‘বাংলাদেশকে ধ্বংস করার ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে বাঙালি গর্জে উঠেছে’

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২৪ মে , ২০১৬ সময় ০৯:৪৪ অপরাহ্ণ

বিশাল-নাসিম
কেন্দ্রীয় ১৪ দলের সমন্বয়ক, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম এম.পি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সাংবিধানিক ও গণতান্ত্রিক সরকারকে উৎখাতের উদ্দেশ্যে বিএনপি বিশ্ব শান্তি ও মুসলিম উম্মাহর শত্রু ইসরাইলের ভয়ঙ্কর গোয়েন্দা সংস্থা সোসাদের সাথে হাত মিলিয়ে জাতীয় নিরাপত্তা, স্বাধীনতা ও রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অবলম্বন নিয়েছে। আজ স্পষ্ট এই প্রমাণিত যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষায় ব্যর্থ বেগম জিয়া ও পাকিস্তানী বশংবদরা বাংলাদেশকে ধ্বংস করতে চায়। এই ঘৃণ্য অপরাধ ও চক্রান্তের বিরুদ্ধে জাতিকে গর্জে ওঠার শক্তি অর্জন করতে হবে। তিনি আজ বিকেলে লালদিঘি ময়দানে সরকার উৎখাতের চক্রান্ত মোকাবেলা, গুপ্ত হত্যা, নাশকতা ও ইয়াবা ব্যবসা বন্ধের দাবীতে ১৪ দল চট্টগ্রাম আয়োজিত বিশাল জনসভায় প্রধান অতিথির ভাষণে এ কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশকে অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত করার জন্য মুক্ত চিন্তার মানুষ ও উদারনৈতিক ধর্মীয় ব্যক্তিত্বকে গুপ্ত হত্যা করছে। দেশের ভেতরে অরাজকতা এবং অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির জন্য দেশের বাইরে থেকে চক্রান্তের কলকঠি নাড়া হচ্ছে। যারা এসব করছে তাদেরকে আমরা চিনি। তাদেরকে দেশে ফিরিয়ে এনে বিচার ও শাস্তির মুখোমুখি করার জন্য ১৪ দল দেশব্যাপী গণজোয়ার সৃষ্টি করবে। তিনি জনগণকে উদ্দেশ্যে করে বলেন, ২০১৯ সালে নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত থাকুন এবং প্রমান করুণ বাংলাদেশ আত্মশক্তিতে বলীয়ান হয়ে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে সকল ষড়যন্ত্র মোকাবেলার হিম্মত রাখে। বিশেষ অতিথির ভাষণে জাসদ কেন্দ্রীয় কার্যকরী সভাপতি মঈন উদ্দিন খান এম.পি বলেছেন, শেখ হাসিনা চট্টগ্রামের উন্নয়নের লক্ষ কোটি টাকার বরাদ্দ দিয়েছেন। তাই চট্টগ্রামবাসী তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞ এবং সাহসী নেতৃত্ব প্রমাণ করে তিনি বঙ্গবন্ধুর যোগ্য উত্তরসূরী এই দেশকে তিনি যুদ্ধাপরাধীমুক্ত করছেন। আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস তিনি বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত বাঙালির অর্থনৈতিক মুক্তি নিশ্চিত করবেন। জাতীয় পার্টির (জেপি) মহাসচিব সাবেক মন্ত্রী শেখ শহীদুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশ আজ গরীব রাষ্ট্র নয়। অচিরেই মধ্যে আয়ের দেশে পরিণত হচ্ছে। তবে আমাদের মনে রাখতে হবে বিএনপি-জামাত বসে নেই। তারা দেশকে ধ্বংস করতে চায়। তাদেরকে নির্মুল করার শক্তি সঞ্চয় করতে হবে। সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক সাবেক মন্ত্রী দিলীপ বড়–য়া বলেন, ১৪ দল একটি ইতিবাচক রাজনৈতিক শক্তি। এই শক্তিই জননেত্রী শেখ হাসিনার বিচক্ষণ নেতৃত্বে জাতিকে অর্থনৈতিক মুক্তির সন্ধান দেবে। ওয়ার্কাাস পার্টির পলিট ব্যুরো সদস্য কামরুল হাসান বলেন, প্রগতিবাদ বাংলাদেশের অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক চেতনাকে সমৃদ্ধ করতে পারে। জাসদের সাধারণ সম্পাদক নারী নেত্রী শিরিন আকতার এমপি বলেন, মানুষের মাঝে শুভ চেতনাকে জাগিয়ে তুলতে আমাদেরকে মানুষের সাথেই মিলে-মিশে থেকে জনগণের স্বরূপ প্রতিষ্ঠা করতে হবে। চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের অন্যতম সহ সভাপতি মাহতাব উদ্দিন এর সভাপতিত্বে এবং ওয়ার্কাস পার্টির জেলা সভাপতি এডভোকেট আবু হানিফ ও মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ফারুকের সঞ্চালনায় অনুিষ্ঠত জনসভায় বক্তব্য রাখেন ন্যাপ কেন্দ্রীয় সাধারন সম্পাদক এডভোকেট এনামুল হক, তরিকত ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় মহাসচিব এম এ আউয়াল এম.পি, কমিনিষ্ট কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক এম এ ওয়াজেদ, গণতন্ত্রী পার্টির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ডা: শাহাদাত হোসেন, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক ডা: বদিউজ্জামান ভূইয়া লাবলু, বাসদ পনিট ব্যুরো সদস্য আবদুস সামাদ, গণ আজাদী লীগের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি মাওলানা নজরুল ইসলাম আশরাফী সভায় বক্তাগণ চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনির আশু মুক্তির জন্য সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালানোর অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। সভা মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন সাবেক সাংসদ ও আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য ইছহাক মিয়া, জাতীয় পার্টির জেপি’র কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য এ এইচ এম সালাউদ্দিন মাহমুদ, জাসদ কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ইন্দু নন্দন দত্ত, মহানগর আওয়ামীলীগের আলহাজ্ব নঈম উদ্দিন চৌধুরী, এড. সুনীল কুমার সরকার, আলতাফ হোসেন চৌধুরী বাচ্চু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব বদিউল আলম, জাসদ কেন্দ্রীয় সম্পাদক মন্ডলীর আলহাজ্ব তৈয়বুর রহমান, নুরুল আলম মন্টু, আবু বকর সিদ্দিক, জ.উ.বাবুল, ন্যাপের এডভোকেট আলী আহমদ নাজির, ওয়ার্কাস পার্টির সম্পাদক শামসুদ্দিন খালেদ সেলিম, সাম্যবাদী দলের অমূল্য বড়–য়া, তরিকত ফেডারেশনের কাজী আহছানুল মোর্শেদ কাদেরী, গণতন্ত্রী পার্টির জেবল মুল্লুক, জাতীয় পার্টি জেপি আজাদ দোভাষ, মহানগর আওয়ামীলীগ সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য শফিক আদনান, এড. শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, চন্দন ধর, মশিউর রহমান চৌধুরী, আবদুল আহাদ, দিদারুল আলম চৌধুরী, আবু তাহের শহীদুল আলম, জহর লাল হাজারী, গণতন্ত্রী পার্টির স্বপন সেন, ন্যাপ নেতা মিটুল দাশ গুপ্ত, শ্রমিকলীগের কাজী মাহবুবুল হক চৌধুরী এটলী, জাহাঙ্গীর আলম, চৌধুরী, যুবলীগের আলহাজ্ব মহিউদ্দিন বাচ্চু, দেলোয়ার হোসেন খোকা, ফরিদ মাহমুদ। ছাত্রলীগ মহানগর সভাপতি ইমরান আহমদ ইমু। সভা চলাকালীন সময়ে কয়েতে চিকিৎসাধীন ১৪ দল চট্টগ্রামের সমন্বয়ক ও মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব এ.বি.এম মহিউদ্দিন চৌধুরী সমবেত জনতাকে অভিনন্দন জানিয়ে তাঁর জন্য দোয়া কামনার কথা জানান।