বরিশালে যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে নিহত ১২

প্রকাশ:| শুক্রবার, ১১ জুলাই , ২০১৪ সময় ১১:০৭ অপরাহ্ণ

বরিশালে যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে নিহত ১২বরিশাল-ঢাকা মহাসড়কের উজিরপুর উপজেলার ইচলাদী বাসস্টান্ডের সামনে যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে আশপাশের স্থানীয় পথচারীসহ বাজারে ঢুকে পড়ে। এ ঘটনায় কমপক্ষে ১২ জন নিহত হয়েছে বলে স্থানীয় ও পুলিশ সুত্রে জানা গেছে।

তবে মৃতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে ধারনা করা হচ্ছে। আশংকাজনক অবস্থায় উজিরপুর স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ও শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে কম পক্ষে ৩০ জনকে।

আজ শুক্রবার সন্ধ্যা সোয়া ৬টায় হানিফ পরিবহনে এ মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটে। উজিরপুর থানার ওসি আনোয়ার হোসেন আলোকিত বাংলাদেশকে জানান, নিহতদের দেহ বিকৃত হওয়ায় এখন পর্যন্ত তাদের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে উদ্ধার কাজ চলছে। এমন মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় ঘটনাস্থলে মানুষ এসে স্বজনদের খুঁজতে থাকেন। হাজারো মানুষের ভিড়ে সেখানে হৃদয় বিধারক দৃশ্যের অবতারণা হয়েছে।

নিহতরা হচ্ছেন- শিকারপুরের মিসুক ড্রাইভার মতিউর রহমান(৪৫), ইচলাদীর মামুন আকন(২০), রাকুদিয়ার টেম্পু ড্রাইভার ইউনুস হাওলাদার(৫০), হারুন রশিদ(৪৫) হামদার্দ কোম্পানীতে কর্মরত জাহাঙ্গির(৪০), রিকশা চালক সেলিম(৪৫), মিসুক চালক নজরুল মিরা(৩০), পথচারী মোজাম্মেল(৩৫), শিক্ষক মীর শরিফ(২৩), সোহাগ(২৫) ও মুন্নি (৩০)। এছাড়া হাকিম ব্যাপারী(৬০) নামক একজন ভাতিজার মৃত্যুর খবর পেয়ে হৃদযন্ত্ররে ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান।

প্রত্যক্ষদর্শী শিকারপুর নিবাসী ব্যবসায়ী মো. রবিউল ইসলাম আলোকিত বাংলাদেশকে জানান, তিনি ইচলাদী বাস স্টান্ডের সম্মুখে অপেক্ষামান অবস্থায় দেখতে পান হঠাৎ ঢাকা থেকে বরিশালগামী একটি বাস(হানিফ পরিবহন, ঢাকা মেট্রো-ব-১৪০৫৯৪) দ্রুত গতিতে এসে একটি ট্রাককে ধাক্কা দেয়। তীব্র স্পীড থাকায় বাসটি এক পর্যায়ে পার্শবর্তী বাজারে ঢুকে পড়ে। এসময় সেখানে থাকা মিশুক, টেম্পু, মাহিন্দ্রাসহ বিভিন্ন ছোট যানের উপর দিয়ে বাসটি চলে যায়। ফলে আশপাশের ৩০ থেকে ৪০ জন মানুষ দুর্ঘটনার শিকার হন। বাসের চাপায় বেশ কয়েকজনের ক্ষতবিক্ষত দেহ রাস্তায় পড়ে থাকতে দেখা গেছে।

স্থানীয়রা জানান, বাসের যাত্রীদের তেমন কিছুই হয়নি। তাছাড়া বাসে যাত্রী ছিল খুবই কম। মূলত নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাসটি মহাসড়কের বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন বাজার ও আশপাশের ছোট যানের উপর উঠে গেলে সেখানকার মানুষ দুর্ঘটনার শিকার হন। ওই ঘটনায় ইচলাদীর ৭/৮টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বেশ কয়েকটি ছোট যান দুমড়ে মুচরে গেছে।

স্থানীয় ব্যাবসায়ী মো. জিয়াউল করিম আলোকিত বাংলাদেশকে জানান, নিহতের সংখ্যা ১০ জনের বেশি হবে। হানিফ পরিবহন বরিশাল কাউন্টার ম্যানেজার রানা জানান, বাসটি সকাল ১০টায় ঢাকার গাবতলি থেকে ছেড়ে আসে। বাসের চালক ছিল বেল্লাল।

বাসযাত্রীরা জানান, বাসের চালক বেপরোয়া গতিতে চালাচ্ছিল। উজিরপুরের ইচলাদির স্পীড ব্রেকার দেখেও বাসের গতি না কমিয়ে সামনের ট্রাকে ধাক্কা দিলে দুর্ঘটনা ঘটে। এমন মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় আশপাশের হাজারো মানুষ এসে স্বজনদের লাশ খুঁজতে থাকে।

উজিরপুর থানার ওসি আনোয়ার হোসেন জানান, ঘটনার পরপরই বাসের ঢ্রাইভার ও হেল্পার পালিয়েছে। উদ্ধারকারী র‌্যাকার এনে বাসের নিচে থাকা একটি টেম্পুর কয়েকজন যাত্রীর প্রাণ বাচানোর চেস্টা চলছে।


আরোও সংবাদ