বাংলাদেশের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা প্রস্তুতির ভূয়সী প্রশংসা

প্রকাশ:| রবিবার, ২০ এপ্রিল , ২০১৪ সময় ১০:৩৪ অপরাহ্ণ

বাংলাদেশের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা প্রস্তুতির ভূয়সী প্রশংসা করে জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন বলেছেন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ বিশ্বে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

তিনি জাতিসংঘের মানবিক ও জরুরি দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগ আয়োজিত জাতিসংঘ সদর দপ্তরে বিশ্বে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত এক ব্রিফিংয়ে এ কথা বলেন।

ব্রিফিংয়ে উপস্থিত বাংলাদেশ মিশনের মান্যবর স্থায়ী প্রতিনিধি ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, জলবায়ুজনিত ঝুঁকির কারণে বাংলাদেশের মানুষ প্রকৃতির সঙ্গে যুদ্ধ করে বাঁচে। সেই সংগ্রামে জাতিসংঘ কর্তৃপক্ষের স্বীকৃতি তাদের অনুপ্রেরণা হয়ে থাকবে। যেকোনো দুর্যোগ মোকাবিলায় বর্তমান সরকারের তাৎক্ষণিকভাবে ঝাঁপিয়ে পড়ার বিষয়টি তিনি তুলে ধরেন।

জাতি সংঘের বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন থেকে আজ এখানে প্রাপ্ত এক বার্তায় আজ এ কথা বলা হয়। ব্রিফিংয়ে জাতিসংঘ মহাসচিব তিনটি বিশেষ পরামর্শ দেন। পরামর্শ তিনটি হচ্ছে- আমাদেরকে এমডিজির লক্ষ্যপূরণ করতে হবে, পোস্ট ২০১৫ উন্নয়ন এজেন্ডার রূপরেখা তৈরি করা এবং বিশ্বে জলবায়ু পরিবর্তনের উপর একটি সর্বজনীন আইনি চুক্তি গ্রহণ করা। তিনি দুর্যোগ মোকাবিলায় প্রিভেন্টিভ ব্যবস্থার সুপারিশ করেন। যার ফলে মানুষের অস্থিরতা ও কষ্ট অনেকাংশে কমে যাবে।

জাতিসংঘের প্রধান বলেন, জনসংখ্যার ঘনত্বের বিচারে বাংলাদেশ পৃথিবীর সবচেয়ে জনাধিক্যের দেশ। গত ২০ বছরে দেশটির ১৩৫ মিলিয়ন লোক প্রাকৃতিক দুর্যোগ কবলিত হয়েছে। তিনি বাংলাদেশ সরকারের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা প্রস্তুতির ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন, দেশটির গ্রামীণ পর্যায়ে সরকারি উদ্যোগে ৬২ হাজার স্বেচ্ছাসেবী দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিষয়ক প্রশিক্ষণ প্রদান এবং যেকোন দুর্যোগের পর দ্রুত সাড়া দিতে ২৫ হাজার কমিউনিটি স্বেচ্ছাসেবী প্রস্তুত রাখা সত্যিই দুর্যোগপ্রবণ বিশ্বের অন্য দেশগুলোর জন্য অনুসরণীয় হতে পারে।

জাতিসংঘ মহাসচিবের এই মূল্যায়নে তাঁকে ধন্যবাদ জানান ব্রিফিংকালে সভামঞ্চে উপস্থিত বাংলাদেশ মিশনের স্থায়ী প্রতিনিধি ড. এ কে আব্দুল মোমেন। প্রসঙ্গক্রমে ড. এ কে আব্দুল মোমেন সভায় উপস্থিত সবাইকে উদ্দেশ করে বলেন, বাংলাদেশে কোনো মানবিক সংকট নেই। সরকার যেকোনো ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও দুর্ঘটনার বিরুদ্ধে অসম্ভব দ্রুততায় পরিস্থিতি মোকাবিলায় ঝাঁপিয়ে পড়ে।

মহাসচিব ড. এ কে আব্দুল মোমেনের এই বক্তব্যের সঙ্গে একমত পোষণ করে সাম্প্রতিক আশুলিয়ায় তাজরীন গার্মেন্টে অগ্নিকাণ্ড ও রানা প্লাজা ধ্বসের পর সরকারের ভূমিকা বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সার্বক্ষণিক মনিটরিংয়ের বিষয়টি তুলে ধরে বাংলাদেশকে দুর্যোগ মোকাবিলায় বিশ্বের দৃষ্টান্ত হিসেবে