বন্যার পানির কারণে হাতিটি বর্তমানে স্থলভাগে উঠতে পারছে না

প্রকাশ:| বুধবার, ৩ আগস্ট , ২০১৬ সময় ১১:১৮ অপরাহ্ণ

এক মাসের বেশি সময় অতিবাহিত হলেও ভারত থেকে পাহাড়ি ঢলে ভেসে আসা সেই বন্যহাতিটি এখনো উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

এদিকে, জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে গত ২ দিনে প্রায় ১৫টি বাড়ি তছনছ করেছে হাতিটি।
বন্যার পানির কারণে হাতিটি বর্তমানে স্থলভাগে উঠতে পারছে না
ঢাকার আগারগাঁওয়ে অবস্থিত বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ-অপরাধ দমনের পরিদর্শক অসীম কুমার পালের নেতৃত্বে ১৭ সদস্যের উচ্চ পর্যায়ের একটি দল গত ৪ দিন ধরে নিরলসভাবে হাতিটি উদ্ধারে কাজ করলেও এখন পর্যন্ত হাতিটি উদ্ধারে কোন কার্যকরী ব্যবস্থা নিতে পারেনি।

বর্তমানে হাতিটি সরিষাবাড়ী দাশেরবাড়ী চরে অবস্থান করছে। ঢাকার ওই দলটি সার্বক্ষণিক হাতিটির দিকে নজর রাখছে।

বন কর্মকর্তা অসিম মল্লিক বলেন, বন্যার পানির কারণে হাতিটি বর্তমানে স্থলভাগে উঠতে পারছে না। আমরাও হাতিটি উদ্ধারে সেরকম কোনো পদক্ষেপ নিতে পারছি না। পানি কমলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা সম্ভব হবে বলে তিনি জানান।

তিনি আরো বলেন, বৃহস্পতিবার ভারত থেকে উচ্চ পর্যায়ের একটি দলের ঘটনাস্থলে আসার কথা রয়েছে। যদি তারা আসে তাহলে দু’দেশের লোকজন মিলে হাতিটি উদ্ধার করা সম্ভব হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এ প্রসঙ্গে জামালপুর জেলা প্রশাসক (ডিসি) শাহাবুদ্দিন খান জানান, হাতিটি উদ্ধারে ভারতীয় দল এলে তাদের পরামর্শে বাংলাদেশ ও ভারতীয় প্রতিনিধি দল যৌথভাবে হাতি উদ্ধারে প্রচেষ্টা চালাবে।

বন্যহাতিটি গত ২৮ জুন ভারতের আসাম থেকে কুড়িগ্রাম জেলা দিয়ে বাংলাদেশের প্রবেশ করে। এরপর সিরাজগঞ্জ, গাইবান্ধা বগুড়ার চর ঘুরে ২৭ জুলাই জামালপুরের সরিষাবাড়ীর কামারাবাদ ইউনিয়নের দাশেরবাড়ী চরে এসে অবস্থান নেয়।


আরোও সংবাদ