বলুয়ার দিঘীর পাড়স্থ খান্কা শরীফে ৩৯তম ওরছ মোবারকের স্মারক আলোচনা

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ১২ অক্টোবর , ২০১৭ সময় ০১:২৮ অপরাহ্ণ

আলহাজ্ব নূর মুহাম্মদ আল-কাদেরী কুতুবুল আউলিয়া সিরিকোটি (রহ.) ও গাউসে জামান তৈয়ব শাহ্ (রহ.)’র সংস্পর্শে ইনসানে কামেলে পরিণত হয়েছিলেন

গতকাল নগরীর বলুয়ার দীঘি পাড়স্থ খানক্া-এ কাদেরিয়া সৈয়্যদিয়া তৈয়্যবিয়ায় রাহনুমায়ে শরীয়ত ও তরিকত, মুর্শেদে বরহক, আওলাদে রাসুল গাউসে জামান তৈয়্যব শাহ্ (রহ.)’র প্রধান খলিফা, আনজুমানে রহমানিয়া আহমদিয়া সুন্নিয়ার সাবেক সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট আলহাজ্ব নূর মুহাম্মদ আল-কাদেরী (রহ.)’র ৩৯তম সালনা ওফাত বার্ষিকী স্মারক আলোচনায় বক্তারা বলেন, আলহাজ্ব নূর মুহাম্মদ সওদাগর আল কাদেরী (রহ.) তৎকালীন সময়ের স্বনামধন্য ব্যবসায়ী হওয়ার পরও আপন পীর মুর্শিদের নির্দেশনার প্রতি নিবেদিত ছিলেন বিধায় একজন সাধারণ মানুষ হওয়া সত্ত্বেও অসাধারণ অনুসরণীয় ব্যক্তিত্বে পরিণত হয়েছিলেন। দরবারে আলিয়ায়ে কাদেরীয়া, জামেয়া ও আনজুমানের খেদমতকে জীবনের একমাত্র ব্রত হিসেবে নেয়ার কারণে তিনি গাউসে জামান তৈয়্যব শাহ্ (রহ.)র প্রধান খলিফা হিসেবে “আল-কাদেরী” উপাধী লাভ করেন।
বক্তারা আরো বলেন, প্রকৃত পক্ষে কুতুবুল আউলিয়া হযরত সৈয়দ আহমদ শাহ্ সিরিকোটি (রহ.) ও গাউসে জামান তৈয়্যব শাহ্ (রহ.)’র সংস্পর্শে মরহুম আলহাজ্ব নূর মোহাম্মদ আল কাদেরী (রহ.) ইনসানে কামেলে পরিণত হয়েছিলেন। তাঁর বিনয় খেদমত ও শিষ্টাচার সকলের কাছে আজো পরম অনুকরণীয় আদর্শ উল্লেখ করে বক্তারা তাঁর জীবন চর্চার মাধ্যমে বর্তমান ঝাঞ্চা-বিক্ষুদ্ধ সমাজে শান্তির বারতা আসতে পারে বলে মন্তব্য করেন।
আলহাজ্ব নুর মুহাম্মদ আলকাদেরী স্মৃতি সংসদের উপদেষ্টা ও গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব পেয়ার মোহাম্মদ কমিশনারের সভাপতিত্বে স্মারক আলোচনায় প্রধান আলোচক ছিলেন জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়ার শায়খুল হাদিস শেরে মিল্লাত হযরতুল আল্লামা মুফতি ওবাইদুল হক নঈমী, বিশেষ আলোচক ছিলেন, আনজুমান রিসার্স সেন্টারের মহাপরিচালক ও আল কোরআন গবেষক আল্লামা এম এ মান্নান। পরিবারের পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন আনজুমানে রহমানিয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া ট্রাস্টের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট আলহাজ্ব মুহাম্মদ মহসিন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, আন্জুমান ট্রাস্টের এডিশনাল সেক্রেটারি জেনারেল আলহাজ্ব মুহাম্মদ শামসুদ্দীন, জয়েন্ট সেক্রেটারি জেনারেল আলহাজ্ব মুহাম্মদ সিরাজুল হক, আন্জুমান ট্রাস্টের সম্মানিত সদস্য আলহাজ্ব মুহাম্মদ আলী ইমাম, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন, গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশের মহাসচিব আলহাজ্ব শাহজাদ ইবনে দিদার, যুগ্ম মহাসচিব এড. মোছাহেব উদ্দিন বখতিয়ার, আলহাজ্ব মাহবুবুল হক খান। মুহাম্মদ এরশাদ খতিবী ও অধ্যাপক আবু তালেব বেলালের সঞ্চালনায় আলোচনায় অংশ নেন সোবহানিয়া আলিয়া মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষ মাওলানা জুলফিকার আলী চৌধুরী, বিশিষ্ট কলামিস্ট ও গবেষক অধ্যাপক মাসুম চৌধুরী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়র ইসলামী শিক্ষাবিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মাওলানা মোর্শেদুল হক, ১৯নং দক্ষিণ বাকলিয়া ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলহাজ্ব ইয়াছিন চৌধুরী আশু, শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও জামেয়ার প্রাক্তন ছাত্র মুহাম্মদ ইসকান্দর আলম, জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া মহিলা ফাজিল মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষ মাওলানা ড. মুহাম্মদ সাইফুল আলম, কধুরখীল তৈয়্যবিয়া তাহেরিয়া সুলতান মোস্তফা মাদ্রাসার সাবেক সুপার মাওলানা আবুল কাশেম তাহেরী।
অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গাউসিয়া কমিটি চট্টগ্রাম মহানগর শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক আলহাজ্ব ছাদেক হোসেন পাপ্পু, দক্ষিণ জেলা গাউসিয়া কমিটি সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ হাবিব উল্লাহ মাস্টার, জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া মাদ্রাসার শিক্ষক মাওলানা জসিম উদ্দিন আলকাদেরী, মাওলানা জয়নাল আবেদীন, মাওলানা আবদুল গফুর রেজভী, মাওলানা আব্দুচ সবুর আনসারী, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মাদ্রাসা পরিদর্শক মাওলানা ক্বারী মুহাম্মদ হারুন উর রশিদ প্রমুখ। অন্যান্য কর্মসূচির মধ্যে ছিল বাদে ফজর থেকে পবিত্র খতমে কোরআন, খতমে মাজমুয়ায়ে সালাওয়াতে রাসূল (দ.), খতমে গাউসিয়া শরীফ, বাদে জোহর মরহুমের মাজারে ফাতেহা পাঠ ও পুষ্পমাল্য অর্পণ, বাদে আসর হতে নাতে রাসূল (দ.) পরিবেশন, বাদে মাগরিব হতে স্মারক আলোচনা। অনুষ্ঠানে শেরে মিল্লাত মুফতি ওবাইদুল হক নঈমীকে স্মৃতি সংসদের পক্ষ থেকে আহলে সুন্নাত ওয়াল জমা’আত, সিলসিলায়ে আলিয়া কাদেরীয়া ও গাউসিয়া কমিটির প্রচার প্রসারে বিশেষ অবদানের জন্য সম্মাননা স্মারক ক্রেস্ট প্রদান করেন আনজুমানে রহমানিয়া আহমিদয়া সুন্নিয়া ট্রাস্টের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট আলহাজ্ব মুহাম্মদ মহসিন। পরিশেষে মিলাদ, কিয়াম, সালাত সালাম, আখেরী মুনাজাত ও তবারুক বিতরণের মাধ্যমে দিনব্যাপী কর্মসূচির সমাপ্তি ঘটে।