বসন্তে তান্ডবের বিরুদ্ধে শক্তি সঞ্চয়ের আহ্বান

প্রকাশ:| শুক্রবার, ১৩ ফেব্রুয়ারি , ২০১৫ সময় ১০:৩৬ অপরাহ্ণ

বসন্তের মৌতাতে জাগুক জীবনের জয়গান শ্লোগানে শুক্রবার (১৩ ফেব্রুয়ারী) পহেলা ফাল্গুন প্রমা আবৃত্তি সংগঠনের আয়োজনে দেশের টেলিকম কোম্পানী রবি নিবেদিত প্রমা বসন্ত উৎসব-২০১৫ অনুষ্ঠিত হয়েছে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় চারুকলা ইনস্টিটিউট প্রাঙ্গনে দিনব্যাপী এ উৎসব শুরু হয় ৮টায়। দি ভায়োলিনিস্ট চট্টগ্রামের বেহালার সুরে সুরে উৎসব শুরুর পর একের পর এক চলতে থাকে নৃত্য, কবিতা, গান, মুকাভিনয় ইত্যাদি। দৈনিক আজাদীর সম্পাদক এম.এ. মালেকের উদ্বোধনী বক্তব্য, প্রমার সভাপতি আবৃত্তিশিল্পী রাশেদ হাসানের বসন্তকে আহবান করে রবীন্দ্রনাথের নির্ঝরের স্বপ্নভঙ্গ কবিতার আবৃত্তি ও বক্তব্য, প্রমার সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিৎ পালের স্বাগত বক্তব্য, ঢোলের মুর্ছনা ও দুইশতাধিক বেলুন উড্ডয়নের মাধ্যমে প্রমা বসন্ত উৎসবের উদ্বোধনী পর্ব অনুষ্ঠিত হয়। উদ্বোধকের উদ্বোধন ঘোষণার সাথে সাথে সমগ্র উৎসব প্রাঙ্গন নানান রঙের বেলুন রঙ্গিন হয়ে ওঠে চারুকলা প্রাঙ্গন। উদ্বোধনী পর্বে বক্তরা বলেন, “দেশ জুড়ে মানুষ পোড়ানোর যে তা-ব শুরু হয়েছে, তার বিরুদ্ধে শুভবোধ সম্পন্ন মানুষদের ঐক্যবদ্ধ করবার জন্য এবং অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে শক্তি সঞ্চয়ের জন্য এবারের বসন্ত উৎসব”। এ পর্বে বক্তরা দেশবাসীকে ঐক্যবদ্ধভাবে জেগে উঠবার আহবান জানান। উৎসবে সমবেত সঙ্গীত পরিবেশন করে রক্তকরবী, সঙ্গীত ভবন, উদীচি শিল্পীগোষ্ঠী। অনুষ্ঠানের প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পরিবেশনায় আবৃত্তি, গান ও নৃত্য পরিবেশিত হয়। বৃন্দ আবৃত্তি স্বরনন্দন প্রমিত বাংলা চর্চাকেন্দ্র, বিভাস আবৃত্তি চর্চাকেন্দ্র, নরেন আবৃত্তি একাডেমি। এছাড়া প্রমার শিশুবিভাগ এবং বড় বিভাগের আবৃত্তিশিল্পীরা তাদের বৃন্দ আবৃত্তি পরিবেশন করে। নৃত্য পরিবেশন করে ওডিসি এন্ড টেগর ডান্স মুভমেন্ট সেন্টার, জেলা শিল্পকলা একাডেমি, ঘুঙ্গুর ললিতকলা একাডেমি, ওরিয়েন্টার ডান্স একাডেমি। আদীবাসি নৃত্য পরিবেশন করে গাইরিং কালচারাল ডান্স, রামগড়, খাগড়াছড়ি। যন্ত্রসঙ্গীত পরিবেশন সুফি ব্যান্ড আসায়োদ। একক সঙ্গীত পরিবেশন করেন জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পী সামিনা চৌধূরী, সন্দিপন, এনি দে, চৈতি মুৎসুদ্দি, মাহফুজ আহমেদ, রোজী বিশ্বাস, তামান্না ইসলাম, লিটন নন্দী। একক আবৃত্তি করেন আবৃত্তিশিল্পী তাসকিয়াতুন নূর তানিয়া, এছাড়া প্রমার আবৃত্তিশিল্পী কংকন দাশ, এটিএম সাইফুর রহমান।

বিকেল ৪টায় উৎসবের দ্বিতীয়পর্ব শুরু হয় পুরস্কার বিতরণীর মধ্য দিয়ে। এপর্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ছিলেন সম্মানিত জেলা প্রসাশক মেজবাহ উদ্দিন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন একুশে পদকপ্রাপ্ত শিল্পী অধ্যাপক মনসুরুল করিম, চারুকলা ইনস্টিটিউট চট্টগ্রামের পরিচালক নাছিমা আকতার রুবি, চারুকলা ইনস্টিটিউটের অধ্যক্ষ সৌমেন দাশ, চট্টগ্রাম দক্ষিন জেলা আওয়ামিলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাংস্কৃতিক সংগঠক মফিজুর রহমান।

অনুষ্ঠানে সকাল ৮টায় বিভিন্ন স্কুলের শিশুদের নিয়ে চিত্রাংকর প্রতিযোগীতার আয়োজন করা হয়। প্রতিযোগীতার ফল ঘোষনা এবং পুরস্কার বিতরণ করা হয়। চিত্রাঅনুষ্ঠানটি সরাসরি সম্প্রচার করে দেশ টিভি, মিডিয়া পার্টনার ছিলো দৈনিক আজাদী, রেডিও টুডে, কো-স্পন্সর ছিলো ফোর এইচ গ্রুপ। উৎসবের অনুষ্ঠান উপস্থাপনায় ছিলেন কংকন দাশ, এটিএম সাইফুর রহমান, মঞ্জুর মুন্না, রাবেয়া সুলতান।


আরোও সংবাদ