বর্ন ফর শুটিং’ স্লোগান নিয়ে দেশের স্মার্ট ফোনের বাজার মাত করতে ওয়ালটন প্রিমো জেডএক্স

প্রকাশ:| শুক্রবার, ৪ এপ্রিল , ২০১৪ সময় ১০:৩২ অপরাহ্ণ

ওয়ালটন প্রিমো জেডএক্সexবর্ন ফর শুটিং’ স্লোগান নিয়ে দেশের স্মার্ট ফোনের বাজার মাত করতে আসছে ওয়ালটন প্রিমো জেডএক্স। বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী প্রসেসর-সংবলিত সর্বোচ্চ ধারণক্ষমতার হ্যান্ডসেট এটি। বাজারে আসার আগেই জেডএক্স ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। পড়ে গেছে প্রি-অর্ডারের হিড়িক। ৪ এপ্রিল শুক্রবার ক্রেতারা হাতে পাচ্ছেন এই সেট।

ক্যামেরায় ব্যবহৃত হয়েছে লারগান এম-৮ লেন্স। ৮ স্তরের এই লেন্সগুলোর সামনে থাকছে স্যাফায়ার গ্লাস। এর কাস্টমাইজড ফ্লাশ লাইট অন্যান্য এলইডির চেয়ে শতকরা ৬০ ভাগ বেশি উজ্জ্বল আলো দেবে। যাতে কম আলো বা অন্ধকারেও তোলা যাবে ভালো ছবি। আবার এতে মোবাইল ফোনসেট জগতের সবচেয়ে বড় (ওয়ান বাই ২.৩ ইঞ্চি) বিএসইআই সেন্সর থাকায় এলইডি ফ্লাশ ছাড়াও নয়েজলেস ছবি নেওয়া যায়।

প্রিমো জেডএক্স সেট তৈরি হয়েছে আধুনিক সিএনসি (কম্পিউটার নিউমেরিক্যালি কন্ট্রোল) পদ্ধতিতে। আছে ৫.৫ ইঞ্চি ফুল এইচডি ডিসপ্লে। স্ক্রিন প্রটেক্টর হিসেবে গরিলা গ্লাস-৩ ডিসপ্লে প্যানেলকে দেবে অধিকতর সুরক্ষা। ২.২ মিলিমিটারের সরু ফ্রেম বর্ডারের কারণে দেখতে আকর্ষণীয়। এটি একটি ইউনিবডি সলিউশন। রিয়ার প্যানেল কার্ভ আকৃতির। এটি ধরতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করবেন ব্যবহারকারীরা।

সিঙ্গেল মাইক্রোসিম চেম্বারের এই ফোনে মিলবে উচ্চ গতির ইন্টারনেটসেবা। প্রথমবারের মতো নয়েজ ক্যানসেলেশনের জন্য তিনটি বিশেষ মাইক্রোফোন রয়েছে এতে। কথা বলার সময় নয়েজ হবে না। ভিডিও রেকর্ডিং এ পাওয়া যাবে নিখুঁত শব্দ। আছে উন্নত মানের ইয়ারফোন।

অন্যান্য স্মার্টফোনের তুলনায় পারফরমেন্সের দিক থেকে জেডএক্স অনেক এগিয়ে। এতে রয়েছে অ্যান্ড্রয়েড ৪.২.২। প্রসেসিং ইউনিট হিসেবে রয়েছে ক্রেইট৪০০। আছে ২.২ গিগাহার্টজ কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৮০০ প্রসেসর। সর্বোচ্চ ধারণক্ষমতার ৩ জিবি র‍্যাম, ৩২ গিগাবাইটের বিশাল রম। প্রয়োজনীয় তথ্য, ছবি, মিউজিক, অডিও, ভিডিও, অ্যাপস ইনস্টল এবং স্টোরের জন্যও রয়েছে পর্যাপ্ত জায়গা।

উচ্চ মানের গ্রাফিক্‌স প্রসেসিংয়ের জন্য থাকছে অ্যাডরিনো ৩৩০ জিপিইউ। ওপেন জিএলইএস ৩.০ লাইব্রেরি থাকায় সর্বোচ্চ মানের ভিডিও গেমস খেলা যাবে। মাল্টিমিডিয়াতে ফোরকে ভিডিও প্লেব্যাকের সঙ্গে পাওয়া যাবে ফুল এইচডি ভিডিও রেকর্ডিং, এফএম রেডিও, মিউজিক প্লেয়ারসহ নানারকম সুবিধা। কানেকটিভিটিতে নতুন যোগ হয়েছে নেয়ার ফিল্ড কমিউনিকেশন-এনএফসি। ফলে ফাইল ট্রান্সফার হবে দ্রুত। আরো আছে ডুয়েল ব্যান্ড ওয়াইফাই (২.৪ এবং ৫ গিগাহার্টজ), ইউএসবি ওটিজি এবং ব্লুটুথসহ সব ধরনের কানেকটিভিটি সুবিধা। জেডএক্সে ১০টিরও বেশি সেন্সর আছে। প্রিমো সিরিজে প্রথমবারের মতো যুক্ত হয়েছে প্রেশার সেন্সর।

