজানুর রহমান চৌধুরী, রাজনীতিবীদ সোহেল মাহমুদ, নুর মোহাম্মদ পুতুল, ওসমান জাহাঙ্গীর, এডভোকেট মাশকুরা বেগম মেহরি, কবি সজল দাশ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।


আরোও সংবাদ