‘বাংলাদেশ কখনো আফগানিস্তান, পাকিস্তান ও ইরাকে পরিণত হবে না’

প্রকাশ:| শনিবার, ১৩ আগস্ট , ২০১৬ সময় ০৯:৫৯ অপরাহ্ণ

পূর্ব সমাবেশ
১৪ দল চট্টগ্রামের সমন্বয়ক ও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব এ.বি.এম মহিউদ্দিন চৌধ্রুী বলেছেন, অনৈতিক ব্যবসার সাথে সম্পৃক্ত একটি গোষ্ঠি জঙ্গিবাদকে মদদ দিচ্ছে। এরা আন্তর্জাতিক সন্ত্রাস ও মাফিয়া চক্রের এজেন্ট। এরা বাংলাদেশকে আফগানিস্তান, পাকিস্তান ও ইরাকে পরিণত করতে চায়। ৭১’র যুদ্ধ বিজয়ী একটি জাতি এই মাটিতে জঙ্গিবাদ নির্মূলে আমাদের সন্তানদের নিয়ে আরেকটি মুক্তিযুদ্ধের ডাক দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা। এই ডাকে সাড়া দিয়েছে চট্টগ্রামের জনগণ। আমরা ইতোমধ্যে চট্টগ্রাম মহানগরীর ১১টি থানায় সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ সমাবেশ ও পদযাত্রা সম্পন্ন করে প্রমাণ করেছি আমরা জঙ্গিবাদ বিরোধী চুড়ান্ত লড়ায়ের জন্য প্রস্তুত। তিনি আজ বিকেলে ১৪ দল চট্টগ্রামের সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বিরোধী কর্মসূচির অংশ হিসেবে পাহাড়তলী থানার অংলকার চত্বরে পদযাত্রা ও জনসংযোগ পূর্ব সমাবেশে সভাপতির ভাষণে এ কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, আমরা প্রতিটি এলাকায় মহল্লায় জনগণকে সাথে নিয়ে ১৪ দলের উদ্যোগে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বিরোধী গণজাগরণ সৃষ্টি করতে পেরেছি। এই অর্জনের ধারাবাহিকতায় ১৪ দল চট্টগ্রামের কর্মসূচি একটি নতুন মাইল ফলক রচনা করেছে। আমাদের লক্ষ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় এ দেশকে জঙ্গিবাদ মুক্ত করে অসম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক ও প্রগতিমূখী সমাজ নির্মাণ করা। তিনি আরো বলেন, আমাদের সমাজের নবপ্রজন্মকে কুলশীত করার জন্য ইয়াবা আগ্রাসন চলছে। এই আগ্রাসন বাদীরা ধর্মের নামে নতুন প্রজন্মকে মগজ দোলাই করে পবিত্র ইসলামের নামে ধর্ম ও মানব সভ্যতাকে ধ্বংসের দিকে ঢেলে দিচ্ছে। তিনি এই অপতৎপরাতার বিরুদ্ধে দেশপ্রেমিক শক্তিকে জেগে উঠার আহবান জানিয়ে বলেন, আমরা এমনি একটি শক্তি যারা ত্রিশ লক্ষ প্রাণের বিনিময়ে এই দেশকে স্বাধীন করেছি। এই স্বাধীন দেশে মানবতা ও ধর্ম বিরোধীদের ঠাঁই হবে না। যারা এই অপশক্তিকে আশ্রয়-প্রশ্রয় দিচ্ছেন তাদেরকেও আমরা চিহ্নিত করছি। তাদেরকে অবশ্যই আইনের আওতায় আনা হবে। চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দীন বলেন, পবিত্র কোরাআন ও হাদিসের কোথাও জিহাদের নামে নিরিহ মানুষ হত্যার নির্দেশনা নেই। আজ বাংলাদেশে ৭১’র পরাজিত শক্তিরা এ জাতির অগ্রজাতিকে নস্যাৎ করার জন্য জঙ্গিবাদকে আশ্রয়-প্রশ্রয় দিয়ে একটি অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই অপশক্তির বিরুদ্ধে নেতৃত্ব দিচ্ছে। এই লড়াইয়ে আমাদেরকে অবশ্যই জিততে হবে তা না হলে স্বাধীনতা মানবতা ধর্ম ও সভ্যতা বিপন্ন হবে। তাই ১৪ দল চট্টগ্রামে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বিরোধী এই গণজাগরনকে যৌক্তিক পরিণতির দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে আমাদের প্রত্যেকে স্ব-স্ব অবস্থান থেকে প্রস্তুতি গ্রহণ করতে হবে।