বর্ণাঢ্য আয়োজনে ঈদ সম্মিলন শেষ করেছে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব

প্রকাশ:| রবিবার, ২৫ আগস্ট , ২০১৩ সময় ০৫:৫৪ অপরাহ্ণ

p cশরতের আগমনে প্রকৃতির মোহনীয় রূপের বর্ণাঢ্য আয়োজনে ঈদ সম্মিলন শেষ করেছে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব। শনিবার রাতে প্রেসক্লাবের ইঞ্জিনিয়ার আবদুল খালেক মিলনায়তনে এ সম্মিলন পরিণত হয়েছিল আনন্দের মিলনমেলায়।

এ আনন্দের সাথে সামিল হতে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রাইম ডিস্ট্রিবিউশন্স গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের আজীবন দাতা সদস্য মোহাম্মদ রাশেদুল আলম মামুন।

অতিথির বক্তব্যে রাশেদুল আলম মামুন বলেন, সাংবাদিকরা সবসময় সমাজ তথা দেশের গুরুত্বপূর্ণ বিষয়াদি জনগণের সামনে তুলে ধরেন। তাদের পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে করতে রীতিমতো কান্ত-শ্রান্ত হয়ে পড়েন। এক্ষেত্রে একটু বিনোদনেরও প্রয়োজন হয়। বিনোদনের মাধ্যমে স্বতস্ফূর্তভাবে নবউদ্যমে কাজ শুরু করা যায়। সেই তাগিদ অনুভব করেই চট্টগ্রাম প্রেস কাব সদস্য ও তাদের পরিবারের সাথে আজ একাত্মতা প্রকাশ করার জন্য এখানে এসেছি। ঈদের আনন্দকে নতুন করে উদ্দীপনাময় করে তুলতে এ আয়োজন সাংবাদিকদের উদ্দীপ্ত করবে।

প্রেসক্লাব সভাপতি আলী আব্বাসের সভাপতিত্বে আলোচনা অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক মহসিন চৌধুরী। অতিথিকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান সাংস্কৃতিক সম্পাদক রূপম চক্রবর্তী।

শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাবের আজীবন দাতা সদস্য আ জ ম নাছির উদ্দিন। তিনি চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের বিভিন্ন কর্মকান্ডে অতীতের ন্যায় ভবিষ্যতেও সম্পৃক্ত থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

আলী আব্বাস বলেন, প্রাইম ডিস্ট্রিবিউশন্স গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাশেদুল আলম মামুন একাধারে ব্যবসায়ী, ক্রীড়া সংগঠক, সমাজসেবী ও সংস্কৃতিপ্রেমী। তিনি প্রেসক্লাবের সদস্যদের ঈদ সম্মিলনে উপস্থিত হয়ে আমাদের আনন্দের মাত্রা আরো বহুগুণে বাড়িয়ে দিয়েছেন।

সাধারণ সম্পাদক মহসিন চৌধুরী বলেন, ‘প্রেসক্লাব সদস্য ও তাদের পরিবারের বিনোদনের জন্য বছরব্যাপী নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সেসব অনুষ্ঠানের সাথে এবার প্রথমবারের মতো আয়োজন হতে যাচ্ছে ঈদ সম্মিলন। এছাড়া সদস্য সন্তানদের প্রতিভা বিকাশে নানা কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।’

কবি ও সাংবাদিক রাশেদ রউফের কবিতার মধ্যদিয়ে শুরু হয় সাংস্কৃতিক পর্ব। এতে ছিল কথামালা, আবৃত্তি, সংগীতানুষ্ঠান ছাড়াও নানা আয়োজন। এতে অংশগ্রহণ করেন শিল্পী আকলিমা মুক্তা, আঞ্চলিক গানের শিল্পী প্রেমসুন্দর বৈঞ্চব ও রুম্পা খান।

ফাঁকে ফাঁকে চলতে থাকে র‌্যাফেল ড্র। সবার মাঝে উৎকণ্ঠা – কার নাম ঘোষণা হচ্ছে, কে হচ্ছেন এবারের র‌্যাফেল বিজয়ী, কেউ তাদের টিকিটের অর্ধেকাংশ হাতে নিয়ে বারবার ঘোষিত নাম্বারের সাথে মিলিয়ে দেখার চেষ্টা করছেন। প্রেসক্লাব অভ্যন্তরে সাজানো হয়েছে ভিন্নরকম সাজ। এ যেন এক অন্যরূপ আবহ।