এতসব অত্যাধুনিক সুযোগ-সুবিধা ভোগ করতে প্রিমো জেডএক্স ব্যবহারকারীকে সহায়তা করবে ২৭৫০ মিলি অ্যাম্পিয়ার লিথিয়াম পলিমার ব্যাটারি। এই ফোনসেটের দাম ধরা হয়েছে ৩০ হাজার ৯৯০ টাকা।

স্পেসিফিকেশন :-
ডিসপ্লে ( পর্দা) : ৫.৫ ইঞ্চি ফুল এইচডি ১০৮০পি (৪০১ PPI)
প্রোটেকশন : গরিলা গ্লাস ৩
মাল্টিটাচ : হ্যাঁ
নেটওয়ার্ক :
২জি নেটওয়ার্ক : GSM ৮৫০/৯০০/১৮০০/১৯০০
৩জি নেটওয়ার্ক : WCDMA ২১০০
৪জি নেটওয়ার্ক : হ্যা (যদিও ওয়াল্টন এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানায়নি)
সিম : ১টি, মাইক্রো সিম
আকৃতি : ১৫০.৬x৭৫x৯.৫
কানেক্টিভিটি : ব্লুটুথ ৪.০, HDMI, USB 2.0 OTG এবং এনএফসি(NFC)
মেমোরি: ৩জিবি র‍্যাম, ৩২জিবি নন এক্সপ্যান্ডেবল স্টোরেজ।
ওএস: অ্যান্ড্রয়েড 4.2.2 জেলিবিন, ( কিটক্যাট আপডেট আসছে)
প্রসেসর: কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৮০০
ক্লক স্পীড : ২.২GHz
কোর : কোয়াড কোর ক্রেইট ৪০০
জিপিইউ : অ্যাড্রিনো ৩৩০
মূল্য: ৩০ হাজার ৯৯০ টাকা।

এ ডিভাইসটিতে রয়েছে ২টি চমক আর প্রথমটি রয়েছে এর ক্যামেরায়। নতুন এই ফোনটিতে রিয়ার ক্যামেরা হিসেবে রয়েছে ১৬ মেগাপিক্সেল এর শক্তিশালী ক্যামেরা যার ফলে এটি কে ওয়াল্টন বর্ন ফর শুটিং বলে এনেছে। ক্যামেরায় ব্যবহার হয়েছে BSI সেন্সর যা একপ্রকার CMOS সেন্সর যার ফলে অল্প আলোতে যথেষ্ট ভাল ছবি আসবে। এবং ব্যাটারি খরচও কম হবে। এর রিয়ার ক্যামেরাকে সবচেয়ে ভাল অ্যান্ড্রয়েড ক্যামেরা বলে দাবি করেছে নির্মাতা। এছাড়াও ফোনের সামনে রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা যা আইফোন ৪এস এর রিয়ার ক্যামেরার মতোই বলে দাবি করা হচ্ছে।

এ ব্যাপারে ওয়ালটন সেলুলার ফোনের গবেষণা ও উন্নয়ন বিভাগ জানিয়েছে, যারা হ্যান্ডসেট ব্যবহার করবেন তাদের আলাদা করে ক্যামেরা ব্যবহারের প্রয়োজন নেই। এজন্যই জেডএক্সকে বলা হচ্ছে বর্ন ফর শুটিং। অর্থাৎ ছবি তোলা বা ভিডিও করার জন্যই এর জন্ম। এর অটোফোকাস ১৬ মেগা পিক্সেল ব্যাক ক্যামেরায় পাওয়া যাবে নিখুঁত প্রফেশনাল ছবি। ওয়ালটন জেডএক্সে আছে সর্বাধুনিক মানের ৮ মেগা পিক্সেল অটো ফোকাস ফ্রন্ট ক্যামেরা। স্কাইপি বা ভিডিও কল এবং নিজের ছবি তোলার জন্য বর্তমান বিশ্বে এর চেয়ে ভালো মোবাইল ফোন ক্যামেরা আর নেই।