ওয়ার্কার্স পার্টির জেলা সাধারণ সম্পাদক সামশুদ্দিন খালেদ সেলিম বলেন, ১৪ দল জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে যে রাজনৈতিক লড়াই শুরু করেছে তাকে কাঙ্কিত লক্ষে পৌঁছে দেয়ার জন্য আরেকটি জনযুদ্ধের সফল পরিসমাপ্তি ঘটাতে হবে। চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আলহাজ্ব শফিকুল ইসলাম ফারুকের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিতব্য সমাবেশে বক্তব্য রাখেন-মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আলহাজ্ব আলতাফ হোসেন চৌধুরী বাচ্চু, সাম্যবাদী দলের আহবায়ক অমূল্য বড়–য়া, গণআজাদী লীগের আহবায়ক মাওলানা নজরুল ইসলাম আশরাফী, জাতীয় পার্টি (জেপি) আহবায়ক আজাদ দোভাষ, মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ, নির্বাহী সদস্য প্যানেল মেয়র নিছার উদ্দিন আহমেদ মঞ্জু, থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব নুরুল আবছার মিয়া, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ আসলাম হোসেন, উত্তর পাহাড়তলী ওয়ার্ড সাধারণ সম্পাদক এরশাদ মামুন, সরাইপাড়া ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক শওকত আলী, মহানগর ছাত্রলীগ সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু। এছাড়া সমাবেশ মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন-মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব বদিউল আলম, মহানগর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা আলহাজ্ব শফর আলী, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য শফিক আদনান, এডভোকেট ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, চন্দন ধর, মশিউর রহমান চৌধুরী, আবদুল আহাদ, মহানগর ন্যাপ নেতা মিঠুল দাশ গুপ্ত, আলহাজ্ব শহিদুল আলম, কার্যনির্বাহী সদস্য এম.এ জাফর, আবুল মনসুর, সৈয়দ আমিনুল হক, কামরুল হাসান বুলু, গৌরাঙ্গ চন্দ্র ঘোষ, বখতিয়ার উদ্দিন খান, অমল মিত্র, কাউন্সিলর মোরশেদ আকতার চৌধুরী, থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী আলতাফ হোসেন, পতেঙ্গা থানার এ.এস.এম ইসলাম, মোজাফফর আহমদ মাছুম, হাসান মনসুর, কাউন্সিলর সলিমউল্লাহ বাচ্চু, সরওয়ার মোর্শেদ কচি, গিয়াস উদ্দিন জুয়েল, ইকবাল চৌধুরী, হাবিবুর রহমান চৌধুরী, দিলদার খান দিলু, জয়নাল আবেদীন আজাদ, মহাগর যুবলীগের দেলোয়ার হোসেন খোকা, ফরিদ মাহমুদ প্রমুখ। সমাবেশ শেষে মহিউদ্দিন চৌধুরী ও আ.জ.ম নাছির উদ্দিন এবং ১৪ দলের নেতৃত্বে পদযাত্রা ও গণসংযোগ মিছিলটি সমাবেশ স্থল থেকে শুরু হয়ে ভিক্টোরী জুট মিল গেইট সম্মুখে গিয়ে পদযাত্রার মিছিলটি সমাপ্তি ঘোষনা করেন।